কেচো খুড়তে গিয়ে সাপের সন্ধান পেলো যশোর ডিবি

0
129

একটি ভ্যান চোর চক্র ধরতে গিয়ে যশোরের বহুলালোচিত ভ্যান চালক ইদ্রিস আলী হত্যারহস্য উন্মোচিত করেছে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি। ঠিক যেন কেচো খুড়তে সাপের দেখা। খুনী ও ছিনতাইকারী চক্রের ৬ জনকে আটক করেছে। চোর চক্রটি ভ্যান চালককে অপহরণ, হত্যা ও আরো ভ্যান চুরির তথ্য দিয়েছে। উদ্ধার হয়েছে ৫টি চোরাই ভ্যান।
ওই চক্রের অন্য সদস্যদের আটকে অভিযান চলমান রয়েছে। আটককৃতরা হচ্ছে, কেশবপুরের কন্দপপুর গ্রামের তকোববার মোড়লের ছেলে নাজমুল ইসলাম ইমরান, দোনার গ্রামের আশরাফ আলী বিশ্বাসের ছেলে সোহেল রানা, মণিরামপুরের কাশিপুর মধ্যপাড়ার মৃত আকরাম সরদারের ছেলে সাহিদুল ইসলাম সাইদুর, আব্দুল কাদের সরদারের ছেলে রফিকুল ইসলাম, নড়াইলের রামচন্দ্রপুর পূর্বপাড়ার জয়নাল মোল্লার ছেলে আবতাব মোল্লা ও মণিরামপুরের তাহেরপুর গ্রামের মৃত মোমিন বিশ্বাসের ছেলে আব্দুর রশিদ।
ডিবি তথ্য দিয়েছে, গত ১ জানুয়ারি সকালে কেশবপুরের মঙ্গলকোট এলাকা থেকে ইদ্রিস আলী (১৪) নামের এক ব্যাটারি চালিত ভ্যান চালকের লাশ উদ্ধার করে কেশবপুর থানা পুলিশ। তিনি শ্রিফলা গ্রামের সাহাবুদ্দিনের ছেলে। ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর সকাল ৬ টায় ভ্যান চালক ইদ্রিস ভ্যান নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। সন্ধ্যার পর বাড়িতে না ফিরলে তার মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে মোবাইল ফোনটি বন্ধ পান পরিবারের লোকজন। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজিতেও সন্ধান মেলে না ইদ্রিস আলীর। পরের দিন ১ জানুয়ারি লাশ মেলে। মাথায় আঘাত করে কে বা কারা তাকে হত্যা করে ভ্যান, মোবাইল, টাকা ছিনতাই করে। এই সংক্রান্তে নিহতের বড় ভাই আব্দুল কুদ্দুস কেশবপুর থানার মামলা করেন, যার নাম্বার ২।
মামলার পর ঘটনাটি ক্লুলেস ও চাঞ্চল্যকর হওয়ায় মামলাটি ২৭ জানুয়ারি জেলা গোয়েন্দা শাখার উপর ন্যাস্ত করেন পুলিশ সুপার। এরপর ওসি ডিবি সোমেন দাশের নেতৃত্বে ডিবির একটি চৌকশ টিম ৫ মার্চ মণিরামপুরের কাশিমনগরে চোরাই ভ্যান বেচাকেনার সময় ১ জনকে চোরাই ভ্যান ও সরঞ্জামসহ হাতেনাতে আটক করেন। এ সংক্রান্তে মণিরামপুর থানায় পৃথক একটি মামলা হয়। ওই ঘটনায় পলাতক মণিরামপুরের সোহেল রানা ও কেশবপুরের নাজমুল ইসলাম ওরফে ইমরান নামের ভ্যান চোরের সন্ধানে নামে ডিবি পুলিশ। একপর্যায়ে ১৭ মার্চ দুপুরে চাঁচড়া চেকপোস্ট এলাকা থেকে প্রধান চোর নাজমুল ইসলাম ওরফে ইমরান, সাহেলসহ ৩ জনকে আটক করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে যশোর ঘোপ বেলতলা ডিআইজি রোড থেকে আবতাব নামে একজনকে আটক করে। তার হেফাজত থেকে চোরাই ভ্যান ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। সংবাদ পেয়ে কেশবপুরের ইদ্রিস হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক কাজী মাসুম ও পুলিশ পরিদর্শক রুপন কুমার সরকার পিপিএম ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এক পর্যায়ে তারা কেশবপুরের ভ্যানচালক ইদ্রিস হত্যার ঘটনাসহ একাধিক ভ্যান চুরির ঘটনা স্বীকার করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে ধারাবাহিক অভিযানে মণিরামপুর তাহেরপুর থেকে রশিদ নামের আরো এজনকে আটক করা হয় ১৭ মার্চ বিকেল ৫ টায়। কেশবপুরের বাজিতপুরে হত্যা মামলার ছিনতাইকৃত ব্যাটারি চালিত ভ্যান গাড়িটিও উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। চোর নাজমুল ইসলাম ওরফে ইমরান হত্যা মামলার ঘটনাস্থলে গিয়ে হত্যা ও ছিনতাইয়ের বর্ণনা দেয়। এছাড়া কেশবপুরের ছোট পাথরা, পাঁজিয়া ও হদাগ্রামে ঘটনার আগে ও পরে একাধিক ভ্যান চুরির ঘটনার বর্ণনা দেয় তারা। ভুক্তভোগীদের বাড়ি সনাক্ত করে ডিবি পুলিশ। তাদের স্বীকারোক্তি মতে মণিরামপুরের কাশিপুর বাজারে রফিকুল ইসলামের অটো রিক্সা গ্যারেজ থেকে ২টি চোরাই ব্যাটারি চালিত ভ্যান ও সরঞ্জামাদি উদ্ধারসহ রফিকুল ইসলামকে আটক করে। একে একে ৬ জনকে আটক করা হয়। হত্যা মামলার ছিনতাইকৃত ব্যাটারি চালিত ভ্যানসহ ৫টি ভ্যান ও সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। চোরাই উদ্ধার সংক্রান্তে এসআই মফিজুল ইসলাম কোতোয়ালি মডেল থানায় এজাহার দিয়েছেন। কেশবপুরের ভ্যান চালক ইদ্রিস হত্যা মামলাতেও আটক করে তাদেরকে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হবে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ তথ্য পেয়েছে, ভ্যান ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ভ্যান চালক ইদ্রিস আলীকে ভাড়া করে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘটনাস্থলে নিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করে লাশ গুম করে ও ব্যবহৃত ভ্যান গাড়িটি নিয়ে চলে যায়।