কেঁচো কম্পোস্ট সার ও বিষমুক্ত সবজীর কারিগর ।। ঝিকরগাছার আনোয়ারা

0
851

এম আর মাসুদ, ঝিকরগাছা : সংসার, সমাজ, রাষ্ট্রে যা কিছু কল্যাণকর তার অর্ধেক নারীর অবদানের কথা কবি, সাহিত্যিক, মণিষীরা বললেও সমাজ, রাষ্ট্রে এমন অনেক নারী আছেন যারা কল্যাণের অর্ধেক নয় সবটুকু করেছেন। নারীর এই কর্মদক্ষ যেমন সংসার, সমাজকে করেছে গতিশীল তেমন সংসার নামক যন্ত্রে এসেছে স্বচ্ছলতা। এসব নারীরা দুঃখ জয়ের পাশাপাশি সমাজ, রাষ্ট্রে অনুকরণীয়, অনন্য দৃষ্টান্ত। নারীর এহেন কর্মদক্ষতায় জাগতিক জীবনে একদিকে যেমন সুখ, স্বচ্ছলতা এসেছে, অন্যদিকে সমাজে আর দশজন নারী অনুপ্রাণিত হচ্ছে।

এমন একজন নারীর নাম আনোয়ারা বেগম (৪৭)। আজ থেকে ২৭/২৮ বছর আগে যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ইউনিয়নের বারবাকপুর গ্রামের আব্দুল খাঁর সাথে শরিয়া মোতাবেক বিয়ে হয়। স্বামী একজন কৃষক। বিয়ের পর থেকে আনোয়ারা সংসার জীবনে ছিল অত্যন্ত মনোযোগী। গৃহস্থলির পাশাপাশি স্বামীর সকল কাজে সহযোগিতা করত। ব্যক্তিগত জীবনে আনোয়ারা দুই পুত্র সন্তানের জননী। বড় ছেলে সাদ্দাম হোসেন যশোর পলিটেকনিক্যাল কলেজ থেকে ডিপ্লোমা ইন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করে ঢাকা ডেভোডিল ইউনিভার্সিটিতে বিএসসি করছে। ছোট ছেলে শরিফুল ইসলাম বাংলাদেশ টেকনিক্যাল কলেজে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করেছেন। ২০১৪ সালে আনোয়ারা বাড়ির আঙ্গিনায় সবজী চাষের উপর এসসিডিপির ট্রেনিং করার পর তার জীবন চক্র অনেকটায় পাল্টে যায়। বাড়ির আঙ্গিনায় বেড করে বিষমুক্ত সবজী উৎপাদন, গবাদীপশু ও হাঁস-মুরগী পালনসহ কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) ও চালা কম্পোস্টের মাধ্যমে সার উৎপাদন করে আর্থিক ভাবে লাভবান হচ্ছেন। আনোয়ারা বেগমের এই কৃষিবান্ধব অর্থনৈতিক কর্মকান্ড দেখে এলাকার অনেক নারী উর্দ্বুদ্ধ হয়েছেন। তার বসত ভিটার এক ইঞ্চি জমিও পতিত নয়। বিঘা খানেক বসত ভিটায় আনোয়ারা পরিকল্পিতভাবে বিষমুক্ত সবজী উৎপাদন করছেন। যার মধ্যে ৮ টি বেড তৈরি করে চাষ করছেন বেগুন, গিমা কুমড়া, সবুজ শাক, মরিচ, ওল, শশা, করলা ও মৌসুমী সবজী শিম, চিচিঙ্গা ইত্যাদি। ৩ টি মাচা করে লাউ, পুইশাক, মিষ্টি কুমড়া, মেটে কুমড়া, মিষ্টি করলা ও বাড়ির চারপাশের বেড়ায় মিঠা পুল্লা ও ঝিঞে লাগিয়েছেন। অফলা গাছ চাল কুমড়া এবং মিষ্টি কুমড়ার লতা ও ফলে ভরে থাকে সারা বছর। টিউবওয়েলের পানি গড়ানোর নিচু জায়গায় লতিকচুর চাষ। ছায়াযুক্ত জায়গায় ঘ্যাটকোল, মানকচু ও আদার সবুজ পাতায় নজর কাড়া নয়নাভিরাম দৃশ্য। আনোয়ারার বসত ভিটায় রয়েছে সব ধরনের ফলের গাছ। যার মধ্যে আম, জাম, জামরুল, লিচু, বেল, সফেদা, বরই, বাতাবী লেবু, জাম্বুরা, সজিনা, কমলা, মাল্টা, আনারস, কাঁঠাল, নারিকেল, কামরাঙ্গা, জলপাই, পেঁয়ারা, পেঁপে, কলা, ডুমুর, সুপারী ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। আনোয়ারার জানান, তার স্বামীর ৭ বিঘা আবাদযোগ্য জমি রয়েছে। এসব জমিতে তারা স্বল্পমাত্রায় রাসায়নিক সার ব্যবহার করলেও মূলত গুটি ইউরিয়া সার ও তার নিজের উৎপাদিত কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) এবং চালা কম্পোস্টের সার ব্যবহার করেন। কীটপতঙ্গ ও বালাইনাশক হিসেবে কীটনাশকের পরিবর্তে মেহগনীর তেল, খৈল,ভাটির পাতা, তুলসীপাতা, নিমের পাতা, ঢোলকলমী, বাশকের পাতা, নিম ও পাটের বীজ ইত্যাদি জৈব ভেষজের নির্যাস থেকে রোগবালাই প্রতিষেধক নিজেরা তৈরী করে ফসলে প্রয়োগ করেন। এতে অনেক সুফল পাওয়া গেছে। আনোয়ারা আরো জানান, তাদের উৎপাদিত তরিতরকারী যেমন টাটকা তেমনী খেতে সুস্বাদু ও পুষ্টিকর। সেকারণে সচেতন ক্রেতারা আমাদের বিষমুক্ত সবজী বাড়ি থেকে কিনে নিয়ে যায়। আনোয়ারা বেগম গবাদীপশু, হাঁসমুরগীর ও কবুতরের পাশাপাশি বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বর্ধনশীল জাতের ক্যাম্বেল হাঁস পালন করেন। তবে আনোয়ারার বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনের পাশাপাশি কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) সার কারখানায় মাসিক আয় বেশি হচ্ছে। তাঁর কারখানায় প্রতি নান্দায় প্রতি মাসে তৈরি হচ্ছে ১০-১২ কেজি জৈব সার। আনোয়ারার কারখানায় নান্দা রয়েছে ১০৪টি। নিজের সংসারে খরচ যোগানোর পাশাপাশি ছেলেদের লেখাপড়ায় আর্থিক যোগান দেয় সে।

