কিশোর অপরাধ কি অপ্রতিরোধ্য?

0
312

কিশোর অপরাধ সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক ও জাতীয় উদ্বেগের বিষয়ে পরিণত হইয়াছে। রাজধানী এবং ইহার আশপাশের কিশোর-তরুণদের ১২টি গ্রুপের সন্ধান পাইয়াছে সরকারি গোয়েন্দা সংস্থা। এই ১২টিসহ সারা দেশে ৩৫টি গ্রুপের কথা জানা গিয়াছে। ঢাকার উত্তরা, ধানমন্ডি, তেজগাঁও, কাফরুল, মোহাম্মদপুর, তুরাগ, নিউমার্কেট ও গাজীপুরের জয়দেবপুর এলাকায় গ্রুপগুলি সক্রিয় রহিয়াছে। কেবল অপরাধের সংখ্যাই বৃদ্ধি পাইতেছে তাহা নহে, অপরাধের ধরনও পাল্টাইয়া যাইতেছে। জানুয়ারি মাসে এরকমই একটি গ্রুপের নিকট হইতে উত্তরায় হত্যার শিকার হয় আদনান নামের এক কিশোর। তেজকুনিপাড়াতেও সমধর্মী ঘটনা ঘটিয়াছিল। কিশোর অপরাধীদের অন্যতম শিকার হইল নারী বা কিশোরীরা। কয়েকদিন আগে এক কিশোরীর গায়ে আগুন ধরাইয়া দেওয়া হইয়াছিল, গত রবিবার কিশোরীটি মৃত্যুবরণ করিয়াছে। কিশোর অপরাধের বিষয়টি ক্রমেই মারাত্মক পর্যায়ে চলিয়া যাইতেছে।

শিশু আইন অনুযায়ী অনূর্ধ্ব ১৮ বছরের যেহেতু সকলেই শিশু, তাই বড় অপরাধ করিলেও তাহাদের ফৌজদারি আসামি করা যাইবে না, তাহাদের পাঠাইতে হইবে সংশোধন কেন্দ্রে। কারণ তাহারা যদি কোনো অপরাধ করিয়াও থাকে তবে ইহার জন্য তাহারা যতটা না দায়ী, সামাজিক পরিস্থিতি এই ক্ষেত্রে অধিক দায়ী। অর্থাত্ সমাজে এমন কোনো পরিস্থিতি তৈরি হইয়াছে যাহাতে এইসকল কিশোর অপরাধে জড়াইয়া পড়িতেছে। কিশোরেরা যদি খুন-ধর্ষণের ন্যায় ভয়ঙ্কর ও অনাকাঙ্ক্ষিত অপরাধে যুক্ত হইয়াও পড়ে তবে তাহাদের সংশোধনের জন্য সামাজিক পরিস্থিতিতে কোনো গলদ রহিয়াছে কিনা সেই দিকেও নজর দিতে হইবে। সমাজে আইনের শাসন ঠিকঠাক মতো কার্যকর নাই। বড়রা নানান অপরাধ করিয়া পার পাইয়া যাইতেছে, তাই ছোটরা ওই পথেই হাঁটিতেছে। অন্যদিকে খেলার মাঠগুলি ক্রমেই বিলুপ্ত হইতেছে। টগবগে কৈশোরের সঞ্চিত শক্তি তাই ব্যয়িত হইতেছে নানান বাদানুবাদে, অপরের প্রতি দাপট প্রদর্শনের কাজে।

এইক্ষেত্রে পরিবারের দায়িত্বই অধিক। পিতা-মাতা ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যের সহিত যদি কিশোর সন্তানের সৌহার্দ্যপূর্ণ স্বাভাবিক সম্পর্ক থাকে, তবে এমনিতেই অপরাধপ্রবণতা কমিয়া আসিবার কথা। অধিক অনুশাসনের পরিবর্তে সন্তানের সহিত পিতা-মাতার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকিলে সন্তানরা দৈনন্দিন জীবনে কী কী করিতেছে তাহার হদিস অভিভাবকদের নিকট থাকিত। অন্যদিকে আমাদের সমাজে কিছু পরিবর্তনও ঘটিয়া গিয়াছে। বয়স নির্বিশেষে সকলেই অতিরিক্ত পরিমাণে প্রযুক্তিনির্ভর হইয়া পড়িয়াছে। উঠতি বয়সের অতি আগ্রহ এইসকল প্রযুক্তিকে ঘিরিয়া নানান অপরাধপ্রবণতার জন্ম দিতেছে। যেই হাতে এখন মুঠোফোন, সেই হাতেই একসময় থাকিত বই। মহল্লায় মহল্লায় গ্রন্থাগার ছিল, এখন সেইসব উঠিয়া গিয়াছে; অবশিষ্ট গণগ্রন্থাগারেও পাঠক কমিয়া গিয়াছে। গ্রন্থপাঠ মানুষকে সুকুমারবৃত্তির সহিত পরিচয় ঘটাইয়া দেয়। ইন্টারনেটেও রহিয়াছে বহুবিধ সুকুমারবৃত্তির উপাদান, কিন্তু সঙ্গে রহিয়াছে সুকুমারবোধ ধ্বংস করিবারও নানান অনুষঙ্গ। সেইসকল অনুষঙ্গের ইশারা কমবয়সীদের বিভ্রান্ত করিতেছে। এই পরিস্থিতি হইতে পরিবার-সমাজকে যদি মুক্ত করা না যায়, তবে কিশোর অপরাধ অচিরেই দূর হইবার সম্ভাবনা কম।

পারিবারিক পরিবেশ হইতে হইবে বন্ধুত্বপূর্ণ, কলহমুক্ত ও আনন্দমুখর। বিদ্যালয়-মহল্লা-পাড়া ইত্যাদি সামাজিক পরিবেশ হইতে হইবে নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন। রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক পর্যায়ে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করিতে হইবে। পাশাপাশি জাতীয় পর্যায় হইতে এই বিষয়ে সচেতনতামূলক কর্মসূচি হাতে লইতে হইবে। তবেই আশা করা যায় যে, আমাদের কিশোররা সঠিক পথে হাঁটিবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here