কালিয়ায় এমপি-ওসির সামনেই আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ॥ আহত ১০

0
428

নড়াইল প্রতিনিধি
নড়াইল-১ আসনের সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি ও কালিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গণি মিয়াসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে কালিয়া উপজেলার আমতলা গ্রামে এমপি’র দুই গ্রুপের মধ্যে চেয়ার ছোড়াছুড়ি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এমপি মুক্তি নিজেও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হয়ে মসজিদের ভেতর আশ্রয় নেন। এ সময় এক সেনা সদস্যসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। পুলিশের কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিতে পরিস্থিতি শান্ত হয়। বুধবার (২৮ জুন) সন্ধ্যা ৭ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পুলিশ বুধবার রাতে ও বৃহস্পতিবার সকালে ৯ জনকে আটক করেছে। ব্যাপক পুলিশী অভিযানের মুখে গ্রেফতার এড়াতে গ্রামটি এখন পুরুষ শুন্য হয়ে পড়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার আমতলা গ্রামের জান্নাত শেখ গ্রুপ এবং হান্নান ও শেখ লিকু শেখ গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত দ্বন্দ্ব ফ্যাসাদ বিদ্যমান। উভয় গ্রুপই এমপি কবিরুল হক মুক্তির সমর্থিত ও মদদপুষ্ট। উভয় গ্রুপের দ্বন্দ্ব মীমাংসার জন্য এমপি কবিরুল হক মুক্তির মধ্যস্থতায় পূর্বনির্ধারিত দিনে বুধবার বিকালে আমতলা মাদ্রাসা চত্ত্বরে কালিয়া থানার ওসি শেখ গণি মিয়াসহ পুলিশের একটি দল ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে উভয়পক্ষের অভিযোগ-অনুযোগের শুনানী শুরু হয়। শুনানীকালে সাবেক পুরুলিয়া ইউপি সদস্য ও আ’লীগ নেতা লিকু শেখ এমপির নিকট অভিযোগ করেন, ‘জান্নাত আ’লীগের নেতা হয়েও বিএনপি’র নেতা-কর্মীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় ও পৃষ্ঠপোষকতা করেন। এ সময় জান্নাতের শ্যালক বিএনপি কর্মী রানা শেখ এর প্রতিবাদ করলে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে এমপি-ওসির সামনেই উভয় পক্ষের মধ্যে চেয়ার ছোড়াছুড়ি ও লাঠিসোঠা এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ তুমুল হট্টগোল-মারামারি শুরু হয়। এ সময় চেয়ার ছোড়াছুড়িতে এমপি মুক্তি নিজেও সামান্য আহত হন এবং নিরাপত্তাজনিত কারণে দৌঁড়ে আমতলা মসজিদের ভেতর আশ্রয় নেন। এ সময় উভয়পক্ষের সংঘর্ষে হান্নান শেখ-লিকু মেম্বার গ্রুপের ইকবাল শেখ (৫০), শামসুর রহমান (৭০),খাজা নাজিম উদ্দিন শেখ (৬০),সজিব শেখ(১৮) ও ওই গ্রামের বাসিন্দা ঈদের ছুটিতে বাড়িতে আসা সেনা সদস্য রজিবুল শেখ (২২) এবং জান্নাত গ্রুপের তাজমিদুল শেখ (৩৫), রিয়াজ শেখ (৩০), সাইফুল শেখ (৩২), আফছার শেখ (৪১) ও রবিউল শেখ (৩৫) আহত হন। এ সময় পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত সংসদ সদস্য মুক্তি এমন অবস্থা দেখে বিব্রতবোধ করেন। পরিস্থিতি শান্ত হলে এমপি ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। আহতদেরকে খুলনা  মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে,কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ঘটনার পর বুধবার রাতে জান্নাত গ্রুপের লোকজন  প্রতিপক্ষ ইলিয়াছ শেখ, ফখরুল শেখ ও খাজা মিয়া শেখসহ কয়েকটি বাড়ি ভাংচুর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
ওই ঘটনায় পুলিশ দফায় দফায় অভিযান চালিয়ে বুধবার রাতে রবিউল শেখ ও বাচ্চু শেখকে এবং বৃহস্পতিবার সকালে হিরু মিয়া, মোকছেদ মোল্যা, রেযোয়ান শেখ, শহীদ শেখ, খাজা মিয়া, লায়েক শেখ ও ফকরুল ইসলামকে আটক করেছে। পুলিশের অভিযানে নারী ও শিশুরা রয়েছে অজানা আতংকে।
এ প্রসঙ্গে হান্নান শেখ বলেন, ‘জান্নাত শেখ ও তার সমর্থিত বিএনপি’র লোকজনের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে এমপির নিকট নালিশ দিলে তিনি ঘটনার দিন ধার্য করেন। ওই মিটিংয়ে ভূক্তভোগী এলাকাবাসীর পক্ষে লিকু মেম্বার (সাবেক) এমপির নিকট অভিযোগকালে জান্নাতের শ্যালক বিএনপি কর্মী রানা তাকে (লিকু) উদ্দেশ্য করে কটু বাক্য ব্যবহার করলে উভয় পক্ষের মধ্যে বাক-বিতন্ডার এক পর্যায় এমপি-ওসির সামনেই উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ  বেধে যায়। এ সময় এমপি মহোদয় ঘটনাস্থলের পাশে আমতলা মসজিদে আশ্রয় নেন এবং পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ ২/৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়েন।’
একই প্রসঙ্গে জান্নাত শেখ বলেন, ‘আধিপত্য বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষ বাঁধে। ঘটনাস্থলে নড়াইল-১ আসনের এমপি করিরুল হক মুক্তি ও কালিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ গণি মিয়ার উপস্থিতিতেই সংঘর্ষ হয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত করতে গুলির শব্দ শুনেছি, কে বা কারা গুলি করেছে তা আমি জানিনা।’
একই প্রসঙ্গে কালিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গণি মিয়া বলেন, ‘এমপি মহোদয় ও আমার উপস্থিতিতে আমতলা গ্রামের একটি সালিশ মিটিংয়ে চেয়ার ছোড়াছুড়ির মতো সামান্য একটি ঘটনা ঘটেছে। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে ফাঁকা গুলি ছোঁড়ার কোন ঘটনা ঘটেনি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’
এ ঘটনা সম্পর্কে মতামত জানতে নড়াইল-১ আসনের এমপি মো. কবিরুল হকের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here