কূ-সংস্কার ঘিরে ধরেছে তালার রহমত আলীর পরিবারকে : কথিত ৭জন জ্বীন রোগীর চিকিৎসা এখনও চলছে ঝাঁড়ফুকে

0
415

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উদ্ধার চেষ্টা সফল হয়নি

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা (সাতক্ষীরা) : তালার প্রসাদপুর গ্রামের রহমত আলী বিশ্বাস’র গোটা পরিবার সহ এলাকার লোকেরা কূ-সংস্কারে আবদ্ধ হয়ে পড়েছে। কাকতালীয়ভাবে গোটা এলাকার আবোল-বৃদ্ধ সহ সর্বস্তরের জনতাকে অক্টোপাসের মত আষ্টে-পিষ্ঠে ঘিরে ধরেছে তাবিজ-কবজ এবং জ্বীন-ভূত কাহিনীর কূ-সংস্কার।
তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হোসেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কুদরত-ই-খুদা এবং তালা থানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমান’র উদ্ধার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় ৫দিন ধরে কথিত জ্বীন রোগীদের চিকিৎসা হচ্ছে তাবিজ-কবজ এবং ঝাঁড়ফুকের মাধ্যমে। যেকারনে রহমত আলী বিশ্বাসের পরিবারের সদস্য কথিত জ্বীনে ধরা ৭ রোগীর মধ্যে ৪জন রোগীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে।
বুধবার সকাল ৯টার দিকে রহমত আলী বিশ্বাসের বাড়িতে যেয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন এলাকা থেকে আগের মত এখনও উৎসুক জনতা কথিত জ্বীন রোগে আক্রান্তদের দেখার জন্য ভিড় করছে। তবে ভিড় ঠেকাতে রহমতের বাড়ির গেট কাঠ দিয়ে উঁচু করে ঘিরে তার উপর দেয়া হয়েছে পাটের বস্তার বড় একটি পর্দা। এসময় বাড়ির মধ্যে যেয়ে দেখা যায়, রহমত বিশ্বাসের পরিবারের মানষিক ভাবে অসুস্থ্য ৭জন রোগীর মধ্যে গোফুর বিশ্বাস (১৬) হালিম বিশ্বাস (২৮) এবং ফরিদা বেগম (৩৫) ও তাঁর মেয়ে আয়েশা (৫)কে ঘরের মধ্যে আটকিয়ে রাখা হয়েছে। আর তাদের অপর ভাই সবুর বিশ্বাস (২৫) এর পায়ে শিকল পরিয়ে জানালার গ্রীলের সাথে বেঁধে রাখা হয়েছে। তবে শিশু আয়েশা এখন আগের চেয়ে সুস্থ্য হলেও তাকে তাঁর মায়ের কাছে রাখা হয়েছে। এছাড়া সালেহা খাতুন এবং মেহেদী হাসান আগের চেয়ে বেশি সুস্থ্য হওয়ায় তারা বাড়িতে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর গ্রামের লোক এসে বন্ধী রোগীদের জোর করে ভাত, কলা ও সাবু খাওয়াচ্ছে। প্রতিবেশী মোসলেম বিশ্বাস জানান, “বাড়ির পাশে এতোগুলো লোক পাগল হয়ে গেছে। বিবেকের তাড়নায় আমরা মাঠের কাজ-কাম ছেড়ে দিয়ে সারাদিন পাগলদের দেখাশুনা করছি।”
এদিকে, মানষিক রোগে আক্রান্ত কথিত জ্বীন রোগীদের এখনও কোনও বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছ থেকে আধুনিক চিকিৎসা নিতে দেয়নি তাদের পরিবারের সদস্যরা সহ এলাকার লোকজন। গত শনিবার থেকে অদ্য ৫দিন ধরে বিভিন্ন ওঁঝা-কবিরাজের মাধ্যমে ঝাঁড়ফুক দিয়ে সোনাতনী পন্থায় চলছে তাদের চিকিৎসা। রোগীদের পরিবার এবং প্রতিবেশীদের বিশ্বাস- কুফরী কালাম এবং জ্বীনের প্রভাবে রহমত আলীর ৩ ছেলে, ২ মেয়ে এবং ২জন নাতী ও নাতনী পাগল হয়ে গেছে। তাদের চিকিৎসার জন্য ডাক্তার দেখালে তারা আরো বেশি পাগল হয়ে মারা যেতে পারে। যে কারনে বিভিন্ন এলাকার ওঁঝা-কবিরাজ দিয়ে ঝাঁড়ফুকের চিকিৎসা করানো হচ্ছে। এবিষয়ে রহমত বিশ্বাস, তার স্ত্রী নবীজান বেগম এবং ছেলে হায়দার বিশ্বাস আগের মত জানান, মূলত তাদের বোন ফরিদাকে শশুর বাড়ির লোকজন কুফরী জাদু করে জ্বীনের মাধ্যমে পাগল করে দিয়েছে। আর এখন এই বাড়ির প্রায় সকলে একে একে পাগল হয়ে যাচ্ছে। রহমতের প্রতিবেশী সুফিয়ান শেখ, রহিমা বেগম, হাফেজ মো. ইউছুফ ও খাইরুল বিশ্বাস সহ একাধিক ব্যক্তি জানান, রহমত আলী বিশ্বাসের ছেলে, মেয়ে এবং নাতী-নাতনীরা কুফরী জাদু ও জ্বীনের কারনে পাগল হয়ে গেছে। আর বাড়ির অন্য সদস্যরা যাতে পাগল না হয় সেজন্য সকলের জন্য তাবিজ করা হয়েছে। এছাড়া ফরিদার স্বামী-শশুরদের করা কুফরী জাদু নষ্ট করার জন্য ৩দিন আগে এলাকা থেকে কাছেদ বিশ্বাস, আতিয়ার বিশ্বাস এবং রাবেয়া বেগম ঝিনেদাহ’র বুয়াভাটরা গ্রামে গেছে বলেও তারা জানান।
