কেন এই পাহাড়ধস, কেন প্রাণহানি?

0
266

ড. মাহবুবা নাসরীন : গত রোববার রাত ও সোমবার সারাদিন প্রায় দেশব্যাপী প্রবল বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে ভয়াবহ ভূমিধসের ঘটনা আমাদের শোকাহত ও আতঙ্কিত করে তুলেছে। এর আগেও পাহাড়ধসে মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা আমাদের দেখতে হয়েছে। প্রায় প্রতিবছরই এ ধরনের অঘটনে স্বজনহারাদের কান্নায় বাতাস ভারি হয়ে থাকে। কিন্তু এত মানুষের মৃত্যু আগে খুব বেশি দেখতে হয়নি। আমাদের মনে আছে, ২০০৭ সালেও চট্টগ্রামে বিপুল মানুষের মৃত্যু হয়েছিল পাহাড়ধসে। কিন্তু তারপরও যে আমরা সাবধান হইনি, দশ বছর পরে তার চেয়েও বেশি মানুষের প্রাণহানির মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হলো। আমি সেনাসদস্যসহ নিহত সবার স্বজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই। একই সঙ্গে আবারও যাতে আমাদের এমন বিপর্যয়ের মুখোমুখি হতে না হয়, তার তাগিদ দিতে চাই।

প্রশ্ন হচ্ছে, কেন পাহাড় ধসে? সাধারণত ভূমির চলাচল বা গতিশীলতার সঙ্গে পাহাড়ধস বা ভূমিধস ঘটে থাকে। পানির নিচে ঘটে যাওয়া মাধ্যাকর্ষণ অনেক দেশেই পাহাড়ধস ঘটেছে। একটা পাহাড়ি এলাকায় ঢালু বা স্লোপের স্থায়িত্ব নষ্ট হয় নানাবিধ প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট কারণে।

পাহাড়ি গাছগুলোর বিস্তার বা সবুজায়ন সাধারণত উল্লম্ব বা ভার্টিকেল কাঠামোর হয়ে থাকে, যা পাহাড় কাটার ফলে নষ্ট হয়। পাহাড়ের ভূমিতে যে ধরনের পুষ্টি বা ভূকাঠামো থাকে, সেগুলোও নষ্ট হয়ে যায় নানা কারণে। যেমন- যেসব দেশে দাবানল বেশি সেখানে পাহাড়ধসের ঘটনা বেশি। এর সঙ্গে কিছু প্রাকৃতিক কারণও যুক্ত হতে পারে। যেমন- জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে শুষ্ক মৌসুমে পাহাড়ি গাছগুলোতে পর্যাপ্ত ময়েশ্চার থাকে না। মাটি শুষ্ক হয়ে আলগা হয়ে যেতে পারে, যা অতি বৃষ্টির কারণে ধসে পড়ে।

ভূমিকম্পকালীন বা পরবর্তী সময়েও পাহাড়ধসের ঘটনা বেড়ে যেতে পারে। কারণ ভূমিকম্পের কারণে পাহাড়ের মাটি আলগা বা স্থানচ্যুত হতে পারে; কোনো কোনো দেশে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত থেকে। বনশূন্যতা, পাহাড়ি জমিতে কৃষিকাজ ও অবকাঠামো নির্মাণ। প্রাকৃতিক ঘরবাড়ির পরিবর্তে আধুনিক ও অপরিকল্পিত আবাসন তৈরি বা ভূমিতে পানি প্রবেশ বা ফিল্টারের পদ্ধতি নষ্ট করে দেয়। এমনকি পাহাড়ি অঞ্চলে ভারী শিল্প স্থাপন বা ভারী যানবাহন চলাচলও এ ক্ষেত্রে দায়ী হতে পারে। বিভিন্ন কল-কারখানা, মেশিন বা যানবাহনের কম্পনে এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। গভীর শিকড়বিশিষ্ট বৃক্ষ নিধনও পাহাড়ের ভূমিগত অবস্থান নষ্ট করে দেয়।

ভূমিধস পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য মানবসৃষ্ট কারণগুলো যাতে না ঘটে বা নিয়ন্ত্রণে থাকে, সেজন্য সতর্ক থাকতে হবে। একই সঙ্গে নিতে হবে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। এ জন্য প্রয়োজন ‘হ্যাজার্ড ম্যাপিং’ ও টেকসই ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনা। আমরা জানি, আমাদের দেশে ভূতাত্তি্বক জরিপ জলভিত্তিক ভূতত্ত্ব সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞানের ও প্রয়োগের অভাব রয়েছে, এগুলো বাড়াতে হবে। যেমন রিমোর্ট সেন্সিংয়ের মতো ভূমিবিষয়ক প্রযুক্তি বিষয়ে আগে তেমন গুরুত্ব সহকারে পঠন-পাঠন হতো না। আমরা ইনস্টিটিউটে এই কোর্সগুলো বাধ্যতামূলক করেছি। তবে এগুলোর প্রায়োগিক দিকটা ব্যয়বহুল। শিক্ষার্থীরা সবসময় শিখতে পারছে না। খুব কমসংখ্যক প্রতিষ্ঠান কিছু কাজ করছে। কিন্তু হ্যাজার্ড বা আপদ সম্পর্কে ধারণা নেওয়া ও বিশ্লেষণ ব্যাপকহারে হওয়া প্রয়োজন। সাটেলাইট ইমেজ তৈরির মাধ্যমে ভূমি বা পাহাড়ধসের ধরন, বিস্তার ও শ্রেণিকরণ করা প্রয়োজন। ভূমিধসের আগে ও পরে এসব ইমেজিংয়ের মাধ্যমে জানা যেতে পারে পাহাড়ধসের কারণ এবং এর প্রক্রিয়াগত দিক। যার ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে। বলা যেতে পারে, টেকসই ভূমি ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়ন হচ্ছে পাহাড়ধসজনিত প্রাণহানির কমানোর মূল বিষয়।

