খরচ বাড়াবে নতুন ভ্যাট আইন

0
261

নিজস্ব প্রতিবেদক: নতুন মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট আইনের কারণে দুশ্চিন্তা বেড়েছে। ভোক্তার পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের ভোগাবে নতুন ভ্যাট। আবার ভ্যাট প্রশাসনের পর্যাপ্ত প্রস্তুতিও নেই। নতুন ভ্যাটে সাধারণ ভোক্তাদের ওপর বাড়তি খরচের চাপ বাড়বে। ১৫ শতাংশ ভ্যাট বসবে বিদ্যুৎ বিল, দেশি ব্র্যান্ডের তৈরি পোশাক, আসবাব, রডসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় পণ্যে।

অন্যদিকে ভ্যাট হারসহ হিসাবনিকাশ পদ্ধতি নিয়ে ব্যবসায়ীদেরও আপত্তি আছে। তাঁদের পণ্য বিক্রির পাশাপাশি পণ্য কেনার হিসাবও ভ্যাট রিটার্নে দেখাতে হবে। অনলাইন ভ্যাট নিবন্ধনেও উৎসাহ নেই তাঁদের। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। ব্যবসায়ীদের কেনা দামে ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্টার (ইসিআর) মেশিন দেওয়ার কথা আছে। আইনটি বাস্তবায়নের দুই সপ্তাহের কিছু বেশি সময় বাকি আছে; এখনো ইসিআর মেশিন দেওয়া শুরু হয়নি।

২০১৭-১৮ অর্থবছরের নতুন বাজেটের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হচ্ছে নতুন ভ্যাট আইনের বাস্তবায়ন। বাজেটের আগে থেকেই এ নিয়ে ছিল ব্যাপক আলোচনা। কিন্তু বাজেট পেশের পর ব্যাংক আমানতের ওপর আবগারি শুল্ক বাড়ানোর খবরই সবকিছুকে ছাপিয়ে গেছে। এখনো বেশি আলোচনা হচ্ছে এ নিয়েই। অথচ এনবিআর কর্মকর্তা থেকে শুরু করে অর্থনীতিবিদ পর্যন্ত সবারই মতামত হচ্ছে সাধারণ মানুষের ওপর সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলবে নতুন ভ্যাট আইন। ভোক্তাদের ওপর চাপ বাড়াবে এই আইন।

ভোক্তাদের নিয়ে কাজ করা কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (সিএবি) সভাপতি গোলাম রহমান প্রথম আলোকে বলেন, নতুন আইনে ভ্যাট অন্তর্ভুক্ত করে পণ্য বা সেবার সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমআরপি) নির্ধারণ হবে। বিক্রেতা যদি আগের চেয়ে বেশি এমআরপি নির্ধারণ করেন; তবে ভোক্তাকে বেশি দামে পণ্য কিনতে হবে। পণ্যের দাম বাড়বে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, এতে সার্বিক মূল্যস্ফীতির চাপ বাড়বে।

আগামী ১ জুলাই থেকে একক ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট দিতে হবে। রিটার্ন জমা, কর পরিশোধ—সবকিছুই অনলাইনে হবে। ভ্যাট অফিসে যেতে হবে না তাঁদের। তবে বার্ষিক লেনদেন বা টার্নওভার ৩৬ লাখ টাকা পর্যন্ত হলে কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ভ্যাট দিতে হবে না। এমনকি ভ্যাট নিবন্ধনও নিতে হবে না। আর ৩৬ লাখ থেকে দেড় কোটি টাকা পর্যন্ত বার্ষিক লেনদেন হলে ৪ শতাংশ টার্নওভার কর দিলেই চলবে। অবশ্য টার্নওভার কর দিলে ভ্যাট রেয়াত নিতে পারবে না ওই ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান।

ভোক্তার চাপ বাড়বে

নতুন আইনে অনেক পণ্য ও সেবায় ভ্যাট অব্যাহতি দেওয়া হলেও বেশ কিছু প্রয়োজনীয় পণ্য ও সেবায় ভ্যাট আছে, যা ভোক্তাকে ভোগাবে; খরচও বাড়াবে। সাধারণ রেস্তোরাঁয় খাবার খেলে সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট দিতে হয়; ১ জুলাই থেকে তা ১৫ শতাংশ হয়ে যাবে। আবার বিদ্যুৎ বিলে ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ হবে। ভোক্তার খরচ আগের মতো ঠিক রাখতে বিদ্যুৎ বিভাগকে নতুন করে ভ্যাটসহ মূল্য ঘোষণা করতে হবে। এখনো বিদ্যুৎ বিভাগ তা করেনি। বড় দোকান থেকে কাপড়চোপড় কিনতেও ভ্যাট দিতে হবে। নানা পণ্যে ভ্যাট ছাড় থাকলেও টুথব্রাশ, পেস্ট, বোতলজাত পানির মতো অনেকটা নিত্যপণ্যেও ভ্যাট দিতে হবে। এসব কারণে ভোক্তার ওপর খরচ বাড়তে পারে।

