কুমিল্লা বুড়িচং রামপুর গ্রামের অটো রাইস মিলের শব্দ ও পরিবেশ দূষণে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ

0
136

হুমকির মুখে পড়েছে জনস্বাস্থ্য, দুষণের কারণে গাছপালা পশু-পাখির জীবন বিপন্ন হতে বসেছে

মনির হোসেন: পরিবেশ অধিদফতরে নির্দেশনার পরও কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলাধীন ভারেল্লা ইউনিয়নস্থ রামপুর গ্রামের মেসার্স সাকিব এন্ড ফারুক এবং মেসার্স ভাই ভাই অটো রাইস মিল বন্ধ না করায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন ভুক্তভোগীরা। বিচারপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ সড়কের পাশে নির্মিত ওই অটো রাইস মিলের শব্দ ও পরিবেশ দুষণে ঐ এলাকার প্রায় ৩ হাজার পরিবারের মানুষ বিনিদ্র জীবন-যাপনে অতিষ্ট হয়ে ওঠেছে। দেখা দিয়েছে নানা রোগ ব্যধি। শুধু তাই নয় এ কারণে এলাকার কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও বিপাকে পড়েছে।
ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে বুড়িচং উপজেলাধীন ভারেল্লা ইউনিয়নস্থ রামপুর গ্রামের মেসার্স সাকিব এন্ড ফারুক ২০১২ এবং মেসার্স ভাই ভাই অটো রাইস মিল ২০০৬ সালে চালু করা হয়। মিলের চিমনি দিয়ে বের হওয়া ধোঁয়া, ছাই, বর্জ্য, ময়লা আবর্জনা, নোংরা পানি ও বিকট শব্দ এলাকার পরিবেশকে মারাত্মক দুষিত করছে। হুমকির মুখে পড়েছে জনস্বাস্থ্য।
এলাকাবাসীরা জানান, মিল চলাকালে মেশিনের বিকট শব্দে বাড়িতে থাকা যায় না। ধান পচাঁনোর দুর্গন্ধ এবং বয়লারের উড়ন্ত ছাই-ধুলা বাইরে এসে পড়ায় রাস্তায়ও দাড়িয়ে থাকা যায় না। এমনিক কাপড় শুকানোও কষ্টকর হয়ে পড়েছে। দুষণের কারণে গাছপালা এবং পশু-পাখির জীবন বিপন্ন হতে বসেছে।
স্থানীয় কৃষক সফিক মিয়া বলেন, মিলের আশপাশে সহ¯্রাধিক মানুষ বাস করেন। রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও মসজিদ। মিলের দুগন্ধের্র কারণে এলাকায় শ্বাসকষ্টের রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। প্রায়ই হাসপাতালে যেতে হচ্ছে স্থানীয়দের। বিশেষ করে ছোট ছোট শিশুরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে মিলের অব্যবস্থাপনার কারণে।
স্থানীয়রা জানান, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে অভিযোগ দেয়া হলে তদন্ত শেষে এলাকাবাসীর অভিযোগের সত্যতা পান পরিবেশ অধিদফতর। মিলটি বন্ধের নির্দেশনা দেয়া হয় অধিদফতর থেকে। নির্দেশনা সত্বেও মিলটি বন্ধ করছেন না কর্তৃপক্ষ।
সাবিক এন্ড ফারুক অটো রাইস মিলের পরামর্শক নাছির উদ্দিন সোহাগ বলেন, ভাই ভাই অটো রাইস মেইল বন্ধ রয়েছে। সাবিক এন্ড ফারুক অটো রাইস মিলের কাজ চলছে। প্রতিদিন প্রায় ১২ হাজার ৫০০ মণ চাল উৎপাদন করা হয়। পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে আপনাদের সাবিক এন্ড ফারুক অটো রাইস মিলটি অবৈধ ঘোষনা করেছে। এই প্রশ্ন উত্তরে তিনি বলেন,আমরা বৈধ ভাবে রাইস মেইল চালাচ্ছি। পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে মিল বন্ধের যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সেটি আমরা আইনগত মোকাবিলা করছি ।
ভারেল্লা দক্ষিণ ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডেও মেম্বার সুলতান মিয়া বলেন, আমার ওয়ার্ডে ৩টি রাইস মিল আছে। তবে সাবিক এন্ড ফারুক অটো রাইস পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে মিল বন্ধের যে নির্দেশনা দেয়া হলেও তারা বর্তমানে পরিবেশ অধিদপ্তরে আইন নির্দেশনা মেনে কাজ করছে।
কুমিল্লা পরিবেশ অধিপ্তর সূত্রে জানা যায়,গত ৭ জানুয়ারি ২০১৮ইং তারিখে মেসার্স শাকিব এন্ড ফারুক অটো রাইস মিলটি কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য নোটিশ প্রদান করা হয়। রাইস মিলটি কার্যক্রম বন্ধ না করায় গত ২২ জানুয়ারি ২০১৮ ইং তারিখে একটি নোটিশ প্রদান করে জানায় মেসার্স সাকিব এন্ড ফারুক অটো রাইস মিলটি সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য গোপন করে পরিবেশগত ছাড়পত্র নবায়ন করেছেন যা দন্ডনীয় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
এদিকে এক অনুসন্ধানে দেখা যায়,কুমিল্লা জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: ছ¥ছুল আলমের একটি চিঠিতে জানা যায়, সাবিক এন্ড ফারুক অটো রাইস মিল ৩টি নোটিশ প্রদান করা হলেও রাইস মিলটির কার্যক্রম বন্ধ করেনি। এমতাবস্থায়,মহামান্য হাইকোর্টের গত ২৮ মার্চ ২০১৮ইং তারিখে রিট পিটিশন নং-৪৩৯৮/২০১৮ এর নিদের্শনা অনুসারে রাইস মিলটির কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য নিদের্শ প্রদান করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here