খাদ্যপণ্যে অতি মাত্রায় ক্ষতিকর কেমিক্যালের ব্যবহার

0
222
দেশের কৃষি খাত ক্রমশ উন্নতি লাভ করিতেছে বটে, কিন্তু এই উন্নতির পাশাপাশি নিরাপদ এবং ভেজালমুক্ত শাকসবজি, ফলমূল ও অন্যান্য খাদ্যদ্রব্য এখন পরিণত হইয়াছে সোনার হরিণে। সমপ্রতি ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) জানাইয়াছে, ২০১৬ সালের জুন মাসে ৫২৪টি খাদ্যপণ্যের মধ্যে ১৩২টিতেই অতিরিক্ত মাত্রায় কেমিক্যাল ব্যবহার করা হইয়াছে। অন্যদিকে মহাখালী পাবলিক হেলথ ইনস্টিটিউটের খাদ্য পরীক্ষাগারের তথ্যানুযায়ী, দেশের ৫৪ ভাগ খাদ্যপণ্য ভেজাল ও দেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।
খাদ্যপণ্যে ভেজাল মেশানোটা রীতিমতো অঘোষিত নিয়মে পরিণত হইয়াছে। অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন, ভেজালের বেপরোয়া দাপটের মধ্যে আসল পণ্য খুঁজে পাওয়াটাই দুরূহ হইয়া পড়িয়াছে। বিশেষজ্ঞরা বলিতেছেন, ক্ষতিকারক ইথোফেন, কার্বাইড, রাইপেন ও অন্যান্য রাসায়নিক ফল পাকানোর কাজে ব্যবহার নিষিদ্ধ। অথচ মৌসুমি ফল আম ও কলা পাকানোর কাজে দেদারসে ফলের আড়তসমূহে এইসব ব্যবহার করা হইতেছে। শুধু আম কিংবা কলা নহে, লিচু বড় করিবার জন্য ব্যবহার করা হয় ম্যাগনল, জোবাস এবং কোরবান নামক কেমিক্যাল। গাছ হইতে যেন লিচু ঝরিয়া না পড়ে, তাহার জন্য ব্যবহার করা হয় ক্ষতিকর সিনথেটিক পাইরয়েড। পুষ্টি ইনস্টিটিউট হইতে জানা যায়, সবজিতে মেশানো হইতেছে ডাইমেটওয়েট, এসিপামিপ্রিড ও মেথালিক্সিন জাতীয় কীটনাশক। বাজারের খোলা গুঁড়া হলুদ-মরিচে মেশানো হয় ক্লোরেপাইরিফিস ও আলফাটক্সিন। দুনিয়া জুড়িয়া ডিডিটির ব্যবহার নিষিদ্ধ হইলেও নানা রকম শুঁটকিতে মিশানো হয় ডিডিটি ও অ্যালড্রিন। খাদ্যপণ্যে রং মেশানো আইনত সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। অথচ ব্রেড, বিস্কুট, সেমাই, নুডলসসহ সবরকম মিষ্টিতে টেক্সটাইল-লেদারের রং, মুড়িতে ইউরিয়া-হাইড্রোজেনের অবাধ ব্যবহার চলিতেছেই।
শুধু ভেজাল খাদ্য গ্রহণের ফলে দেশে প্রতি বত্সর প্রায় তিন লক্ষ লোক ক্যান্সারে আক্রান্ত হইতেছেন বলিয়া মনে করেন অনেক বিশেষজ্ঞ। ইহা ছাড়াও ভেজাল খাদ্যের জন্য ডায়াবেটিস আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লক্ষ, কিডনি রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ। অন্যদিকে গর্ভবতী মায়ের শারীরিক জটিলতাসহ গর্ভজাত বিকলাঙ্গ শিশুর সংখ্যা প্রায় ১৫ লক্ষ, যাহার নেপথ্যে ভূমিকা রাখিতেছে ভেজাল খাদ্য। কোনো কোনো বিশেষজ্ঞের আশঙ্কা, বিষাক্ত ও ভেজাল খাদ্যপণ্য রোধ করা সম্ভবপর না হইলে দেশে ক্যান্সার আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হইতে ১২ শতাংশ বৃদ্ধি পাইবে। খাদ্যপণ্যে ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহারে ক্যান্সার সৃষ্টি ছাড়াও তাহা হূদযন্ত্রকে দুর্বল করিয়া দেয়, মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা হ্রাস করে, পাকস্থলিতে অস্বাভাবিকভাবে অম্লতা বাড়াইয়া দেয়।
সরকার নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ প্রণয়নের পাশাপাশি বাংলাদেশ ফুড সেফটি অথরিটি গঠন করিয়াছে। এখন জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নিরাপদ খাদ্য ও ভোক্তা অধিকার আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত করিতে হইবে। পাশাপাশি সচেতন থাকিতে হইবে ভোক্তাদেরও। নচেত্ ভেজাল খাদ্য সংস্কৃতি আমাদের ধ্বংস করিবে তিলে তিলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here