‘কুমিল্লা বোর্ডের নির্দয়কাণ্ডেই ফল বিপর্যয়’

0
358

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : ‘খাতা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে চরম কড়াকড়ি, আবার কোনো কোনো পরীক্ষকের ভুলের পাশাপাশি এক নম্বর যোগের অনুকম্পা না দেখানোয় কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে আখাউড়া উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এ বছরের এসএসসি পরীক্ষায় ফলাফল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে’ বলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা দাবি করেন।

পরীক্ষকরা উত্তরপত্র ক্রটিমুক্তভাবে মূল্যায়ন করতে গিয়ে তা স্বাভাবিকভাবে করতে পারেননি বলে অভিযোগ রয়েছে অভিভাবকদের।

তারা বলছেন, ‘এক বা দুই নম্বরের জন্য কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের নির্দয় আচরণের ফলে এবারের এসএসসি পরীক্ষার ফল বিপর্যয়ের মূল কারণ। তাছাড়া প্রাপ্ত নম্বরের বৃত্ত যথাযথভাবে ভরাট না করার কারণেও অনেক শিক্ষার্থীর ফল পাল্টে গেছে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় এসএসসিতে ‘বঞ্চনার শিকার’ শতাধিক শিক্ষার্থী সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন। বুধবার দুপুরে পৌরশহরের সড়ক বাজারের একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা প্রত্যাশী’র কার্যালয়ে এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আখাউড়া দেবগ্রাম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মলনে বাংলাদেশ রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্র আব্দুল বাছির জুয়েল বলেন, ‘সে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সব বিষয়ে জিপিএ-ফাইভ পেলেও পদার্থ বিজ্ঞানে এক নম্বরের জন্য ফেল করেছে।’

ওই শিক্ষার্থীর দাবি, সে ‘ফেল’ করতেই পারে না। ওই বিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষার্থী জয় দেব সব বিষয়ে জিপিএ-ফাইভসহ ভাল ফল পেয়েছে।

সাংবাদিকদের কাছে তার মার্কশিট দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘কৃষিতে ৭৮ নম্বর পেয়েও আমার ফলাফল ‘এফ’ এসেছে! এটা কিভাবে সম্ভব!’

দেবগ্রাম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সাইফুল ইসলাম নামে এক শিক্ষার্থী কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ‘আমার বাবা পত্রিকা বিক্রি করে আমাকে পড়িয়েছে। কিন্তু ফলাফলে আমাকে ইতিহাসে এক নম্বরের জন্য ফেল দেখিয়েছে। এটা নিশ্চিত পরীক্ষকের ভুল। আমি ফেল করতে পারি না।’

সাইদুল হক টিপু নামে আরেক শিক্ষার্থী জানান, ‘তাকে বাংলায় এক এবং ইসলাম শিক্ষায় দুই নম্বরের জন্য ফেল দেখানো হয়েছে। কিন্তু ওই পরীক্ষা সে অনেক ভালো দিয়েছে।’

বাংলাদেশ রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের  নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী জানান, ‘গণিতে তিনি উত্তরই করেছেন মাত্র ১৭ নম্বরের। পরীক্ষায় নিশ্চিত ফেল জানলেও ফলাফল দেখে তার চোখ চড়ক গাছ। সেখানে তিনি পেয়েছেন ৩৫ নম্বর!’

একই বিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষার্থী দাবি করেন, ‘৩০ নম্বরের উত্তর করলেও ফলাফলে দেখেন তিনি ৫১ পেয়েছেন।  এ রকম এক বা দুই নম্বরের জন্য কুমিল্লা বোর্ডের অনেক পরীক্ষার্থী ফেল করেছে।’

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘পরীক্ষার ফলাফলে গ্রেড পয়েন্টের সাথে প্রাপ্ত নম্বর চলে আসায় পূর্ণাঙ্গ  ফলাফল দেখে অনেক শিক্ষার্থীই শিক্ষা বোর্ডের নির্দয়তার বিষয়ে অভিযোগ করেছেন। অভিভাবকদের প্রশ্ন এ দায় এখন কে নেবে ?’

যদিও এই দায় নিতে নারাজ কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার বাইরে তাদের করার  কিছু ছিল না বলে অসহায়ত্ব প্রকাশ করেছেন কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কায়সার আহম্মেদ।

অবশ্য কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কায়সার আহম্মেদ বলেন, ‘এইচএসসি’র মতো এসএসসিতে প্রথম পত্র ও দ্বিতীয় পত্র এক সাথে পাসবিষয়ক কোনো বিষয় না থাকায় কো-অরডিনেশান নম্বর দিয়ে পাস করার কোনো সুযোগ নেই।’

তিনি বলেন, ‘প্রোগ্রামের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ আমাদের নাই। আমরা নিয়মের বাইরে যেতে পারি না।’

এ জন্য বোর্ডকে ‘নির্দয়’ বলেন অথবা ‘ভাল’ বলেন, এটা যে যার মতের ব্যাপার। কারণ মন্ত্রণালয় যদি আমাদের বলে, ‘৩২ পেলে এক নম্বর দিয়ে ৩৩ করে দাও। আমরা তা অবশ্যই করব।’

কম্পিউটারের ভুল হতে পারে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের পদ্ধতিতে কোনো ভুল নেই। যিনি কম্পিউটারের কাজ করেন তিনি বারবার মনিটর করেন। কারণ ভুল হলে কন্ট্রোলার হিসেবে আমাকেই জবাবদিহিতা করতে হবে। কম্পিউটার যদি কোন ভুল করে থাকে আমরা পুনঃনিরীক্ষণ করলে ভুলটা অবশ্যই বেরিয়ে আসবে।’

এ বিষয়ে আখাউড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শওকত আকবর খান জানান, ‘ফলাফলের এমন অবস্থার কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আগামী ১৭ মে একটি সভা আহবান করা হবে। সেখানে উপজেলার সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধানরা উপস্থিত থাকবেন। তাছাড়া প্রতি শিক্ষার্থী আলাদা আলাদাভাবে রিভিউ আবেদন করতে হবে। পরে বোর্ড এগুলো যাচাই করবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here