কৃষক আলী হোসেনের দেশীয় পদ্ধতিতে আলু সংরক্ষণ

0
571

এম আর মাসুদ : জাতীয় পুরষ্কার প্রাপ্ত কৃষক আলী হোসেন এবারও দেশীয় পদ্ধতিতে আলু সংরক্ষণ করেছেন। এতে তার হিমাগার খরচ যেমন সাশ্রয় হয়েছে দুই লক্ষ টাকা, তেমনি আলু গুণগত মানে ঠিক থাকায় এর চাহিদা বেড়েছে বাজারে। আলী হোসেন ২০১৬ সালে নিরাপদ (বিষমুক্ত) সবজি উৎপাদনে জাতীয় পর্যায় ২য় স্থান অধিকার করায় কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে ক্রেস ও নগদ অর্থ পেয়েছিলেন। আলী হোসেন যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ইউনিয়নের বোধখানা গ্রামের মৃত রহমত আলী মোড়লের ছেলে। এলাকাবাসির কাছে তিনি একজন আদর্শ কৃষক হিসাবে পরিচিত।

আলী হোসেন এবছর দেশীয় পদ্ধতিতে সাড়ে ১৩’শ মন আলী সংরক্ষণ করেছেন। বসত ঘরের পাশে তিনি এই দেশীয় পদ্ধতি হিমাগার তৈরি করেছেন। আলু রাখার জন্য ৬টি ঘর করেছে। প্রতিটি ঘর ১২ ফুট লম্বা, ৮ ফুট চওড়া ও ৭ ফুট উঁচু। গোল পাতার ছাউনি। মাটির এক ফুট উপরে বাঁশের মাঁচা করা চারপাশে বাঁশের বেড়ার সাথে জাল দিয়ে ঘেরা। প্রতিটি ঘরের উপরে ঝুলছে একটি করে বৈদুতিক পাখা। আলী হোসেন সর্বদা খেয়াল রাখের তার এই দেশীয় হিমাগারের দিকে। চোখে চোখে রাখেন কোনো কীটপতঙ্গ আক্রমণ করছে কি না। তিনি এ বছর দিয়ে এই পদ্ধতিতে ৩বার আলু সংরক্ষণ করলেন। গত ৩ বছর আগে তার এই ছয়টি ঘর তৈরি করতে মোট খরচ হয়েছিল প্রায় ৯০ হাজার টাকা। এই ঘর আগামী ৫ বছর ধরে চলবে। আলী হোসেনের হিসাবমতে তার এই সাড়ে ১৩’শ মন আলু হিমাগারে রাখলে ভাড়া দিতে হত এক লক্ষ ৯৮ হাজার টাকা। অথচ মাস তিনেক রেখে এই আলু বাজারে বিক্রি করলে এর লাভ হবে ২ লক্ষ ৩০-৪০ হাজার টাকা। তার পরও বস্তা, প্যাকেজিং, বহন খরচও তো আছে। এসব খরচ গুলো দেশীয় পদ্ধতিতে রাখলে লাগেনা। ফলে লাভ একটু বেশি পাওয়া যায়। তাছাড়া আলুর গুণগত মানও থাকে অক্ষুন্ন। আলী হোসেনের রাখা এই সাড়ে ১৩’শ মন আলু সবই তার নিজের খেতের। গত মাস খানেক আগে তিনি এই আলু সংরক্ষন করেছেন। আগামী রমজান মাসে তা বিক্রি করবেন। আলী হোসেন ৩৫-৪০ বিঘা জমিতে নানা ফসলের চাষ করেন। তিনি অধিকাংশ চাষে কেঁচো কম্পোস্টের জৈব সার, সেক্স ফেরেমন ফাঁদ, বদৌ মিকচার, জৈব বালাইনাশক ব্যবহার করেন। তিনি রাসায়নিক সার ও কীটনাশক কম ব্যবহার করেন। আইয়ুব হোসেন নামে উপসহকারি এক কৃষি কর্মকর্তা তার এই সমস্ত কাজের উৎসাহ উদ্দীপনা যোগান বলে তিনি দাবী করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here