কুড়ে ঘরে বসে জনগণের চিকিৎসা সেবা আজও করে যাচ্ছেন রাজগঞ্জে প্রায় শত বছরের বয়বৃদ্ধ শমছের আলী খান

0
370

উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর(যশোর)অফিস॥ পথ চলার পথে হঠাৎ দেখা মেলে প্রায় শত বছরের এক বয়বৃদ্ধের সাথে। তার আত্নজীবনী সম্পর্কে কথা বলতেই জানা যায়, তিনি অন্য কেউ নন, তিনি হলেন যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকার ১১ নম্বর চালুয়াহাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন আহ্বায়ক ও সাবেক মেম্বার আমজাদ আলী খান এর পিতা শমসের আলী খান। তিনি রাজগঞ্জের মোবারকপুর গ্রামের একটি সাধারণ পরিবারে বাংলা ১৩৩৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মরহুম ইয়ার আলী খান ও দাদা মরহুম হোসেন আলী খান। এই সাধারণ পরিবারের মাঝে ধীরে ধীরে বেড়ে উঠা শমসের আলী খান মোবারকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বাংলা ১৩৪৮ সালে পঞ্চম শ্রেণি শেষ করার পর নেংগুড়াহাট মাদ্রাসায় ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হন। সেখানে বেশিদিন লেখাপড়া করতে পারেনি। অষ্টম শ্রেণি শেষ করে আর পড়ালেখা হয়নি তার।  এরপর  সংসার জীবনের হাল ধরতে হয়। বয়োবৃদ্ধ শমসের আলী খানের ৫ ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। এদের মধ্যে সেজ ছেলে আশরাফ আলী কে হাফেজ বানিয়েছে। এবং নোয়াছেলে আমজাদ আলী খানকে জনসেবার কাজে লাগিয়েছেন। আমজাদ আলী খান এর ১৯৭৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন। বয়স বাড়ার সাথে সাথে স্কুল জীবনে আ, লীগের রাজনীতিকে মনে প্রানে ভালবেশে তার কর্মকান্ডের সাথে জড়িয়ে পড়েন। নিঃশর্তে  নি:লোভে দলের জন্য কাজ করতেন সে। দলের জন্য কঠোর ভূমিকা নিয়ে জামাত-বিএনপিকে হটিয়ে ছিলেন তিনি। ২০০১ সালে জামাত বিএনপি সরকার ক্ষমতায় এলে বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে পড়ে পালিয়ে বেড়ায় ও বাবার পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি করে মামলা চালিয়ে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েন সাবেক মেম্বার আমজাদ আলী খান। তাই বাধ্য হয়ে জীবন সংসার চালানোর দায়ে আজ আমজাদ আলী মেম্বার রাজগঞ্জ বাজারে চায়ের ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। তারপরও পিছিয়ে নেই তিনি। আ,লীগের রাজনীতিকে ধরে রাখতে নিজের চায়ের দোকানের পিছনে অস্থায়ী অফিস করে রেখেছেন। যেখানে প্রতিনিয়ত চালুয়াহাটি ইউনিয়ন ছাড়া অন্যান্য ইউনিয়নের নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটাররা এসে বসাউঠা করে থাকেন। চা বিক্রি করেও যতটুকু পারেন ওই অফিসের পিছনে কমবেশি খরচ করে থাকেন। এদিকে আমজাদ আলী খান বিগত পাঁচ বছর ধরে ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার হয়ে জনসভা করেছেন। বর্তমানে তিনি ইউনিয়ন আ,লীগের যুগ্ন-আহবায়ক পদে রয়েছেন। আগামী ইউপি নির্বাচনে সাবেক মেম্বার আমজাদ আলী খান ১ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বী করে আবারো জনসেবার কাজ করতে চান বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে। এদিকে তার পিতা বয়োবৃদ্ধ শমসের আলী খান সমাজ সামাজিকতাসহ পরোউপকার করা ছিল তার অভ‍্যাস। ধর্মের প্রতি অঘাত বিশ্বাস ছিল তার। তিনি গ্রামে একটি ফুরকানী মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মোবারকপুর মহিলা আলিম মাদ্রাসারাও প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি। রাজগঞ্জ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠায় তার বিশেষ অবদান রয়েছে। নিজ রাড়ির সীমানায় একটি মসজিদ নির্মাণ করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন ইমামতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বয়স বৃদ্ধির কারণে বর্তমানে তিনি ইমামতি ছেড়ে দিয়েছেন। এখন তার ছেলে আশরাফ আলী খান মসজিদের ইমামতি করেন। শমসের আলী খান প্রায় চল্লিশ বছর ধরে নিজ বাড়িতে ইছালে সোয়াব করে আসছেন। ছোট পরিসরে হলেও এখনো তা অব্যাহত রয়েছে। ৭১ যুদ্ধকালিন সময়ে ভারতে চলে যাওয়া গ্রামের ষষ্টি রায় নামক এক ব‍্যক্তি তার সকল সম্পদের কাগজ পত্র রেখে যান শমছের আলীর কাছে। তারা দেশে ফিরে আশা মাত্রই সকল কাগজ পত্র তাদেরকে বুঝিয়ে দিয়ে সততার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন। বুঝে ওঠার বয়স থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত তিনি নামাজ কায়জা করেনি। শমসের আলী খান বাংলা ১৩৬৮ সাল থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত রোজা রেখে আসছেন। সেই থেকে তিনি কোন দিন দিনের বেলায় কোন খাদ্য খাবার পান করেন নি। এমন কি প্রায় পঞ্চাশ বছর ধরে তিনি চাউলের ভাত খাননি।আটার রুটি সহ অন্যান্য খাবার খান তিনি। প্রায় শত বছর বয়স হতে গেলেও তিনি তার নামে বয়স্ক ভাতা কার্ড করতে দেয়নি। বিভিন্ন প্রকার জনসেবামূলক কাজ করায় তার ছিল প্রধান লক্ষ‍্য। বয়স্ক কাল থেকে আজ পর্যন্ত, শিশুদের পাঠদান করানো, ধর্মীয় জ্ঞান প্রদান করা ছিল তার অভ‍্যাস। জনসেবা করতে আল্লাহর কালামে ঝাড়ফুক করা, চিকিৎসা সেবা করতেন তিনি। বর্তমানে বয়বৃদ্ধ শমছের আলী খান ঠিকমত চলাফেরা করতে না পারলেও নিজ হাতে তৈরী করা মসজিদের পাশে একটি কুড়ে ঘরে বসে জনগণের চিকিৎসা সেবা করে যাচ্ছেন। এ সকল কারনে এলাকার মানুষের কাছে অতি প্রিয় আছেন। যার কারণে এলাকার লোকজন শমসের আলীকে সুফি সাহেব, মুনশী সাহেব, হেকিম, কবিরাজ, ডাক্তার ও মাস্টার বলে ডাকেন। এদিকে বয়বৃদ্ধ শমসের আলী খানের সম্পর্কে জানতে চাইলে, স্থানীয়রা বলেন তিনি একজন সম্মানী ব‍্যক্তি এবং সকলের কাছে অতি প্রিয়।