কেশবপুরের দোরমুটিয়া গ্রামের বৃদ্ধা লুৎফুন্নেছাকে ভিটে ছাড়া করেছে ভাইয়েরা

0
70

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের কেশবপুরের দোরমুটিয়া গ্রামের বৃদ্ধা লুৎফুন্নেছাকে ভিটে ছাড়া করেছে তার ভাইয়েরা। পিতার সম্পত্তির ভাগ চাওয়ায় তার ভাই আয়ুব আলীসহ অন্যরা তাকে ও তার মেয়েদের মারপিট করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে। এরপর একেরপর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। বর্তমানে বৃদ্ধা লুৎফুন্নেছা বাড়ি ঘর ছেড়ে অন্যাত্র মানবেতর জীবনযাপন করছেন। সোমবার প্রেসক্লাব যশোরে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়।
এ সময় উপস্থি ছিলেন বৃদ্ধা লুৎফুন্নেছা বেগম, মেয়ে সালমা পারভীন, নাজমা বেগম, মনোয়ার বেগম, ডাক্তার তাসলিমা খাতুন, মনোয়ার বেগম, নাতনী মমতাজ খাতুন ও নাতী হাবিবুল্লাহ।
লিখিত বক্তব্যে ডাক্তার তাসলিমা খাতুন বলেন, তার মা লুৎফুন্নেছার পৈত্রিক জমি নিয়ে তার ভাইদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসাছিল। এরই জের ধরে তার দুই বোন হোসনেয়ারা ও মনোয়ারা বেগম মামাদের সাথে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। এরই জের ধরে গত ২৭ আগস্ট সকালে আয়ুব আলী, আশরাফ আলী, মুকুট হোসেন, ইয়ারুল হুদ, স¤্রাট হোসেন, রফিউদ্দিনসহ বেশ কয়েকজন পরিকল্পিত ভাবে তাদের বাড়িতে হামলা করে। হামলাকারীরা হত্যার উদ্যেশে তার মেজবোন মনোয়ারাকে কুপিয়ে জখম করে। মারপিট ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগে ওই ৬ জনকে আসামি করে কেশবপুর থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।
তিনি বলেন, গুরুতর জখম মনোয়ারাকে কেশবপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছিল। চিকিৎসকরা মাথার কাটা স্থানে ৬ টি সেলাই দিয়েছিল। হামলাকারীদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক সাধারণ একটি জখমী সনদ দিয়েছেন। ফলে আদালত থেকে জামিন জামিন পেতে আসামিদের বেগ পেতে হয়নি। জামিনে মুক্ত হয়ে আসামিরা তাদের বাড়ি-ঘর দখল করে তাড়িয়ে দিয়েছে। এ ব্যপারে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিয়েও কোন ফল হচ্ছেনা। তার মাসহ অন্যরা বাড়ি ফিরে গেলে তাদের খুন জখম করার হুমকি দিচ্ছে। তিনি অবিলম্বে হামলাকারী দলখদাদের উচ্ছে করে তার পরিবারের সদস্যদের বাড়ি ফিরে যেতে প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেছেন প্রশাসনের কাছে।