কোচিং বাণিজ্য বন্ধে করণীয় বিষয়ে যশোরের ১৫টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের যৌথসভা

0
66

নিজস্ব প্রতিবেদক : কোচিং বাণিজ্য বন্ধে করণীয় বিষয়ে যশোরের ১৫ টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সুরধুনী সঙ্গীত নিকেতন এর কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে সভাপতিত্ব করেন সুরধুনী সঙ্গীত নিকেতনের অধ্যক্ষ অর্দ্ধেন্দু প্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায়। সভায় সুরধুনী, বিবর্তন, পুনশ্চ, শেকড়, নৃত্যবিতান, চাঁদের হাট, তির্যক, সপ্তসুর, আশাবরী, কিংশুক, মাইকেল, স্বরলিপি, উৎকর্ষসহ অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন এবং তাদের মতামত ব্যক্ত করেন।
সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, কোচিং বাণিজ্যের নামে এদেশের কোমলমতি শিশু কিশোরদের উপর শিক্ষিত নামের কলঙ্কিত মানুষ অর্থের লোভে তাদের শৈশবকে যে চুরি করে ফিরছে সে ব্যাপারে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষমন্ত্রীসহ দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদরা দীর্ঘদিন ধরে আপত্তি জানিয়ে আসছেন। সর্বশেষ এর হাত থেকে বাঁচতে প্রধানমন্ত্রী ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা বন্ধ করে দিয়েছেন।
এ বিষযে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় সদস্য সুকুমার দাস বলেন, ১৯৭৮ সালে জামালপুর জেলাতে জামাত – শিবির প্রথম পরীক্ষামূলক এই কোচিং বাণিজ্য শুরু করে এক বছরের মধ্যে তারা সফলতা লাভ করে। সকল স্কুল কলেজ বন্ধ হবার উপক্রম হয় সেখানে আর কোচিং সেন্টার ভরে ওঠে। এরই আলোকে তারা তাদের কার্যক্রম বিস্তৃত করে দেশজুড়ে তৎকালীন সরকারী পৃষ্টপোষকতায়। আজ তা সর্বস্তরে ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে উঠেছে। কোচিং করতে গিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি, ১৭ মার্চ, ২৬ মার্চ, ১৫ আগস্ট, ১৬ ডিসেম্বর মানছে না। এই জাতীয় দিবসেও তারা কোচিং বন্ধ করে না। শুক্রবারে ইচ্ছাকৃতভাবে তারা পরীক্ষার আয়োজন করে যাতে সকলকে বাধ্যতামূলকভাবে উপস্থিত থাকতে হয়। ফলে শিশু কিশোরদের সামান্যতম কোন প্রশান্তির ব্যবস্থা নেই। এর থেকে উত্তরোণ জরুরী।
জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মাহমুদ হাসান বুলু বলেন, সাংস্কৃতিক কর্মীরা অতীতে বার বার এ বিষয়ে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে নানাভাবে, এবারে আমরা এর শেষ দেখতে পথে নামতে চাই। পবিত্র ঈদ উল আযহার পর আমরা নানাবিধ আন্দোলনের মাধ্যমে আমাদের দাবিপূরণে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here