কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স!একবছর অন্তঃসত্ত্বা নারীদের অস্ত্রোপচার বন্ধ ৩৫ চিকিৎসকের ৩১ পদই শূন্য, চিকিৎসা দিচ্ছেন স্বাস্থ্য সহকারিরা

0
303

নড়াইল প্রতিনিধিঃ
নড়াইলের কালিয়া উপজেলাধীন দু’টি থানার প্রায় তিনলক্ষাধিক মানুষের চিকিৎসা নিতে হচ্ছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের  স্বাস্থ্য সহকারিদের নিকট থেকে। উপজেলার একমাত্র সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বর্তমানে কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৪জন চিকিৎসক। ১ জন রয়েছেন মাতৃত্বজনিত কারণে ছুটিতে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে ৩৫জন চিকিৎসকের পদ থাকলেও ৩১টি পদই ধীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। চিকিৎসক সংকটের কারণে প্রতিদিন আউটডোরের শত শত রোগীর চিকিৎসা দিচ্ছেন স্বাস্থ্য সহকারিরা। সরেজমিনে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে ওই সব তথ্য জানা গেছে। শুধু তাই নয় ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গাইনি ও অবেদনবিদ না থাকায়  গত এক বছর ধরে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের অস্ত্রোপচার  বন্ধ রয়েছে। প্রসুতি ও গর্ভের সন্তান নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন অভিভাবকরা। (শাস্তি স্বরুপ) কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রভাস কুমার দাশকে জরুরী ভাবে স্বাস্থ্য দফতরে (ওএসডি) হিসেবে বদলী  করা হয়েছে। ১৬ এপ্রিল তাকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিধি বহির্ভূতভাবে একেরপর এক শৃংখলা ভঙ্গ হচ্ছে। যে কারণে শুধু চিকিৎসা ক্ষেত্রেই নয়, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশাসনিক চেইন অব কমান্ড একেবারেই ভেঙ্গে পড়েছে। অপরদিকে, কর্মচারীদের অবহেলা ও স্বেচ্ছাচারিতার কারণে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। এখানকার বর্তমান চিত্র দেখলে মনে হবে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি নিজেই যেন বিভিন্ন অনিয়ম আর দুর্নীতির রোগে আক্রান্ত। নার্স বা অন্য কোন কর্মচারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে তা তদন্তে প্রমানিত হলেও তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়না ।যার কারণে অনিয়ম ও দুনীতি ব্যাপক হারে বেড়ে গেছে।স্মারক নং উস্বাক/কা/নড়া/২০১৬/১৬৯৬ তাং-০৮ নভেম্বর ১৬ সুত্রের আলোকে ডাঃ তুষার কুমার পোদ্দার (সভাপতি), বিদিশা রানী রায়-নার্সিং সুপার ভাইজার (সদস্য সচিব), ডাঃ মহসীন আল-নূরী (সদস্য), তদন্ত কমিটি একটি তদন্ত প্রতিবেদন ২৬ ডিসেম্বর’১৬ তারিখে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা কালিয়া নড়াইল এর নিকট জমা দেন। নার্স বিভারানী দাস ও বুলু রানীর বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে প্রমানিত হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এছাড়া তাদের অপরাধ লিখিতভাবে স্বীকার করলেও (অপরাধীরা) তারা বহাল তবিয়তে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাম-রাজত্ব কায়েম করে চলেছেন।
২০০৮ সালে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত হয়। কিন্তু ওষুধ সরবরাহ করা হচ্ছে ৩১ শয্যার। এদিকে চার বছর ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে আছে একমাত্র এক্স-রে করা যন্ত্রটি। একবছর আগে আসা আল্ট্রাসনো যন্ত্রটিও শুরু থেকেই নষ্ট বলে রোগীদের অভিযোগ।
১১টি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পদের মধ্যে সবকটি পদ শুন্য রয়েছে। চিকিৎসক-সংকটে জরুরি বিভাগ ও বর্হিবিভাগে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হচ্ছে। একটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং ১৩টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসকের পদ রয়েছে ১৪টি। এর একটিতে একজন চিকিৎসক আছেন, তিনিও রয়েছেন মাতৃত্বকালীন ছুটিতে।