যুবলীগ নেতা মাসুদ বিশ্বাস জানান, রহমত আলীর জ্বীনে ধরা ছেলে ও মেয়েদের চিকিৎসার জন্য সোমবার সন্ধ্যায় একটি পিক-আপে করে বেঁধে যশোরের নওয়াপাড়া পীর সাহেবের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তদ্বীর করে কোনও উপকার না হওয়ায় মঙ্গলবার পাগলদের মিকশিমিল আমুরডাগা গ্রামে এবং পরে ডুমুরিয়ার নির্মল হাড়ি নামের দুই ওঁঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানেও কোনও উপকার না হওয়া আজ (বুধবার) কেশবপুর এলাকা থেকে আরো ২জন ওঁঝাকে বাড়ি আনা হচ্ছে। অসুস্থ্যদের পিতা রহমত আলী ও মাতা নবীজান জানালেন, এসব ওঁঝা কবিরাজ দিয়ে এবার তারা ভাল না হলে কাল (বৃহস্পতিবার) কোন ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাবো। এদিকে অসুস্থ্যদের দেখতে আসা যুবলীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম খাঁ ও জাহিদ বিশ্বাস সহ একাধিক ব্যক্তি বললেন সেই কল্পকাহিনী। তাঁরা বলেন, আমরা বিভিন্ন কবিরাজের কাছে ভারন দিয়েছি। সকল কবিরাজরা বলেছে, ফরিদা যে স্বর্নের মূর্তী পেয়েছিল তা বিক্রি করার অর্ধেক টাকা মসজিদ এবং মন্দিরে দান করলেই সকলে ভাল হয়ে যাবে। তবে, অন্য কয়েকজন বললেন ভিন্ন কথা। এই উৎসুকদের বক্তব্য, ফরিদা স্বর্নের যে মূর্তী পেয়েছিল তা বিক্রি করার জন্য এক ব্যক্তির কাছে দিয়েছিল। কিন্তু সেই ব্যক্তি স্বর্নের মূর্তীটি বিক্রি করে সব টাকা আত্মসাৎ করেছে। এই শোকে ফরিদা সহ বাড়ির সকলে পাগল হয়ে যাচ্ছে।
এঘটনায় তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হেসেন বলেন, সোমবার দুপুরে খবর পেয়ে তৎক্ষানত তালা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কুদরত-ই-খুদা এবং তালা থানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমানকে সাথে নিয়ে রহমত আলীর বাড়িতে যায়। আমরা ২ ঘন্টা চেষ্টা করেও মানষিক ভাবে অসুস্থ্যদের চিকিৎসা দিতে পারিনি। ঘটনাটি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এবং সিভিল সার্জনকে অবহিত করা হয়েছে। তিনি আরো জনান, মানষিক ভারসাম্যহীনদের বিষয়ে সব সময় খোজ-খবর রাখা হচ্ছে এবং সুস্থ্য না হলে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. কুদরত-ই-খোদা বলেন, জোর করে কোনও ব্যক্তিকে চিকিৎসা দেবার নিয়ম না থাকায় সোমবার তাদের চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয়নি। তিনি জানান, কোনও কারনে মারাত্মক মানষিক আঘাত পেয়ে তারা মানষিক রোগীতে পরিনত হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় খাবার, ঘুম এবং চিকিৎসা পেলে সকলে সুস্থ্য হয়ে যাবে। তালা থানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমান জানান, ওই সকল রোগীদের উদ্ধার করে আনার চেষ্টা করি। কিন্তু রহমত আলীর পরিবার এতোটায় কূ-সংস্কারাচ্ছন্ন যে, তারা ঝাঁড়ফুক দিয়ে চিকিৎসা নিতে চায়। তবে তাদের বিষয়ে খোজ-খবর রাখা হচ্ছে। ওসি আরো জানান, অপরাধ সংক্রান্ত ঘটনায় তারা মানষিক ভাবে অসুস্থ্য হয়েছে- এমন কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here