কালিয়ায় জাল সনদে ভুয়া পরিচয়ে ভারতীয় নাগরিককে দপ্তরী নিয়োগের চেষ্টা

0
322

নড়াইল প্রতিনিধি
নড়াইলের কালিয়া উপজেলার ডুটকুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে জাল সনদপত্র দিয়ে ভুয়া পরিচয়ে ভারতীয় নাগরিককে নিয়োগের চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া  গেছে। সিদ্ধার্ত পোদ্দার নামের এক প্রার্থীকে ওই পদে নিয়োগ দিতে জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। অভিযোগ রয়েছে প্রার্থী সিদ্ধার্ত পোদ্দার মোটা অঙ্কের উৎকোচের বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে ওই পদে নিয়োগ দানের চেষ্টা করছেন। প্রতিকারের আশায় স্থানীয় বাসিন্দা জনৈক মিহির বিশ্বাস ২ এপ্রিল কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে সনদপত্র যাচাই-বাছাইসহ বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ডুটকুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে প্রার্থীর শিক্ষাগত নুন্যতম যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণী পাস হতে হবে বলে উল্লেখ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক সিদ্ধার্ত পোদ্দার ও মিলন বিশ্বাস আবেদন করেন। আবেদনকারীদের মধ্যে সিদ্ধার্ত পোদ্দার শিক্ষাগত যোগ্যতায় ভারতের একটি কলেজ থেকে ¯œাতক ডিগ্রিধারী হলেও তার স্বজনরা উৎকোচের বিনিময়ে স্থানীয় নিউ মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে অষ্টম শ্রেণী পাসের একটি সনদপত্র সংগ্রহ করে আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দেন। প্রকৃতপক্ষে, সিদ্ধার্ত পোদ্দার ১৯৮৯ সালে ওই বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হন। এখানে কিছুদিন পড়াশোনা করার পর ভারতে গমন করেন। সম্প্রতি প্রভাবশালী এক নির্বাচিত রাজনীতিকের নিয়োগের প্রতিশ্রুতিতে ভারতীয় পার্সপোর্টধারী সিদ্ধার্ত পোদ্দার তার আদি পৈত্রিক বাড়ি ডুটকুরা গ্রামে ফিরে আসেন। নিউ মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অঘোর কুমার মোহান্ত জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে ১৯৮৯ সালের ভর্তি বহিতে সুকৌশলে সিদ্ধার্ত পোদ্দারের নাম ফ্লুইড দিয়ে মুছে অন্য একজনের নাম বসিয়ে দেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এরপর ১৯৯৮ সালের ভর্তি বহিতে তাকে ভর্তি দেখানো হয়েছে। সনদপত্রে সিদ্ধার্ত পোদ্দার ২০০১ সালে ওই স্কুল থেকে অষ্টম শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে। অথচ সিদ্ধার্ত পোদ্দারের সহপাঠীরা ১৯৯৪ সালে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। এদিকে, জালসনদধারী সিদ্ধার্ত পোদ্দার ভারতীয় নাগরিক হওয়ায় বাংলাদেশের ঠিকানায় তার কোন জাতীয় পরিচয়পত্রসহ অন্যান্য কোন প্রমাণপত্র নেই। সে এদেশের ভোটারও নন। শুধুমাত্র জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে সম্প্রতি একটি জন্মনিবন্ধন সনদ তৈরি করে আবেদন পত্রে দাখিল করেছেন। সনদপত্র জাল হলেও গত ২৭ মার্চ তারিখে ওই পদে আবেদনকারীদের মধ্যে সিদ্ধার্ত পোদ্দারও নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেন।
স্থানীয়দের অভিযোগ, সিদ্ধার্ত পোদ্দারের বড় দাদা গোপেষ পোদ্দার (৫০) ও তার দিদি কাকলী পোদ্দার (৪৫) ভারতের নাগরিক এবং সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। সেসুবাদে সিদ্ধার্ত পোদ্দার ১৯৮৯ সাল থেকে ভারতে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন এবং সে ভারতের নাগরিকও বটে।  সে ভারতের চব্বিশ পরগনার বলতা বাজারে অবস্থিত তার দিদি কাকলী পোদ্দারের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন।তবে সিদ্ধার্ত পোদ্দারের মেজ দাদা পার্থ পোদ্দার (৪২)অত্র জেলার কালিয়া উপজেলার নড়াগাতী থানার ডুটকুড়া গ্রামের পৈত্রিক ভিটায় বসবাস করেন বলে জানা গেছে। সম্প্রতি সিদ্ধার্ত পোদ্দার ভারতীয় পাসপোর্টে বাংলাদেশে এসে মেজ দাদা পার্থ পোদ্দারের বাড়িতে ওঠেন এবং সেখানে অবস্থান করে অবৈধভাবে নিয়োগ পেতে স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ও সহযোগিতায় জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। রহস্যজনক কারণে যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য, ভারতীয় নাগরিক এবং জাল সনদপত্রের অধিকারী সিদ্ধার্ত পোদ্দারকে নিয়োগদানের জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন নিয়োগ বোর্ডের সাথে যুক্ত সংশ্লিষ্টরা। সঠিকভাবে তদন্ত করলে, সিদ্ধার্ত পোদ্দারের দাখিলকৃত সনদপত্র  জাল বলে প্রমানিত হবে বলে দাবি করছেন অভিযোগকারী। এ প্রসঙ্গে কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নিয়োগ কমিটির সভাপতি মো. কামরুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করা হচ্ছে। সত্যতা পাওয়া গেলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে’। একই বিষয় নিউ মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অঘোর কুমার মোহান্ত বলেন, ‘বিদ্যালয়ের রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে যা পাওয়া গেছে, সে মোতাবেক সিদ্ধার্ত পোদ্দারকে অষ্টম শ্রেণির একটি সনদ দেয়া হয়েছে’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here