কেন এই আত্মঘাতী বোমা সন্ত্রাস?

0
222

মুহা. রুহুল আমীন : সাম্প্রতিক বিশ্বে সন্ত্রাস, মৃত্যু ও কান্না একটি নিয়ত-ঘটমান বিষয়ে পরিণত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপসহ পাশ্চাত্য এবং আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যসহ প্রাচ্যের প্রায় সর্বত্র প্রায়ই কোনো না কোনো সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটছে, মানুষ মরছে, বিশ্বব্যাপী কান্না উপচে পড়ছে। প্রতিটি মৃত্যু ও কান্নার পর বিশ্ববাসী কয়েকদিন শোকতাপ করছে, নেতারা হম্বি-তম্বি করছেন। ব্যস! অতটুকুই। বৈশ্বিক সন্ত্রাস দমন করে মৃত্যু ও কান্না থেকে বিশ্বকে রক্ষা করার যে একাডেমিক এক্সারসাইজ এবং সন্ত্রাস দমনের নীতি-কৌশল দরকার তা নিয়ে সম্ভবত মাথাব্যথা নেই কারো। প্রতিটি করুণ ঘটনার পর এ এক স্বাভাবিক চিত্র।

গত ২২ মে রাত সাড়ে ১০টা। যুক্তরাষ্ট্রের পপতারকা আরিয়ানা গ্রান্দের সংগীত পরিবেশনা শেষে ততক্ষণে স্টেজের আলো নিভিয়ে দেওয়া হয়েছে। যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার শহরের ঐ কনসার্ট হল থেকে ধীরে ধীরে দর্শকরা বের হওয়ার পথে। হঠাত্ বিকট শব্দ। ছিন্নভিন্ন হয়ে গেল সবকিছু। এ আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণে কমপক্ষে ২২ জন নিহত ও ৫৯ জন আহত হলো। ২০০৫ সালের পর সবচেয়ে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা ছিল এটা যুক্তরাজ্যে। ২০১৭ সালের ২২ মার্চ ওয়েস্টমিনিস্টার ব্রিজে এক ব্যক্তি পথচারীদের উপর গাড়ি চালিয়ে দেয় এবং পার্লামেন্ট ভবনের বাইরে এক পুলিশ কর্মকর্তাকে ছুরিকাঘাতে জখম করে। ২০১৬ সালের ২২ মার্চ ইইউ সদর দপ্তরের কাছে ব্রাসেলস বিমানবন্দর ও মায়েলবেক মেট্রোস্টেশনে আত্মঘাতী বোমা হামলায় বেলজিয়ামে ৩২ জন নিহত ও ২৩০ জন আহত হয়। ২০১৫ ও ২০১৬ সালে ফ্রান্সে কয়েকটি বড় ধরনের সন্ত্রাসী হামলায় প্রায় ২৩৮ জন নিহত হয়। খবরে প্রকাশ, আল-কায়েদার অনুগত দুভাই ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি প্যারিসের ব্যাঙ্গাত্মক সাময়িকী শার্লি এবদোর দপ্তরে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ১২ জনকে হত্যা করে। একই বছর ১৩ নভেম্বর ফ্রান্স ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার হয়। প্যারিসের বাটাক্লান কনসার্ট হল, কয়েকটি বার, রেস্টুরেন্ট, এবং স্তাদ দ্য ফ্রান্স স্টেডিয়ামে সন্ত্রাসী হামলায় ১৩০ জন নিহত হয়। প্রকাশিত খবর অনুযায়ী আইএস এর দায় স্বীকার করে। ২০১৬ সালের ১৪ জুলাই জাতীয় ছুটির দিনে নিসের মিডেটারনিয়ান রিসোর্টে এক ব্যক্তি জনতার উপর ট্রাক চালিয়ে দিয়ে ৮৬ জনকে হত্যা করে। এবারও আইএস এর দায় স্বীকার করে। ২০১৬ সালের ১৯ ডিসেম্বর এক ব্যক্তি ট্রাক ছিনতাই করে তা বার্লিনের ক্রিসমাস মার্কেটে এক দোকানের ভেতর চালিয়ে দেয়। এতে ১২ জন নিহত হয়। জার্মানীর এ সন্ত্রাসী ঘটনার দায়ও আইএস স্বীকার করে বলে মিডিয়ায় প্রকাশ করা হয়। তুরস্কে ২০১৫ এবং ২০১৭ সালে সংঘটিত সন্ত্রাসী হামলায় ১৪২ জন নিহত হয়। ২০১৫ সালের ১০ অক্টোবর আঙ্কারায় দুটি আত্মঘাতী হামলায় ১০৩ জন নিহত হয় এবং ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি রেইনা নাইট ক্লাবে বন্দুকধারীর হামলায় ৩৯ জন নিহত হয়। ইউরোপের ন্যায় যুক্তরাষ্ট্র ও পাশ্চাত্যের বেশ কয়েকটি দেশে সন্ত্রাসী ও আত্মঘাতী হামলায় অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটছে গত কয়েক বছর ধরে। গত ২৩ মে (২০১৭) এএফপি প্রচারিত তথ্য অনুযায়ী ইউরোপে গত দুবছরে সংঘটিত বিভিন্ন বিচ্ছিন্ন সন্ত্রাসী ঘটনায় এ পর্যন্ত প্রায় ৬৫৪ জন নিহত হয়েছে এবং ২৮৯ জন আহত হয়েছে।

ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রসহ পাশ্চাত্যের কোনো দেশে যখনি কোনো সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটেছে, তখনি বিশ্বব্যাপী শোক মূর্ছনা ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্বের মানুষ কেঁদেছে, ক্ষোভ প্রকাশ করেছে, শোক পালন করেছে এবং সন্ত্রাস দমনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছে। এ সমস্ত মর্মন্তুদ ঘটনার পাশাপাশি আফ্রো-এশীয় আরব দেশগুলোতেও যুদ্ধ, ধ্বংস ও মৃত্যুর আহাজারি চলছে। সিরিয়া, ইরাক, ইয়েমেন, আফগানিস্তানসহ মুসলিম অধ্যুষিত প্রাচ্যে প্রতিদিন হতাহতের ঘটনা ঘটছে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়াসহ পাশ্চাত্যের বৃহত্ শক্তিবর্গের পরিকল্পিত নীতি অনুযায়ী পরিচালিত স্থল ও বিমান হামলায় প্রতিদিন শত শত মানুষ নিহত-আহত হচ্ছে। হলিউডের হরর ফিল্মের দৃশ্যের মতো মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধরত দেশগুলোতে হিংস্র, বীভত্স ধ্বংস-চিত্র! রাসায়নিক গ্যাস, বোমার আঘাত, বন্দুকের গুলি ও উপর্যুপরি বিমান হামলায় সকল যন্ত্রণা সহ্য করেও ইরাক, ইয়েমেন, সিরিয়া ও আফগানিস্তানের যুদ্ধপীড়িত জনগণ মাতৃভূমির মাটি কামড়ে পড়ে থাকছে। তা-ও যখন সম্ভব হচ্ছে না তখন তারা ভূমধ্যসাগর, আরব সাগর পাড়ি দিয়ে— একটুখানি আশ্রয়ের জন্য অজানা মাটির সন্ধানে কাগজ ও প্লাস্টিকের ডিঙি নৌকায় ভর করে সাগরের অথৈ জলরাশির সলিল সমাধিতে চাপা পড়ছে। সাগর-জলে হারিয়ে যাওয়া মানুষগুলোর সংখ্যা কত? তা হিসাব করে দেখার কেউ তো নেই। অসহায় আরব মুসলিমদের দুঃখ-যাতনায় কাঁদারও কেউ নেই। বিশ্ববিবেক নিরব, নিস্পন্দন, নিষ্প্র্রভ, নির্লজ্জ, নিথর হয়ে মুখ থুবড়ে পড়েছে!

সাগরের অথৈ জলরাশি পাড়ি দিতে গিয়ে শিশু আইলানের বিভীষিকাময় মর্মন্তুদ মৃত্যু-স্মৃতি কি কারো স্মরণে আছে? লাল ঝকঝকে বেবি পোশাকে সজ্জিত শিশু আইলান সাগর বক্ষের নরম কাদা-বালু-মাটিতে উপুড় হয়ে হাত দুটি দিয়ে সাগর বক্ষকে এমনভাবে আলিঙ্গন করে চিরনিদ্রায় শুয়ে ছিল, যাতে মনে হয়েছে “ও” সাগর বক্ষকেই নিরপদ আশ্রয় হিসেবে সাগরের বুকে ঘুমিয়ে আছে চিরদিন। শিশু ওমরান ক্ষুব্ধ বিমানের আঘাতে জর্জরিত ভেঙে পড়া বিল্ডিংয়ের ধংসস্তূপের মধ্যে নিজের আহত রক্তাক্ত শরীরের দিকে নির্বাক নিস্পন্দন হয়ে কিভাবে তাকিয়ে ছিল, তা কি দেখেছে কেউ? বিশ্ব বিবেকের হূদয়ের গহীন বন্দরে কি এতটুকু ওর যাতনা স্ফুরিত বেদনার কাতর হয়েছে? আফ্রো-এশিয়ায় লক্ষ লক্ষ নির্যাতিত, নিষ্পেষিত, অবহেলিত শিশু-কিশোরের উপর যুদ্ধ-বিভীষিকার চাপিয়ে দেয়া দুঃখ, বেদনা ও যাতনার সরব সাক্ষী আইলান ও ওমরান।

বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত যুদ্ধ, দ্বন্দ্ব ও সন্ত্রাসের ইতি ঘটাতে হলে এর নেপথ্যের কারণ অনুসন্ধান করতে হবে নির্মোহ দৃষ্টিতে। এ জন্য প্রয়োজন বৈশ্বিক উদ্যোগের। প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের জনগণের প্রতিনিধি ও সুশীল সমাজকে সঙ্গে নিয়ে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানসমূহ বৈশ্বিক সংলাপের আয়োজন করতে পারে। বৈশ্বিক সন্ত্রাসের ভুক্তভোগী জনগণ, প্রান্তিক পর্যায়ের জনগণ যুদ্ধ-বিক্ষত জনগণ, তাদের নেতৃবৃন্দ, তাদের সকলের ভাগ্য নির্ধারক হিসেবে বিরাজিত বিশ্বশক্তিবর্গ তাদের সকলকে নিয়েই সেই বৈশ্বিক সংলাপের বৃহত্তর প্লাটফর্ম তৈরি করতে হবে। সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের বক্তব্য, কণ্ঠ, মতামত সংগ্রহ করে বিশ্বময় বিস্তৃত দ্বন্দ্ব-যুদ্ধ-সন্ত্রাসের কারণ ও নিষ্পত্তির জ্ঞান আহরণ করতে হবে। প্রাচ্যে সংঘটিত যুদ্ধ-দ্বন্দ্বের সঙ্গে পাশ্চাত্যে পরিচালিত বিচ্ছিন্ন আত্মঘাতী সন্ত্রাসী ঘটনাসমূহের যোগসূত্র আছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে হবে। আফ্রো-এশিয়ার লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যুতে পাশ্চাত্যের নীতিহারা এবং পাশ্চাত্যের বিচ্ছিন্ন সন্ত্রাসী ঘটনায় তার দিশেহারা হলে চলবে না। সমস্ত ঘটনায় প্রেক্ষিত ইতিবৃত্ত বর্তমান প্রবণতা এবং ভবিষ্যত্ শঙ্কা নিয়ে নিয়ত একাডেমিক এক্সারসাইজ ও গবেষণা করা খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে। বৈশ্বিক রাষ্ট্রনীতি প্রণয়ন এবং আন্তর্জাতিক সংগঠনের যুদ্ধ বিরোধী নীতি নির্ধারণের সুদূরপ্রসারী লক্ষ্যে সেই গবেষণা শানিত করতে হবে।

