কালীগঞ্জে পরিবেশ উন্নয়ন ও জৈব কৃষি বিস্তারের অবদানে জাতীয় পদক পেলেন চাচা-ভাতিজি

0
293

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ উপজেলায় চাচা ও ভাতিজি এবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পেয়েছেন পরিবেশ উন্নয়ন ও জৈব কৃষি বিস্তারে অবদান রাখায় । কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে তাঁদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। পুরস্কার পাওয়া দুজন হলেন হেলাল উদ্দিন (৭০) ও তাঁর ভাতিজি মর্জিনা বেগম (৪০)। তাঁদের বাড়ি ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ উপজেলার মহেশ্বরচাঁদা গ্রামে। বিশেষ করে হেলাল উদ্দিন ও তার ভাতিজি মর্জিনা বেগম এলাকায় ও দেশের বিভিন্ন স্থানে নিরাপদ ও বিষমুক্ত ফসল চাষের লক্ষ্যে কেঁচো সারসহ জৈব বালাইনাশক তৈরি ও ব্যবহার এবং কৃষকদের মাঝে এসব বিতরণ করে তাঁরা ওই পুরস্কারের ব্রোনজ পদক লাভ করেন। পদক পেয়ে খুশি হয়েছেন হেলাল উদ্দিন ও মর্জিনা বেগম। বৃহস্পতিবার তাঁরা বলেন, এই পুরস্কার পেয়ে তাঁদের আরও বেশি করে কাজ করতে ইচ্ছা করেছে।

কৃষক হেলাল উদ্দিন বলেন, তাঁর প্রয়াত ভাই ওমর আলী কার্ড নামের একটি সমিতি গঠন করা হয় ২০০১ সালে। এ সমিতি এলাকায় নিরাপদ ও বিষমুক্ত ফসল চাষ শুরু করেন। এ সমিতির অধীনে ওমর আলীর মেয়ে মর্জিনা ও তাঁকে এ বিষয়ে প্রশিক্ষন দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। তাঁরা ১৫ দিন কেঁচো সার তৈরির প্রশিক্ষন নেন। একজন জাপানি, একজন ভারতীয় ও দুজন বাংলাদেশি বিশেষজ্ঞ তাঁদের গ্রামে এসে প্রশিক্ষন দেন। এরপর তাঁরা বাড়িতে কেঁচো সার তৈরি শুরু করেন। প্রথম দিকে এ সার কেউ ব্যবহার করতে চাইতেন না। এলাকার মানুষ অনেক নানা ধরনের মন্তব্য করতেন। তাদের নিজ খরছে নিজ বাড়িতে এ সার তৈরি করে এলাকায় তাঁরা ২০০৯ সাল পর্যন্ত বিনা মূল্যে মানুষকে এ সার দেন। এখন তিনি মাসে ২৫ থেতে ৩০ মণ সার তৈরি করেন। ১৫ টাকা কেজি দরে তা বিক্রি করেন। তাঁরা জৈব বালাইনাশক, ভেষজ উদ্ভিদ ও অর্গানিক কম্পোস্ট সার উৎপাদন ও বিতরণ করে কৃষকদের এগুলো ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করেন। এতে করে এলাকায় তাদের দু,জনের জনপ্রিয়তা বাড়তে শুরু করে। কৃষকরা ও এসার ব্যবহারে ঝুকে পড়ে। হেলাল ও মর্জিনা বেগম দেশের বিভিন্ন স্থানে কৃষকদের প্রশিক্ষন দিয়ে থাকেন।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম বলেন, গত ১৬ জুলাই রাজধানীতে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে হেলাল উদ্দিন ও মর্জিনা বেগমের হাতে পদক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। কৃষি বিভাগের সার্বিক সহযোগিতা ও প্রযুক্তি কাজে লাগানোর মাধ্যমে তাঁরা এ সফলতা পেয়েছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here