কেন্দ্র থেকে কমিটি গঠন নিয়ে তৃণমূল নেতা কর্মীদের মাঝে ক্ষোভ

0
600

বিশেষ প্রতিনিধি : শীর্ষ সন্ত্রাসী,ছাত্রদলনেতা,অপরাধী ও বির্তকিতদের ঠাঁই মিলেছে যশোর যুবলীগের নয়া কমিটিতে। তাদের নিয়েই যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। সোমবার যশোর সদর ও শহর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি প্রকাশ হওয়ার পর শহরজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা ও চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে নেতাকর্মীদের মাঝেও দেখা দিয়েছে চরম ক্ষোভ। এরআগে বাঘারপাড়া ও অভয়নগর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি নিয়েও স্থানীয় পর্যায়ে পক্ষে-বিপক্ষে সভা সমাবেশ হয়েছে।
যুবলীগ সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, সোমবার যশোর শহর ও সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি প্রকাশ করা হয়েছে। ২১ মার্চ যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ স্বাক্ষরিত এ কমিটি যশোরে পৌঁছানোর পর নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভ শুরু হয়।
স্থানীয় নেতাকর্মীদের অভিযোগ, শহর যুবলীগের কমিটিতে আহ্বায়ক হয়েছেন মাহমুদুল হাসান মিলু। মিলু মাগুরা জেলার বাসিন্দা এবং ছাত্রলীগ-যুবলীগ কোনো পর্যায়ের কোনো কমিটিতেই তিনি কখনও ছিলেন না।
এ কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হয়েছেন যশোরের শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় থাকা মেহেবুব রহমান ম্যানসেল। পুলিশের তালিকাভুক্ত এ সন্ত্রাসীর নামে শহরের ষষ্ঠীতলাপাড়া ও রেলস্টেশন এলাকায় একটি গ্রুপ রয়েছে। তার নামে হত্যা, ডাকাতিসহ ডজ্জনখানেক মামলা রয়েছে। ডাকাতি প্রস্তুতিকালে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে একবার ম্যানসেল গুলিবিদ্ধও হয়েছিলো। এছাড়া তিনি ৬ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদেও রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ছাত্রদলের ওই কমিটির সভাপতি তানভীর আহমেদ জুয়েল। ম্যানসেলের পিতা আলমাস ওই ওয়ার্ড বিএনপির সহ সভাপতি।
এছাড়া,এ কমিটিতে থাকা সদস্য সামসুদ্দিন শিপন ইতোমধ্যে মারা গেছেন। তার বিরুদ্ধেও রয়েছে টালিখোলা এলাকার টুলু ও বাবু হত্যা মামলা। এই আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ঘোপ এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী সজলের বিরুদ্ধে পলাশ হত্যা মামলা এবং জেলা যুবলীগ যুগ্ম সম্পাদক কামাল হত্যা প্রচেষ্টা মামলা রয়েছে। কাজীপাড়া এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ ফেরদৌস হোসেন সমরাজও রয়েছেন এ কমিটিতে।
একইসাথে ঘোষিত সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক মাজাহার ব্যাংকার রেজাউল হত্যা মামলা এবং গিয়াস উদ্দিনকে হত্যা প্রচেষ্টা মামলার আসামি। আরেক যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদুজ্জামান শহীদ কয়েক বছর আগে এক ট্রাক ভারতীয় চোরাচালন পণ্যসহ আটক হয়েছিলেন। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে বালিয়া ভেকুটিয়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদেরকে হাতুড়িপেটার মামলা রয়েছে। বিভিন্ন ভাতা পাইয়ে দেয়ার কথা বলে তিনি হতদরিদ্রদের কাছ থেকে টাকা গ্রহণকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছেও একবার হাতেনাতে ধরা পড়েছিলেন।
ইতোপূর্বে অস্ত্র নিয়ে মহড়া দেয়ার সময় এই কমিটির সদস্য আসাদুজ্জামান নান্নু ওরফে কাঠ নান্নু’র ছবি বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল। আরেক সদস্য ইমরান খান ওরফে ছাপ্পান বিহারীর বিরুদ্ধে থানায় বেশ কয়েকটি মাদক মামলা রয়েছে। প্রায় এক মাস আগে ইয়াবাসহ আটক হওয়ার পর সপ্তাহখানেক আগে ছাপ্পান জেলখানা থেকে বের হয়েছেন। আরও দুই সদস্য মফিজুর রহমান ওরফে টুরে মফিজ ও টিপু সুলতান মুক্তিযোদ্ধা হাশেম আলীর বাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ মামলার আসামি। কমিটিতে এ ধরণের সন্ত্রাসী ও বিতর্কিতরা ঠাঁই পাওয়ায় স্থানীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
এ ব্যাপারে শহর যুবলীগের সভাপতি মোস্তফা কামাল পর্বত ও সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর আজিজুল ইসলাম বলেন, শীর্ষ সন্ত্রাসী ছাত্রদল নেতা ম্যানসেলসহ চাঁদাবাজ, সন্ত্রাস ও বিতর্কিতরা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটিতে ঠাঁই পেয়েছে। আর বঞ্চিত হয়েছেন রাজপথে নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে তৃণমূলে যেমন হতাশার সৃষ্টি হয়েছে, তেমনি এই কমিটি নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝেও বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
কেন্দ্র থেকে এ ধরণের কমিটি চাপিয়ে দেয়া প্রসঙ্গে সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ওয়াহেদুজ্জামান বাবলু বলেন, কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা ছিল ৩০ মার্চের মধ্যে উপজেলাগুলোর সম্মেলন করতে হবে। কিন্তু এরআগেই ২১ মার্চ তারিখ দিয়ে সদর ও শহর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি কেন্দ্র থেকে ঘোষণা করা হয়েছে। কেন্দ্র থেকে এভাবে কমিটি ঘোষণা করা অগণতান্ত্রিক ও গঠনতন্ত্র পরিপন্থি। তিনি এই কমিটি বাতিল করে উপজেলার কমিটির মাধ্যমে সম্মেলন করে পরবর্তী কমিটি গঠনের দাবি জানান।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু জানান, কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা যুবলীগ উপজেলা শাখাগুলোর সম্মেলন সম্পন্নের প্রস্তুতি নিয়েছিল। ১ এপ্রিল অভয়নগর, ৫ এপ্রিল বাঘারপাড়াসহ এরপর সদর ও শহর যুবলীগের সম্মেলন সম্পন্নের কথা ছিল। সবমিলিয়ে ৮/৯ এপ্রিলের মধ্যেই এই সম্মেলন সম্পন্নের প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু এরই মধ্যে কেন্দ্র থেকে ২১ মার্চ ও ২৯ মার্চ স্বাক্ষর করে ৪টি কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে জেলা কমিটির সঙ্গে কোনো ধরণের আলোচনা বা যোগাযোগ করা হয়নি। এ বিষয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানিয়েছেন জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু।
কেন্দ্র থেকে কমিটি ঘোষণা প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক আনিসুর রহমান জানান, যুবলীগের এসব কমিটি প্রায় ১৪ বছর ধরে রয়েছে। শাখাগুলোতে সম্মেলন করার জন্য বারবার নির্দেশনা দেয়া হলেও তারা তা বাস্তবায়ন করেননি। এ কারণে কেন্দ্র থেকে আহ্বায়ক কমিটি করে সম্মেলনের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আর এই কমিটি গঠনের জন্য নেত্রী মনোনীত জনপ্রতিনিধি এমপিদের পরামর্শ নেয়া হয়েছে। তাদের তালিকা অনুযায়ী কমিটি করা হয়েছে। #

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here