কাল বৈশাখির তান্ডবে কৃষকের স্বপ্ন অতল পানির নিচে তলিয়ে গেল

0
282

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি : বাঘারপাড়া উপজেলায় কাল বৈশাখি ঝড় ও অতি বর্ষনে বোরো ধান, আম লিচুসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।কৃষকের

মুখের হাসি ফুরিয়ে গেছে। এর ফলে কৃষকদের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে।
প্রচন্ড ঝড় ও বৃষ্টির কারনে ধানের শীষ বের হওয়া বোরো ধান হেলে মাটির সাথে শুয়ে পড়েছে। কোথাও আবার পানির নিচে নিমজ্জিত হয়েছে ধান ক্ষেত।  শীষ বের হওয়া আধা পাকা বোরো ও কাটার উপযোগি জিরা ধান হেলে পানিতে ডুবে গেছে।

ধলধলিয়া, জলেশ্বর  পাইতেরবীল,খলশী,সহ নওয়াপাড়া বিলের ধান তলিয়ে গেছে সম্প্রতি ভারী বর্ষণ ও জোয়ারের পানিতে ।  ভুক্তভোগী  কৃষকদের সেই স্বপ্ন-স্বাদও ভাসিয়ে নিয়ে গেছে ফসলের সাথে। ক্ষতিগ্রস্থ  কৃষক পরিবারের এখন  চলছে শুধুই হাহাকার আর হতাশার মধ্যদিয়ে। শ্রমিক সংকটের কারনে অনেকের ধান পচেঁ ও চারা গজিয়ে  নষ্ট হচ্ছে পানিতেই। বাঘারপাড়ার দরাজহাট ও রায়পুর ইউনিয়নের একাংশে অবস্থিত বহুল পরিচিত জলেশ্বর বীল। এ বিশাল বিলে শতকারা  ৯৫ ভাগ ধান-ই পানির তলে। তলিয়ে যাওয়া ধানের মধ্যে রয়েছে জিরা মিনিকেট, বাসমতি ৫০ ধানের চাষাবাদ বেশি হয়েছিল এখানে। এ মাঠে অনেকেই  বৃষ্টির আগে জিরা মিনিকেট ধান কেটে মাঠের মধ্যে বিছিয়ে রেখেছিলো।

এদের মধ্যে পাইকপাড়া গ্রামের কৃষক মাধব সাড়ে ৪ একর,গোলক সাড়ে ৩ একর আর জলিলের ৪ একর কাটা ধান পানিতে তলিয়ে যায়। অবশ্য অতিরিক্ত টাকা ব্যয় করে সামান্য পরিমান ধান উদ্ধার করেছেন বলে সাংবাদিকেদের  জানান তারা।  ভুক্তভোগী রা বলেন,‘জলেশ্বর বিলের ধানের অবস্থা খুবই করুন। ২/১ দিনের মধ্যে পানি সরে না গেলে এ বিলের মোট ধানই পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে’ অনেক বেশি। হাবু ধানের গোড়া শক্ত হওয়ায় এখনও পানির মধ্যে সোজা হয়ে দাড়িয়ে আছে বলে উল্লেখ করেন এ ধানের উদ্ভাবক সত্যজিৎ বিশ্বাস হাবু। অন্যদিকে বাঘারপাড়া উপজেলার দোহাকুলা ও ধলগ্রাম ইউনিয়ের ধলধলিয়া বিলের অবস্থাও করুন। শনিবার সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে হাজার হাজার বিঘা জমির ধান। পানির মধ্যে দাড়িয়ে কেউ ধান কাটছেন।

আবার কেউ কেউ গোছা গোছা ধান পানিতে ভাসিয়ে টেনে তুলছেন উপরে। এ কাজে যে শুধু পুরষেরাই নিয়োজিত রয়েছেন- তা নয়। নিজেদের ধান রক্ষা করতে মহিলারাও যোগ দিয়েছেন এ কাজে স্থানীয় মহিলারা। নওয়াপাড়া গ্রামের কৃষক ইমারত হোসেন এবার ৬ বিঘা জমিতে জিরা জাতের ধান চাষ করেছিলেন।

তলিয়ে থাকা অবস্থায় ২ বিঘা জমির ধান কেটে উপরে তুলেছেন শনিবার দুপুর পর্যন্ত। বাকি ধান সময়মত উপরে তুলতে পারবেন কিনা তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তিনি। ইমারতের মত সমস্যায় রয়েছেন একই গ্রামের মাওঃ বদিউজ্জামান। তিনি এবার জিরা ও ২৮ জাতের ধান চাষ করেছেন ১১ বিঘা জমিত্।ে শ্রমিকের অভাবে এ পর্যন্ত মাত্র সিকি ভাগ ধান পানি থেকে উদ্ধার করতে পেরেছেন। এমন সমস্যার মধ্যে রয়েছেন নওয়াপাড়া গ্রামের শরাফত,খলিলুরও।দোহাকুলার গলগলিয়া ও নওয়াপাড়া এবং ধলগ্রামের ভুলবাড়িয়া মৌজায় ধলধলিয়া বিলের অবস্থান। ধলগ্রাম বাজারের স্লুইচ গেট ছেড়ে দেয়া ও জলেশ্বর বিলের বাঁধ কেটে দেয়ায় ধলধলিয়া বিলের ফসল পানিতে ডুবেছে বলে স্থানীয় কৃষকরা  অভিযোগ করেন।

তবে গলগলিয়া গ্রামের পঞ্চাষোর্ধ কৃষক ইদ্রিস আলীর মত একটু ভিন্ন-ই। তার বক্তব্য ‘স্লুইচ গেট খোলা থাকলেও সমস্যা,বন্ধ থাকলেও সমস্যা। স্লুইচ গেট নিয়ন্ত্রণকারীরাই সমস্যা করে’। গলগলিয়া চাড়াঘাটায় লোহার পাত বা স্লুইচ গেট নির্মাণ করলে ধলধলিয়া বিল বাঁচবে বলেও মন্তব্য করেন ইদ্রিস আলী সহ এলাকার অনেকেই। এদিকে পানির নিচে ধান তলিয়ে যাওয়ায় এবার ফলন ভাল হলেও খরচ ওঠানো দুস্কারও হয়ে পড়েছে। কৃষকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে পানির নিচে ধান কেটে ঘরে তুলতে দ্বিগুন খরচ হচ্ছে। সেক্ষেত্রে কাটা,বাধা ও যানবাহন খরচ বেড়ে দাড়াবে ৯ থেকে ১০ হাজার টাকায়। যেখানে বিঘা প্রতি ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা খরচের হিসাব ছিল। সবমিলিয়ে বাঘারপাড়ার জলের  ধলধলিয়া বিলের কৃষকরা দিনাতিপাত করছেন দুশ্চিন্তায়। তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে হাহাকার। অনেক কৃষক তাদের জমির নিকটেও যাচ্ছেননা হার্ডএ্যাডাকের ভয়ে। ধলধলিয়া মাঠের জমির মালিক ও পাড়সংলগ্ন বাসিন্দাদের প্রাণের দাবী একটি সুইচ গেট হলে হইতো এই মাঠের চাষিরা কিছুটা হলেও বাচার সপ্ন খুজে পাবে আগামিতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here