নতুন আইনে ১ জুলাই থেকে বিক্রেতাদের ভ্যাট অন্তর্ভুক্ত করে সব পণ্য বা সেবার সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমআরপি) লিখে রাখতে হবে। এতে ভ্যাট আছে—এমন প্রায় সব পণ্যের বিক্রয়মূল্য বেড়ে যাবে। এ ছাড়া ভোক্তা কত ভ্যাট দিলেন, তা আলাদা করে বুঝতে পারবেন না। এমআরপি মূল্য পরিশোধ করায় ভোক্তাকে আলাদা হিসাব করে ভ্যাটও দিতে হবে না।
১৫ শতাংশ হারেই দিতে হবে ভ্যাট
বিদ্যুৎ বিলে ১৫ শতাংশ ভ্যাটে জটিলতা
হিসাব রাখতে ব্যবসায়ীদের ইসিআর মেশিন দেওয়া শুরু হয়নি

অনলাইন নিবন্ধনে আগ্রহ কম

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার পর্যন্ত ২৯ হাজার ১০২টি প্রতিষ্ঠান অনলাইন নিবন্ধন নিয়েছে। গত বছর যে ৩৬ লাখ ৮৫৮টি প্রতিষ্ঠান ভ্যাট রিটার্ন দিয়েছিল; ওই সব প্রতিষ্ঠানের ৩০ শতাংশের কম প্রতিষ্ঠান অনলাইন পুনর্নিবন্ধন নিয়েছে। টার্নওভার করের জন্য মাত্র ৮১২টি প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্ত হয়েছে। অনলাইনে নিবন্ধন না নিলে রিটার্ন জমা দেওয়া যাবে না।

ভ্যাট আইন নিয়ে আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে গঠিত ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরামের সাধারণ সম্পাদক আবু মোতালেব প্রথম আলোকে বলেন, ‘ছোট ব্যবসায়ীরা নিবন্ধন নিচ্ছেন না, কারণ তাঁরা এই আইন মেনে নেননি। আমরা ঈদের পরে সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করে কর্মসূচি দেব।’

একইভাবে দেশের ছোট-বড় সব ইস্পাত কারখানার মালিকদেরও নতুন আইনে ভ্যাট নিবন্ধন নিতে আগ্রহ কম। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ অটো রি-রোলিং অ্যান্ড স্টিল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি শেখ মাসাদুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, অনেকে মনে করছেন শেষ পর্যন্ত ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট বসবে না, এ কারণে নিবন্ধন নেওয়ার ক্ষেত্রে ধীরগতিতে হাঁটছেন। অনেকের আবার ভ্যাটের হিসাব রাখার মতো সক্ষমতা নেই।

এত প্রশিক্ষণ কে নিল

নতুন আইনে হিসাব রাখার পদ্ধতি, ভ্যাট রিটার্ন জমা, ভ্যাট নিবন্ধনসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর। ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, নতুন আইন ও সফটওয়্যার ব্যবহার নিয়ে এ পর্যন্ত ৩২ হাজার ব্যক্তিকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন কর্মশালার মাধ্যমে আরও ২ লাখ ৪০ হাজার জনকে ভ্যাট আইন সম্পর্কে সচেতন করা হয়েছে। ব্যবসায়ীদের অনেকেই দাবি করছেন, এখনো অনেক ব্যবসায়ী প্রশিক্ষণ নিতে পারেননি। অনেকেই জানেন না কীভাবে প্রশিক্ষণ নিতে হয়। অনেক ব্যবসায়ী সমিতিকে প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়ার জন্য ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প থেকে চিঠি দেওয়া হলেও তাঁরা তাতে সাড়া দেননি।

পুরান ঢাকার মৌলভীবাজার বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা প্রথম আলোকে জানান, প্রশিক্ষণের জন্য সমিতির কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অনেকেই যায়নি। নতুন আইনের কঠিন হিসাব পদ্ধতিতে তাঁদের আগ্রহ কম।

