কুষ্ঠরোগ কোন ছোয়াচে নয় চিকিৎসার মাধ্যমে খুব দ্রুত সুস্থ্য হওয়া সম্ভব

0
349

কুষ্ঠরোগ বিষয়ক সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন

বিশেষ প্রতিনিধি: কুষ্ঠ কোন ছোয়াচে নয়। এ রোগে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ্য হওয়া সম্ভব। কুষ্ঠ একটি জীবানু দ্ধারা হয়। নরওয়ের চিকিৎসা বিজ্ঞানী ডাঃ আর্মার হ্যানসেন সর্বপ্রথম ১৮৭৩ সালে কুষ্ঠরোগের জীবানু আবিস্কার করেন এবং প্রমান করেন যে.অতি ক্ষুদ্র একটি ব্যাকটেরিয়া এই রোগের জন্য দায়ী। তখন তার নামানুসারে কুষ্ঠরোগকে হ্যানসেন ডিজি বলা হতো। পরবর্তীতে এই জীবানুর নামকরন করা হয় মাইকো ব্যাকটেরিয়াম লেপ্রী নামে। জীবানু আবিস্কার হলেও জীবানুর বংশ বৃদ্ধি ঘটিয়ে (কৃত্রিম উপায়ে) তারপর পরীক্ষা নিরীক্ষা করা সম্ভব হচ্ছিল না। কারণ কৃত্রিম উপায়ে কুষ্ঠরোগের বংশবৃদ্ধি ঘটানো ১৯৬০ সাল পর্যন্ত অসম্ভবই ছিল। যার ফলে কুষ্ঠরোগের জন্য কার্য্যকরী ঔষধ ও চালু করা সম্ভব হচ্ছিল না।
বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টায় প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে দি লেপ্রসি মিশন ইন্টারন্যাশনাল- বাংলাদেশ (টিএলএমআই-বি) সহযোগিতায় বাঁচতে শেখার আয়োজনে  সাংবাদিকবৃন্দের সাথে লেপ্রসি/কুষ্ঠ রোগ বিষয়ক ওরিয়েন্টেশনে লেপ্রসি মিশন ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিএলএমআই-বি)সিনিয়র কর্মকর্তা খালেকুজ্জামান, প্রোগ্রাম ফোকাল বিদ্যুৎ কুমার পাল  এ কথা বলেন। তারা আরো বলেন, ১৯৬০ সাল হতে-একজন আমেরিকান চিকিৎসা বিজ্ঞানী ডাঃ শেফার্ড সর্বপ্রথম ইঁদুরের পায়ের তালুতে কৃত্রিম উপায়ে কুষ্ঠরোগের জীবানু অর্থাৎ মাইকো ব্যাকটেরিয়াম লেপ্রী এর বংশবৃদ্ধি ঘটাতে সক্ষম হন। তার এই আবিস্কার কুষ্ঠরোগের চিকিৎসা ক্ষেত্রে যুগান্তকারী উন্নয়ন ঘটাতে সক্ষম হয়। বিভিন্ন এ্যান্টিবাইয়োটিকের কুষ্ঠরোগের উপর কার্যকারীতা পরীক্ষার বিশাল এক দ্বার উন্মোচন করে এবং কুষ্ঠারোগের উপর বিভিন্ন রকম গবেষনার ক্ষে প্রস্তুত হতে সাহায্য করে। দৈনিক সংবাদের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার রোকনুদ্দৌলার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।  খালেকুজ্জামান  বলেন, জাতীয় কুষ্ঠ উচ্ছেদ কর্মসূচীর আওতায়  ১৯৯৮ সালে কুষ্ঠরোগ মুক্ত ঘোষনা করেন সরকার। তার পর  সরকারের হিসাব অনুযায়ী ২০১৫ সালে খুলনা বিভাগে ৯১ জন,১৬ সালে তার বেড়ে দাঁড়ায় ১৩৩ জন। বাঁচতে শেখার আয়োজনে খুলনা বিভাগের মেহেরপুর,কুষ্টিয়া খুলনা জেলায় কুষ্ঠরোগের উপর কাজ করে যাচ্ছেন। খুলনা বিভাগে কুষ্ঠ রোগীর সংখ্যা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ রোগে আতংকের কোন কারণ নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here