খুলনার ভৈরব নদের ৬ নম্বর ঘাট এলাকা মাদক ব্যবসায়ীদের অভয়াশ্রম

0
457

খুলনা ব্যুরো : ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে এখানে নির্মিত সংযোগ সড়ককে কেন্দ্র করে নির্মাণ করা হয়েছিল বিনোদন কেন্দ্র। কিন্তু সেখানে এখন মাটি, ইট, বালু, পাথর, সিমেন্ট, সার এবং পরিত্যক্ত যানে ভরে রয়েছে। আনাগোনা বাড়ছে মাদক বিক্রেতা এবং সেবীদের। ফলে বিনোদনপ্রেমীদের আনাগোনা কমতে শুরু করেছে পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ।

ভৈরব নদের ৬ নম্বর ঘাটের তীর বাঁধাই জোড়াগেট সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়। যেখানে ওয়াকওয়ে, সৌন্দর্য পিপাসুদের জন্য বসার বেঞ্চ ও নদের তীর বাঁধাই করা হয়। যা গত বছরের ৬ জুন উদ্বোধনও করা হয়েছে সে কাজের। যদিও সেখানে এখনও চলছে উন্নয়নের কাজ।
অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এখন এলাকায় আনাগোনা বাড়ছে মাদক বিক্রেতা এবং সেবীদের। ওয়াকওয়ে ভরে রয়েছে মাটি, ইট, বালু, পাথর, সিমেন্ট, সার এবং পরিত্যক্ত যানে। মাদকসেবীদের নিরাপদ স্থানে রূপান্তরিত হয়েছে এ এলাকা। যদিও সন্ধ্যার পর এখানকার পরিবেশ হয় আরও ধোঁয়াশা। দিনে বা রাতে সব সময় এ রোডে চলাচল করে ভারী যানবাহন। ধূলাবালিতে ভরে যায় এলাকা।
ইয়াবা, ফেন্সিডিল, হেরোইন, মদ, বিয়ার, গাঁজাসহ প্রাণঘাতি মাদকদ্রব্যে সয়লাব হয়ে গেছে গোটা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন। বিশেষ করে ইয়াবার প্রকোপ এতো বেশি যে, সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীর লোকজন এমনকি মহিলারাও এ নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ছেন। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী আসক্ত হওয়ার পাশাপাশি জড়িয়ে পড়ছে মাদক ব্যবসায়।
নানা কৌশলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে, কখনও ‘ম্যানেজ’ করে, বিভিন্ন স্থানে প্রকাশ্যে চলছে মাদক বিক্রি। এ এলাকার শতাধিক যুবক ভ্রাম্যমাণ মাদক ব্যবসার সাথে যুক্ত।
কোন কারণ ছাড়াই কিছু স্থানীয় ছেলেরা এসে উৎপাত করে। একটু ভদ্রতা দেখাতে গেলে খোয়াতে হয় মানিব্যাগ, মোবাইল ফোন। সাথে লাঞ্ছিতও হতে হয় তাদের কাছে।
এদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালিয়ে যে পরিমাণ মাদক উদ্ধার করে তার চেয়ে কয়েক’শ গুণ বেশি মাদক বেচা কেনা হয়। মাঝে মধ্যে অভিযানে কিছু সংখ্যক মাদক সেবী ও মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার হলেও এ ব্যবসার মূল হোতারা থাকে ধরা ছোঁয়ার বাইরে।
খুলনার এক সরকারি অফিসে কর্মরত মোঃ নাসিম বলেন, আমি আমার পরিবার নিয়ে বেড়াতে গিয়েছিলাম ঘাট এলাকায়। কিন্তু সেখানে দখল আর মাদকের আখড়ায় পরিণত হয়েছে বলে আমার কাছে মনে হয়েছে। তিনবার বসার বেঞ্চ পরিবর্তন করেও অবস্থা খারাপ বুঝে চলে আসি।
২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শামসুজ্জামান মিয়া স্বপন বলেন, এ এলাকায় এখনও কিছু উন্নয়নের কাজ চলছে। যার ফলে কিছু মালামাল হয়তো বিছিন্নভাবে রাখা হয়েছে। যা কাজ শেষ হলে সরিয়ে নেওয়া হবে। এখানে মাদকের কিছু উৎপাত রয়েছে। পুলিশ ধরে আবার ফিরে এসে মাদক বিক্রি করে এবং সেবন করে। কাটিং পার্টির খবর আমার জানা নেই। তবে মাদকের সাথে যারা যুক্ত রয়েছে তারা এ কাজ করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here