পেটে খাবার নেই তাই রাস্থা দখল করে বিক্ষোভ করেছে যশোরের শত শত নারী পুরুষ, বাড়ছে করোনার ঝুকি

0
354

ডি এইচ দিলসান : করোনা সংক্রামক ঝুকি নিয়ে সামাজিক দুরত্ব না মেনে যশোরে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে খাদ্য বঞ্চিত শত শত নারী পুরষ। সোমবার সকালে করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া যশোর পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়াডের্র রেলগেট পশ্চিমপাড়ার বাসিন্দারা যশোর-বেনাপোল সড়কের রেলগেট এলাকায় ১ ঘন্টার বেশি সময় ধরে অবরোধ করে নেতা ও প্রশাসনের কাছে খাদ্য সহায়তার দাবি করে।
বিক্ষোভ চলাকালে বিক্ষুব্ধ লোকজন অভিযোগ করেন, বড় বড় বিল্ডিংয়ে নিয়মিত খাদ্য সহায়তার প্যাকেট যাচ্ছে, অথচ তাদের মতো কর্মহীন দিনমজুররা আজ পর্যন্ত কোন খাদ্য সহায়তা পাননি। এসময় তারা অভিযোগ করেন, খাদ্য সহায়তার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে বারবার ধর্ণা দিয়েও কোন কাজ হচ্ছে না। বাধ্য হয়েই তারা রাস্থায় নেমে এসেছেন। এদিকে বিক্ষোভের খবর পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা আখতারের নেতৃত্বে সেনা ও পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে যায়। মাইকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা আখতার বিক্ষুব্ধ লোকজনকে ঘরে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করলেও তারা বিক্ষোভ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাদের আশ্বাস দেন যে, বিক্ষুব্ধ সবার তালিকা তৈরি করে তাদের বাড়িতে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেওয়া হবে। এমন আশ্বাসের পর বিক্ষুব্ধ নারী-পুরুষ সড়ক থেকে অবরোধ তুলে ঘরে ফিরে যান।
বিক্ষোভকারীদের এক জন রওশন আলী বলেন, যারা আওয়ামীলীগের নেতা গোতা তারা বস্থা বস্থা খাবার পাচেছ, আর আমরা না খেয়ে মরে গেলাম। তিনি বলেন, আমরা একদিন কাজে না গেলে পর দিন আর চুলায় আগুন জলে না, বউ ছেলে মেয়ে না খেয়ে মরতে বসেছে, কেউ আমাদেও মুখে চারটা চাল ডাল ছুড়েও মারছে না। তিনি বলেন আমরাও তো ভোট দিয়ে মেওয়ার বানাইছি, আমরা কেন না খেয়ে মরবো। আমাদেও জন্য প্রধানমন্ত্রী যে খাবার দিচ্ছে তা সব চাল চোরেরা খেয়ে ফেলছে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা আখতার বলেন, সরকার এসব কর্মহীনদের জন্যই খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে। তাদের তালিকা তৈরি করে বাড়িতে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেওয়া হবে বলে তাদের আশ্বস্ত করেছি। তারা বিষয়টি অনুধাবন করে বিক্ষোভ বন্ধ করে বাড়িতে ফিরে গেছেন।