কে হচ্ছেন যশোর চৌগাছা পৌরসভার চতুর্থ মেয়র ??

0
653

নিজস্ব প্রতিনিধি : কে হচ্ছেন যশোর চৌগাছা পৌরসভার চতুর্থ মেয়র ?? ২০০৪ সালে চৌগাছা পৌরসভা গঠনের পরেই প্রশাসক হিসেবে নিয়েগ পেয়েছিলেন বিএনপির সেলিম রেজা আউলিয়ার। সেসময় চৌগাছা পৌরসভা “গ” শ্রেনীভূক্ত ছিল। পরবর্তীতে ২০০৫ সালে প্রথম এবং ২০১১ সালের দ্বীতিয় নীর্বাচনেও তিনিই মেয়র পদে নির্বাচীত হয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে ২০১৩ সালের ৫ জুন পৌরসভাটিকে “খ” শ্রেনীতে উন্নীত হয়। এরপর দলীয় প্রতিকে প্রথম স্থানীয় নির্বাচনে ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতিকের নুর উদ্দিন আল মামুন মেয়র নির্বাচীত হন।
দীর্ঘদিন ১১ বছর পৌর মেয়রের পদটি বিএনপির দখলে থাকলেও তেমন কোনো উন্নয়নের ছোয়া পড়েনি পৌরসভাটিতে। ২০১৫ সালে তৃতীয় নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আর্শীবাদে নৌকা প্রতিকে নুর উদ্দিন আল মামুন আওয়ামী লীগের প্রথম মেয়র নির্বাচীত হন। তরুন এ আওয়ামী নেতা মেয়র নির্বাচীত হওয়ার পর থেকেই পৌর জীবনে উন্নয়নের ছোয়া পরিলক্ষিত হয়। বর্তমানে পৌরসভায় উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার পাশাপাশি নতুন করে গড়ে উঠেছে বর্জ্যব্যবস্থাপনা। নতুন করে জমি কিনে গড়ে তোলা হয়েছে ডাম্পিং স্টেশন। নগর জীবনের অন্ধকার দূর করতে সর্বত্রই আছে সোলার বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন। জলবদ্ধতা দূরীকরনে ২ কিলো মিটার উন্নত ড্রেনেজ ব্যবস্থার হাজ শেষ এবং আরো ৭ কি.মি প্রক্রিয়াধীন। নগর জীবনের বিনোদনের জন্য কপোতাক্ষের পাড়ে চলছে পৌর পার্ক নির্মানের কাজ চলমান রয়েছে।
তফসিল অনুযায়ি আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী চৌগাছা পৌরসভার চতুর্থবারের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বিভিন্ন স্বপ্ন নিয়ে ও পৌরবাসিকে স্বপ্ন দেখিয়ে এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ৭ ও বিএনপির ৩ জন দলীয় মনোনয় প্রার্থী। এছাড়াও জামাত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রাথী আছেন একজন।
কে এবং কোন দলের প্রার্থী হচ্ছেন আগামী পৌর মেয়র ?? পৌর জীবনে শান্তি আশা করেন পৌরবাসি সেহিসেবে ব্যক্তি জনপ্রিয়তা, দলীয় ইমেজ ও পারিবারিক ঐতিহ্যকে হিসেবে রেখে প্রার্থী বাছাই করবেন তারা বলেই জানিয়েছেন সুধিজনেরা। আওয়ামী লীগের নির্ভরযোগ্য সূত্রমতে আগামী ১৪ই জানুয়ারি দলীয় মনোনয়ন ঘোষনা হতে পারে। উপজেলার ৭ জন প্রার্থীর মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার রেজুলেশনে কেন্দ্রে বর্তমান মেয়র নুর উদ্দিন আল মামুন হিমেল,রোকেয়া রহমান,আব্দুল মজিদ, সিদ্দিকুর রহমান ও জসিম উদ্দিনের নাম সুপারিশ করে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান ও সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরী ।
আওয়ামী লীগের প্রথম নির্বাচীত মেয়র হিসেবে নুর উদ্দিন আল মামুন হিমেল পৌরবাসির পছন্দের ব্যক্তি। কেনো জানতে চাইলে সুধিজনেরা জানিয়েছেন নগরজীবনে নিরাপত্তা ও শান্তি এবং নগর উন্নয় সকলেই আশা করে থাকে। গত ৫ বছরে পৌরসভাতে চাদাবাজী কমেছে। সীমান্তবর্তী পৌরসভা হলেও মাদকের প্রাদূর্ভাব কমাতে ভুমিকা রেখেছেন তিনি। নগরবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চীত করতে করোনা ক্রান্তিকালেও থেমে থাকেননি মেয়র। করোনা মহামারিতে সকলেই যখন নিজের প্রানভয়ে ভীত তখনও মেয়র নিজের জীবনের তোয়াক্কা না করে পৌরবাসিকে সর্বোচ্চ সেবা করে গেছেন। একদিকে করোনায় আক্রান্তদেরকে যেমন কঠোরভাবে হোম ও প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারিনটাইন করিয়েছেন তেমনি তাদেরসহ পৌরসভার অসহায়দের খাদ্য সহায়তা নিশ্চিত করেছেন। পৌরসভাসহ উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে করোনায় আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির দাফন কাফন করে নিজে লাশ বহন করে কবরাস্ত করেছেন মেয়র নুর উদ্দিন আল মামুন।
চৌগাছা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল মুজিদ এবারের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি। পৌরসভার কাউন্সিলর হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।
যশোর জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক শায়লা জেসমিন এবার নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রত্যাশি। তিনি এর আগেও পাতিবিলা ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা মেম্বর হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন।
যশোর জেলা পরিষদের আরো এক সদস্য দেওয়ান তৌহিদুর রহমান ২০১১ সালেও একবার পৌর নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছিলেন। চৌগাছা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক এ সভাপতিও নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন চেয়ে ফর্ম জমা দিয়েছেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবের স্ত্রী ও মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক রোকেয়া রহমান নৌকা প্রতিকের জন্য লড়ছেন।
পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সিদ্দিকুর রহমানও এবার নৌকা প্রতিক প্রত্যাশি।
উপজেলা আওয়ামী লীগের নবাগত সদস্য জসিম উদ্দিন এর আগে উপজেলা ভাইস পেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছিল। তিনিও এবার পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয় প্রার্থী।
বিএনপির দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে পৌর বিএনপির সদস্য সচিব আব্দুল হালিম চঞ্চল এগিয়ে আছেন বলেই জানিয়েছেন দলটির শীর্ষ নেতারা। তবে সাবেক মেয়র ও পৌর বিএনপির আহ্বায়ক সেলিম রেজা আউলিয়ার এবং পৌর বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক সোহরাব হোসেনও আছেন দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে। সেক্ষেত্রে স্বতন্দ্র প্রার্থী হিসেবে জামাত সমর্থিত সাবেক কাউন্সিলর মাষ্টার কামাল হোসেন ভাল অবস্থায় আছেন।