আগামী আগস্ট মাসে এই আইনের আওতায় প্রথম রিটার্ন জমা দেবেন ব্যবসায়ীরা। নতুন সফটওয়্যারে ব্যবসায়ীদের আগের এক মাসের হিসাবনিকাশসহ রিটার্ন জমা কতটা স্বাচ্ছন্দ্যে দিতে পারবেন, তা নিয়ে ব্যবসায়ী ও ভ্যাট কর্মকর্তাদের মধ্যেও একধরনের অস্বস্তি আছে। যদিও আইনে সনাতনী পদ্ধতিতে রিটার্ন জমার সুযোগ আছে। আপাতত এনবিআর তা উন্মোচিত করতে আগ্রহী নয়।

হিসাব রাখায় সমস্যা

নতুন আইনে পণ্য কেনাবেচার প্রতি স্তরে ভ্যাট রেয়াত নিতে হিসাব রাখতে হবে। পণ্য কেনার সময় চালান কপি নিতে হবে। চালানের তথ্য রিটার্নে দেখাতে হবে। যাঁরা হিসাব রাখতে পারবেন না, তাঁরা পরবর্তী স্তরের কাছে পণ্য বা সেবা বিক্রির সময় নিজের দেওয়া ভ্যাটের টাকা কেটে রাখতে পারবেন না।

ব্যবসায়ী নেতা আবু মোতালেব বলেন, দোকানমালিকদের পক্ষে প্রতিটি আইটেমের বিক্রির আলাদা হিসাব রাখা সম্ভব নয়। এর ওপর ১৫-১৬টি ফরম পূরণ করতে বলা হয়েছে। দোকান পর্যায়ে এসব সম্ভব নয়।

ব্যবসায়ীদের হিসাব রাখার সুবিধার্থে কেনা দামে ৫০ হাজার ইসিআর মেশিন দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর। প্রথম দফায় ১০ হাজার ইসিআর সরবরাহের কথা ছিল। গত ফেব্রুয়ারি মাসে দরপত্র আহ্বান করে এনবিআর। এখন পর্যন্ত ইসিআর আমদানি হয়নি। এনবিআরের সূত্রে জানা গেছে, চলতি জুন মাসের মধ্যে কোনোভাবেই ইসিআর দেওয়া সম্ভব হবে না। আগামী আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাসের দিকে ইসিআর সরবরাহ শুরু হতে পারে।

অবশ্য ভ্যাট অনলাইন প্রকল্পের উপপ্রকল্প পরিচালক মুহাম্মদ জাকির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে পুরোপুরি প্রস্তুত আমরা। ইতিমধ্যে মাঠপর্যায়ের কার্যালয়কে প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। আশা করি ভ্যাট আইনটি ব্যবসায়ীদের আগের চেয়ে বেশি সুবিধা দেবে। কর প্রদান ব্যবস্থাও সহজ হবে।’

রিফান্ডের বরাদ্দ নেই

নতুন আইনে কোনো ব্যবসায়ী যদি এনবিআর রেয়াতের টাকা পাওনা থাকেন, তা ফেরত পাবেন। তিন মাসের মধ্যে রিফান্ডের টাকা ফেরত দেবে এনবিআর। রিফান্ডের টাকা ফেরত দেওয়া নিয়ে আইনগত জটিলতা আছে। এটা প্রশাসনিক ব্যয়ের অংশ নয়। নতুন বাজেটেও রিফান্ডের টাকা বরাদ্দের বিষয়ে স্পষ্ট কোনো তথ্য নেই। এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, বাজেট পাস হওয়ার আগেই রিফান্ডের জন্য আলাদা বরাদ্দ রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।

সামগ্রিক বিষয়ে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর প্রথম আলোকে বলেন, নতুন আইনের আওতায় ভ্যাট আদায় করতে হলে এনবিআর কর্মকর্তাদের এত দিনের ‘মানসিকতার সংস্কৃতি’ বদলাতে হবে। এটাই বড় চ্যালেঞ্জ। সারা জীবন ধরে তাঁরা (ভ্যাট কর্মকর্তা) যেভাবে কর আদায় করেছেন কিংবা অনেকে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যোগসাজশ করেছেন, নতুন আইনে সেই সুযোগ থাকছে না। এমন ব্যবস্থার সঙ্গে কর্মকর্তারা অভ্যস্ত নন। তাঁদের অভ্যস্ত হতে সময় লাগবে। তিনি মনে করেন, নতুন আইনটি বাস্তবায়নে ব্যবসায়ীদের দিক থেকেও সমস্যা আসবে। সেই সমস্যা সমাধানের জন্য এনবিআরকে প্রস্তুতি নিতে হবে। এনবিআরকে শক্তিশালী করতেই হবে। এত দিন এই বিষয়টিতে নজর দেওয়া হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here