কালিয়া  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বর্তমানে ৪ জন চিকিৎসক কাগজ কলমে থাকলেও আছেন মাত্র  ৩জন। তিনজন চিকিৎসক পালাক্রমে ২৪ ঘন্টা করে জরুরী বিভাগে নিয়োজিত থাকেন। যে কারণে আউটডোরসহ রোগীরা চিকিৎসা দিচ্ছেন স্বাস্থ্য সহকারিরদের নিকট থেকে। অপর দিকে গাইনী বিভাগে চিকিৎসক না থাকায় গত একবছর যাবৎ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটিতে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের অস্ত্রোপচার বন্ধ রয়েছে। যে কারণে এলাকার গর্ভবতী বা অন্তঃসত্ত্বা মহিলারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে সেবা নিতে পারছেন না। আর কেউ আসলেও তাকে চিকিৎসক না থাকার ওজুহাতে খুলনাসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে পাঠিয়ে দিচ্ছেন বলে জানা যায়। দন্ত বিভাগের সব কিছু থাকা সত্বেও সংশ্লিষ্টদের অবহেলার কারণে অত্রস্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  দন্ত বিভাগ নেই। দীর্ঘদিন অত্র উপজেলায় দন্ত রোগীরা দন্ত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। যার কারণে দিনদিন অত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগীর সংখ্যা কমে আসছে। দন্ত বিভাগের চেয়ারসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি যতেœর অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে এবং যাচ্ছে। একজন দন্ত টেকনিশিয়ান থাকলেও তিনি অন্যত্র বসে মাতৃত্বকালীন মহিলাদের দাফতরিক কাজ কর্ম করেন ।
এ উপজেলায় ৫০শয্যার একটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, একটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং ১৩টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে। এ গুলোতে ৩৫ জন চিকিৎসকের পদ থাকলেও কর্মরত আছেন মাত্র ৩জন। চিকিৎসক-সংকটে সরকারি হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন অত্র উপজেলার গরীর রোগীরা। গাইনি চিকিৎসক ও অবেদনবিদ না থাকায় গত  একবছর ধরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অন্তঃসত্ত্বাদের অস্ত্রোপচারসেবা কার্যক্রম বন্ধ আছে । স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের  বর্হিবিভাগের কর্মরত ফার্মাসিস্ট আশিষ বাগচী জানান, বর্হি বিভাগে প্রতিদিন ১৮০-২৫০ জন রোগী হয়। এর মধ্যে তিন ভাগের দুই ভাগই নারী। মঙ্গলবার (১৮ এপ্রিল) ১১০ জন নারী এবং ৬১জন পুরুষ এবং ১৩জন পুরাতন রোগী সর্বমোট ১৮৪ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন।
চিকিৎসক সংকটের কারণে তিনজনকে একদিন পরপর ২৪ ঘন্টা জরুরী বিভাগে দায়িত্ব পালন করতে হয়। তাই আউটডোরের রোগীসহ অন্য রোগীদের সঠিক সেবা তারা দিতে পারছেন না। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা বাকা গ্রামের হুমায়ন মোল্যা (হুম) ও বাঐসোনা গ্রামের জাহাঙ্গীর মোল্যা জানান, এখানে এসে তারা জানতে পেরেছেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক নেই তাই তারা রোগী নিয়ে খুলনা বা অন্যত্র যাবেন। তবে সরকারি এ্যম্বুলেন্সটি নড়বড়ে যার কারণে অন্য ব্যবস্থার কথা ভাবছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কর্মচারি জানান, হঠাৎ করেই কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসকরা উধাও হয়ে গেছে। তিনজন চিকিৎসকের পক্ষে রোগীর চাপ কুলানো সম্ভব হচ্ছে না। বিধায় রোগীরা অন্যত্র চলে যেত বাধ্য হচ্ছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের  এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার  গোপাল চন্দ্র  জানান, একটি অ্যাম্বুলেন্স, তার বয়স ১৫ বছর।
কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ শাহেদুর রহমান সাগর (চলতি দায়িত্ব)বলেন, ‘গাইনী বিভাগের কোন চিকিৎসক না থাকায় চিকিৎসা দেয়াসহ সিজারিয়ান করা সম্ভব হচ্ছেনা। চিকিৎসক সংকটের কারণে স্বাস্থ্য সহকারিদের কাজে লাগানো হচ্ছে’।
নড়াইলের সিভিল সার্জন আমিন আহম্মেদ খান বলেন, ‘চিকিৎসক-সংকটের পাশাপাশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক না থাকায় অস্ত্রোপচারসহ জটিল  রোগের চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে প্রতিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অন্তত একজন করে গাইনি, শিশু ও অবেদনবিদ বিশেষজ্ঞ থাকলেও চালিয়ে  নেওয়া  যেত। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে নিয়মিত অবহিত করা হচ্ছে’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here