এক বছর আগে ১০০ গ্রাম কেঁচো দিয়ে দুইটি নান্দায় দুই ঝুড়ি গোবর সার দিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছিল আনোয়ারার কেঁচো কম্পোস্ট সার তৈরি। তার দেখে অনেকেই আবার নিজেই এই কেঁচো কম্পোস্ট সার তৈরিতে ঝুঁকেছেন। ২০১৬ সালের প্রথম দিকে ওই এলাকার ব্লকের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আইয়ুব হোসেন দেড়শ টাকা দিয়ে ১০০ গ্রাম কেঁচো কিনে দিয়েছিল। দুইটি নান্দা কিনে সেই কেঁচো দিয়ে দুই ঝুড়ি গোবরের মাধ্যমে জৈব সার তৈরি শুরু করেছিল আনোয়ারা বেগম। তা থেকে প্রথম বছরে যে সার তৈরি হয়েছিল সেটা তার স্বামী আব্দুল খাঁ জমিতে ব্যবহার করেছিলেন। সে ১০০ গ্রাম কেঁচো থেকে বর্তমান আনোয়ারার ১০৪ টি নান্দায় কেঁেচা রয়েছে ১২-১৫ কেজি। এক কেজি কেঁচোর দাম ১৫০০/- টাকা। আনোয়ারা এ বছর কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) সার তৈরির জন্য একটি চালা (সেড) তৈরি করেছেন। সে জানিয়েছেন ১০৪ টি নান্দার জন্য চালা তৈরি, মাঁচা, বেড়া ও ছাউনী ঘেরা দিয়ে মোট খরচ হয়েছে ১৩-১৪ হাজার টাকা। আনোয়ারার সংসারে ২ টি গরু আছে। ফলে তাকে গোবর কেনা লাগে না। প্রতিটি নান্দায় ২০০ গ্রাম কেঁচো আর এক ঝুড়ি গোবর দিলে তা থেকে ১৫-২৫ দিনের মাথায় ১২-১৩ কেজি জৈব সার পাওয়া যায়। এক কেজি জৈব সারের দাম ১৫/-। পাশপাশি প্রতি নান্দা থেকে ২-৩ মাস অন্তর ৫০০ গ্রাম থেকে এক কেজি করে কেঁচো বিক্রি করা যায়। আনোয়ারার কেঁচো কম্পোস্ট সার তৈরিতে এলাকাতে এই সারের কদর বেড়ে গেছে। প্রতিমাসে তার আয় ১০-১২ হাজার টাকা। তার ছোট ছেলে শরিফুল ইসলাম জানিয়েছেন, মায়ের বিষমুক্ত সবজী উৎপাদনে তারা যেমন গর্বিত, তেমনি মায়ের কেঁচো কম্পোস্ট (ভার্মি কম্পোস্ট) সার তৈরিতে যে অতিরিক্ত অর্থ আয় হয় তা দিয়ে তাদের দুই ভাইয়ের লেখপড়ার খরচ যোগানো অনেকটায় সহজ হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here