খুলনার কয়রা উপজেলায় আ’লীগ-ছাত্রলীগের সংঘর্ষে আহত ১৮

0
339

খুলনা ব্যুরোঃ খুলনার কয়রা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের সভা চলাকালে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত ১৮ জন আহত হয়েছে। জানাগেছে, ১০ জানুয়ারী সকাল ১১টায় দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভা চলাকালে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল সভাস্থলে এসে উপস্থিত হন। জেলার এই নেতার উপস্থিতিতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য চলাকালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দলীয় কার্যালয়ের পিছনে দু গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে ১৮ জন আহত হয়েছে বলে দুই পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। গুরুতর আহত ৫ জনকে উপজেলা স্বাস্থকেন্দ্রে ভর্তি করা হয় এবং অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।
সূত্র জানায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় কুমার সরদার ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলামের দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। গতকাল বুধবার সকালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দলীয় কার্যালয়ের পিছনে উভয় গ্র“প সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার এক পর্যায়ে সংঘর্ষকারীরা একে অপরকে চেয়ার ও ইট-পটকেল দিয়ে আঘাত করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি।
কয়রা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এস এম শফিকুল ইসলাম বলেন, সভা চলাকালে কিছু দুষ্কৃতিকারী সভার কার্যক্রমকে ব্যাহত করার জন্য পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়ে ৯ জন যুবলীগ, ছাত্রলীগ কর্মীকে আহত করেছে।
কয়রা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জিএম মোহসিন রেজা বলেন, জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক থানা আওয়ামী লীগকে না জানিয়ে অনাকাঙ্খিত ভাবে সভায় হাজির হওয়াতে অতি উৎসাহী কিছু লোক আমার কর্মী সমর্থকদের উপর হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্র লীগের ৯ জন কর্মীকে কুপিয়ে আহত করেছে।
জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল বলেন, অনুষ্ঠানে বিশৃংখলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কয়রা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ এনামুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিবাদমান দুগ্রুপের আধিপত্যের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here