কৃষকদের আরও সহায়তা দিন

0
276

বাংলাদেশে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের জন্য নির্ধারিত অনেক লক্ষ্যমাত্রা অপূর্ণ থাকে। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে মিলেছে একটি সুখবর- গত অর্থবছরে (২০১৬-১৭) কৃষিঋণ বিতরণ হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ২০ শতাংশ বেশি। এ জন্য সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংক ধন্যবাদ পাবে। শুক্রবার সমকালে ‘লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২০ শতাংশ বেশি কৃষিঋণ বিতরণ’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্যাংকগুলোর হাতে থাকা বিপুল উদ্বৃত্ত থেকে যেমন কৃষকরা ঋণ পেয়েছে, তেমনি বাংলাদেশ ব্যাংকেরও কড়াকড়ি ছিল। ওই বছরে সরকার নিয়ন্ত্রিত ব্যাংকগুলো লক্ষ্যমাত্রা ৯ হাজার ২৯০ কোটি টাকার পরিবর্তে বিতরণ করেছে ৯ হাজার ৬৯৮ কোটি টাকা। বেসরকারি ও বিদেশি ব্যাংকগুলো ৮ হাজার ২৬০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে বিতরণ করেছে ১১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। সব ধরনের ব্যাংক লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় তিন হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা বেশি বিতরণ করেছে। সব মিলিয়ে বিতরণ হয়েছে ২০ হাজার ৯৯৯ কোটি টাকা। মোট দেশজ উৎপাদনে শিল্প, বাণিজ্য ও সেবা খাতের তুলনায় পেছনে থাকলেও কৃষি আমাদের অতীব গুরুত্বপূর্ণ খাত। এ খাত বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে। কর্মসংস্থানের প্রধান খাতও কৃষি। বর্তমান সরকার কৃষিবান্ধব হিসেবে পরিচিত। কৃষি খাতে ঋণের সুদের হার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ, যা অর্থনীতির অন্যান্য খাতের তুলনায় কম। কৃষিঋণ বিতরণের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে প্রভিশন খাতেও ছাড় দিচ্ছে। এসব ভালো পদক্ষেপ। তবে অর্থনীতিতে কৃষির গুরুত্ব ও অবদান এবং সম্ভাবনার কারণে কৃষি খাতে ঋণের পরিমাণ বাড়ানো এবং সুদের হার কমানো প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। আমাদের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ উদ্বেগজনক। কিন্তু শিল্প-বাণিজ্য-সেবা খাতের উদ্যোক্তাদের তুলনায় কৃষকরা ঋণ পরিশোধে বেশি আন্তরিক। এ খাতে ঋণের পরিমাণ বাড়ানো হলে কেবল কৃষকদের সুবিধা হবে না, অর্থনীতির অন্যান্য খাতেও ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। বাংলাদেশ ব্যাংক চলতি বছরে কৃষি খাতে বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ১৯ হাজার ৮৫৬ কোটি টাকা, যা গত অর্থবছরে মোট বিতরণের তুলনায় এক হাজার ১৪৩ কোটি টাকা কম। কেন এমন পেছনে হাঁটা, কেন্দ্রীয় ব্যাংক সেটা বিবেচনা করে নতুন বর্ধিত লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করবে, এটাই কাম্য। ফারমার্স ব্যাংক নামের প্রতিষ্ঠানটি কেন গত বছরে লক্ষ্যমাত্রার তিন ভাগের এক ভাগ ঋণও বিতরণ করেনি, তারও তদন্ত দরকার। কৃষিঋণ বিতরণ ও আদায়ে যেসব অনিয়ম রয়েছে, সে জন্যও দায়ীদের জবাবদিহি ও প্রয়োজনে শাস্তি দিতে হবে। শুধু ঋণ বিতরণ নয়, কৃষকদের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করাসহ বহুবিধ সহায়তা প্রয়োজন এবং সরকার সেদিকে নজর দেবে বলে আমাদের প্রত্যাশা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here