কেশবপুরে শ্রীরামপুর বাজারে একাধিক ইটভাটা স্থাপন বন্ধের প্রতিবাদে এলাকাবসীর মানববন্ধন, সমাবেশ

0
336

শেখ শাহীন,কেশবপুর (যশোর) : যশোরের কেশবপুর উপজেলার শ্রীরামপুর বাজারের পাশে পরিবেশ আইন উপেক্ষা করে ৩ ফসলি জমি গ্রাস করে আধা কিলোমিটারের ভেতর একের পর এক ইট ভাটা গড়ে উঠছে। ফলে ওই এলাকার ফসলহানি, ছেলে মেয়েদের লখাপড়া বিঘœঘটাসহ পরিবেশের মারাতœক বিপর্যয় ঘটছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরপরও গত ২৮ ফেব্র“য়ারী এ বাজারের মাত্র ৫০ গজ দূরে আরও একটি ইট ভাটার উদ্বোধন করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী ফুঁসে উঠেছে। গত মঙ্গলবার বিকেলে ভাটা বন্ধের দাবিতে এলাকার শিক্ষার্থীসহ শতশত নারী পুরুষ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে।
জানা গেছে, উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের ৩ রাস্তার মোড়ে মানুষের প্রয়োজনে ছোট্ট একটি বাজার গড়ে উঠেছে। এ বাজারে প্রতিদিন হাট বসে। এর পশ্চিম পাশে শ্রীরামপুর কমিউনিটি ক্লিনিক ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ পাশে শ্ররামপুর বালিকা বিদ্যালয়সহ চারপাশে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা রয়েছে। এ বাজারটি আশপাশের এলাকা থেকে অপেক্ষাকৃত উঁচু হওয়ায় এর ৫‘শ গজ উত্তরে বায়সা চিংড়া সড়কের কালিবাড়ি শ্মশানের পাশের ৩ ফসলি জমিতে ৩ বছর আগে মেসার্স গোল্ড ব্রিকস, মেসার্স গাজী ব্রিকস নামের দুটি ইট ভাটা স্থাপন করা হয়। ওই ভাটা মালিকরা একাধিক ট্রাকযোগে ইট পোড়ানোর সরজ্ঞামসহ ইট তৈরীর জন্য দূর-দূরান্ত থেকে কৃষি জমির টপ সয়েল কেটে ভাটায় আনতে সড়কটি ব্যবহার করছে। ফলে সড়কটি সংস্কারের বছর পার হতে না হতেই আবার খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়ে জনগণের চলাচলে চরমভাবে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। এ রাস্তা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শিশু শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন বিদ্যালয়ে যেতে হয়। প্রতিনিয়ত ভাটার গাড়ি চলাচলের কারণে ধুলা বালিতে সাধরণ মানুষ সর্দি-কাশি, এলার্জিসহ নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। ফলে পরিবেশের মারাতœক বিপর্যয়সহ ভাটার কার্বন জাতীয় আবহাওয়ার কারণে এলাকায় ব্যাপক ফসলহানি ঘটেছে। এ কারণে গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর ওই বাজারের পাশ থেকে ইটভাটা উচ্ছেদের দাবিতে এলাকার দুই শতাধিক লোকের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ পত্র উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে দাখিল করা হয়।
ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন আইন-২০১৩ এর ৮ নং অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে, আবাসিক, সংরক্ষিত বা বাণিজ্যিক এলাকা; কৃষি জমি, পরিবেশ বিপর্যয়, ফসলের ক্ষতি সাধন, ব্যক্তি মালিকানাধীন বাগান দখল করে কোন ইটভাটা স্থাপন করা যাবে না। ভাটা মালিকগণ এ আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ওই বাজারের চারপাশে একের পর এক ইটভাটা স্থাপন করে চলেছেন। এ আইন উপেক্ষা করে গত ২৮ ফেব্র“য়ারী কেশবপুর শহরের দুই প্রভাবশালী মৎস্য ঘের ব্যবসায়ী বুলু বিশ্বাস ও ইখতিয়ার হোসেন ওই বাজারের মাত্র ৫০ গজ দূরে রাবেয়া ব্রিকস নামের আরও একটি ইটভাটা স্থাপনের উদ্বোধন করেন। এরই প্রতিবাদে ২৮ ফেব্র“য়ারী বিকেলে শ্রীরামপুর বাজারে শ্রীরামপুর, বায়সাসহ আশপাশের ৪ গ্রামের শতশত জনগণ বাজারের পাশে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় ইটভাটা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন শ্রীরামপুর গ্রামের মেম্বার আব্দুর রহমান, প্রভাষক রুহুল আমীন, আমিনুর রহমান, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ। সমাবেশ থেকে ওই স্থানে ভাটা স্থাপন বন্ধ না হলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হয়।
এ ব্যাপারে গাজী ব্রিকসের সত্ত্বাধিকারী আরমান গাজী বলেন, অন্য ভাটা থেকে পরিবেশের ভারসাম্য রেখেই তার ভাটা স্থাপন করা হয়েছে। আগে ওই স্থানে ডাকাতি হতো। ভাটা স্থাপন হওয়ায় সাড়ে ৩‘শ লোকের কর্মসংস্থান হওয়াসহ ডাকাতি বন্ধ হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ রায়হান কবীর সাংবাদিকদের জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগটির তদন্ত চলছে। ওই স্থানে নতুন করে যাতে আর কোন ভাটা নির্মাণ না হয় তার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here