আন্তর্জাতিক সম্পর্কের সাম্প্রতিক ইতিহাসে প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং যুদ্ধ পরবর্তী সৃষ্ট আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার কাঠামোগত, প্রাতিষ্ঠানিক ও পদ্ধতিগত ত্রুটি-বিচ্যুতির জন্য বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ, দ্বন্দ্ব ও সন্ত্রাস সৃষ্টি হয়েছে বলে স্ট্রাকচারালিস্টগণের অনেক বিশ্লেষক মতামত দিয়েছেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর লিগ অব নেশনস হলেও পৃথিবীকে যুদ্ধ থেকে লিগ বিরত রাখতে পারেনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত দীর্ঘ ২০ বছরকে বিশ্লেষকগণ যুদ্ধবিরতি হিসেবে অভিহিত করেছেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাতিসংঘ ব্যবস্থা, বিশ্বব্যাংক ব্যবস্থা, বিশ্ববাণিজ্য ব্যবস্থা পৃথিবীর রাজনীতি ও অর্থনীতিকে দ্বন্দ্ব, যুদ্ধ ও সন্ত্রাস থেকে বিরত রাখতে ব্যর্থ হয়েছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তরকালে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ও মানব ইতিহাসের ধ্বংসদায়ী ঘটনা হলো যুক্তরাষ্ট্র এবং সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যকার স্নায়ুযুদ্ধ, যা বিশ্বসমাজ ও রাষ্ট্রগুলোকে অস্থির অস্থিতিশীলতার মাধ্যমে মৃত্যু গহ্বরে নিক্ষিপ্ত করেছে। পরাশক্তিদ্বয় তাদের স্ব-স্ব প্রভাব-বলয় গড়তে আফ্রো-এশিয়ার রাষ্ট্র ও জনগণকে ব্যবহার করেছে নগ্নভাবে। তাদের শাসনে শোষিত, খণ্ডিত হয়েছে বিশ্বের সকল জনপদ। নব-উপনিবেশবাদের করাল থাবায় ক্ষত-বিক্ষত হয়েছে বিশ্বের রাষ্ট্র, সমাজ ও সংস্কৃতি। স্নায়ুযুদ্ধ অবসানের পর গত শতাব্দীর শেষ ভাগে জেগে উঠা একক পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্র এবং ভেঙে পড়া পরাশক্তি সোভিয়েত ইউনিয়নের অপভ্রংশ রাশিয়ার দ্বিধান্বিত অমিততেজ বিশ্বের দ্বন্দ্ব-সংঘাত-সন্ত্রাসের নতুন মাত্রা ও বৈশিষ্ট্য ছড়িয়ে দিয়েছে। সোভিয়েতের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের গড়ে তোলা মুজাহিদ গোষ্ঠী ও তালেবানের সকল শক্তি সোভিয়েত উত্তর আফগানিস্তান থেকে আফ্রো-এশিয়ার মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে তাদের আদর্শ ও স্বপ্নের মডেলে অত্রাঞ্চলের রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজ বিনির্মাণের নতুন মডেল উপস্থাপিত করতে উদ্যত হলে তারা তাদের পুরাতন মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের রোষানলে পড়ে। এভাবে যুদ্ধ-দ্বন্দ্ব-সন্ত্রাস বিস্তৃত হতে থাকে যুক্তরাষ্ট্র ও বৈশ্বিক শাসন-শোষণ বিরোধী নতুন নতুন গ্রুপ আবির্ভূত হয় অত্রাঞ্চলে, যাদের কেউ আল-কায়েদা, আইএস, কেউ বোকো হারাম, কেউ আল শাবাব, কেউ আন নুসরা ইত্যাদি বিভিন্ন নামে পরিচিতি ও প্রসিদ্ধি লাভ করে। যুক্তরাষ্ট্র ও পাশ্চাত্যের তৈরি করা গোষ্ঠী এখন বহুমুখী জটিল আর্থ-সামাজিক রাজনীতিক মেনিফেস্টো ও অভীষ্ট নিয়ে পাশ্চাত্যের বিরুদ্ধে বহুমুখী সংঘাতে রত। শোষক ও শাসকের বিরুদ্ধে পরিচালিত এ সংগ্রামের বহ্নিশিখাকে কি এক ফুত্কারে নিভিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে?

আরব বসন্তের ঝিরিঝিরি হাওয়া যেমন বইতে শুরু করেছিল তাকে স্বাভাবিক গতিতে বয়ে যেতে দেওয়া উচিত ছিল। কিন্তু সেই বাসন্তী-বাঁক পরিবর্তন করা হলো, আরব বসন্তের শুভ সন্ধিক্ষণে চৈতের দাবদাহ দিয়ে আরব বসন্তের মুকুলিত পুষ্পকুঞ্জকে দলিত-মথিত করা হলো। মিসরের কষ্টার্জিত গণতন্ত্রকে গলাটিপে হত্যা করা হলো, গাদ্দাফির আধুনিক লিবিয়ার উন্নয়নের জোয়ারকে ভাটায় নামানো হলো, সেক্যুলার সিরিয়ার বাশারকে গন্তব্যহীন নিরন্তর যুদ্ধে জড়ানো হলো, অমিততেজ সাদ্দামকে নিহত করে স্বপ্নের স্বর্গরাজ্য ইরাককে ভেঙে চুরমার করা হলো। অত্রাঞ্চলের শোষিত-বঞ্চিত জনগণের প্রতিবাদী, বিদ্রোহী যুব কিশোরদের কেউ কেউ নিজের জীবন জলাঞ্জলী দিয়ে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালিয়ে ইউরোপ ও পাশ্চাত্যে তাদের আজন্ম ঘৃণা প্রকাশ করছে কি-না তার মন-জাগতিক বিশ্লেষণ দরকার। ম্যানচেস্টারের সন্ত্রাসে আত্মঘাতি বোমা হামলাকারী ২২ বছরের যুবক লিবীয় বংশোদ্ভূত সালমান আবেদি কোন উদ্দেশ্যে নিজের জীবনকে আত্মঘাতি বোমায় হারিয়ে দিল? পাশ্চাত্যের শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে এটা কি তার জীবন-উত্সর্গ নাকি নিছক সন্ত্রাসী কাণ্ড! এ প্রশ্নের উত্তর খোঁজার সময় এখন এবং এখনি।

লেখক : প্রফেসর, আন্তর্জাতিক, সম্পর্ক বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ই-মেইল: mramin 68@Yahoo.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here