মনে রাখতে হবে, পাহাড়ধস বাংলাদেশের একক দুর্যোগ নয়, নতুনও নয়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে পাহাড়ধসের ইতিহাস রয়েছে। গত শতাব্দীর পূর্ব থেকেই রেকর্ড পাওয়া যায়- কানাডা, সোভিয়েত ইউনিয়ন, তাজিকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইত্যাদি। ভেনিজুয়েলাতে ১৯৯৯ সালে মাটিধসে প্রায় দশ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। ২০১১ সালে ব্রাজিলের রিওডি জেনিরোতে ভূমিধসে ৬১০ জন মৃত্যুবরণ করে। তবে উন্নত বিশ্ব পাহাড়ধস মোকাবেলায় নানা ব্যবস্থা নিলেও আমরা এখনও পিছিয়ে আছি।

আমরা দেখছি, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ভারত, বাংলাদেশ, নেপালে পাহাড়ধস উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। আগেই বলেছি, ২০০৭ সালে চট্টগ্রাম অঞ্চলে পাহাড়ধসে ১২৭ জন প্রাণ হারিয়েছিল। এরপর প্রায় প্রতি বছরই পাহাড়ধসে প্রাণহানি ঘটেছে। তবে সংখ্যায় কমেছে। ২০০৮ সালের আগস্ট মাসে চট্টগ্রামের মতিঝর্ণা এলাকায় পাহাড়ধসে চার পরিবারের ১২ জন সদস্য মারা যায়। ২০১১ সালে একই জেলার টাইগার পাস এলাকার বাটালি হিলের ঢালে পাহাড় ও প্রতিরক্ষা দেয়াল ধসে ১৭ জন মৃত্যুবরণ করেন। ২০১২ সালের জুনের শেষ দিকে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান ও সিলেটে ৯৪ জনের প্রাণহানি ঘটে। আর ২০১৫ সালের জুন মাসে পাহাড়ি ঢলে কক্সবাজারে মারা যান ১৯ জন। ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র সময়ে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত ছাড়া গত কয়েক দিনে রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়। গত মঙ্গলবার (১৩ জুন, ২০১৭) ২৪ ঘণ্টায় রাঙামাটিতে দেশের সর্বোচ্চ ৩৪.৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

প্রশ্ন হচ্ছে, বৃষ্টিপাত তো আগেও হয়েছে। কিন্তু বৃষ্টির পানি ধরে রাখবে যে গাছগুলো বা যে মাটি, তাদেরকে আমরা কতটুকু ধরে রাখতে পেরেছি? বৃক্ষনিধন, অপরিকল্পিতভাবে আবাসন বা ভূমি দখলের নামে দরিদ্রদের বসিয়ে রাখার প্রশ্নগুলো যে সামনে আসছে, সে বিষয়ে আমরা কী পদক্ষেপ নিচ্ছি? আমাদের পাহাড় নিয়ে চিন্তা-ভাবনা কী? পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের ‘ফরেস্ট্রি মাস্টার প্লানে’ অথবা ‘কনজারভেশন স্ট্র্যাটেজি’তে এই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করতে হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ বিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলিতে (এসওডি) বিভিন্ন দায়িত্বপ্রাপ্তদের দুর্যোগ মোকাবেলায় ভূমিকা পালন করতে হয়। তারা এই বিশেষ সময়গুলোতে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে কতটুকু নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করছেন, বিষয়টি নিশ্চিত করা প্রয়োজন। সেনাবাহিনী বা ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং উদ্ধার কাজে যারা প্রথম সাড়া দিচ্ছেন, তাদের জন্যও প্রস্তুতি হতে হবে নিরাপদ। প্রতিটি জীবনই মূল্যবান। আর তা রক্ষা করার জন্য যেসব পদক্ষেপ অতি জরুরি সেগুলোর গবেষণাভিত্তিক বৈজ্ঞানিক সমাধান প্রয়োজন। সর্বাগ্রে প্রয়োজন এ ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে লোকবসতি নিরোধ করা। পাহাড়ি এলাকায় ঐতিহাসিকভাবে প্রাকৃতিক আবাসন ও লোকজ বৃক্ষের পাশাপাশি অবস্থানের কোনো বিকল্প নেই।

অধ্যাপক ও পরিচালক, ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ভালনারেবিলিটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here