খুলনা বিভাগে কারারক্ষী নিয়োগে নির্বাচনী কমিটির বিরুদ্ধে দূর্নীতির খবর

0
229

এম আর রকি : খুলনা বিভাগে কারারক্ষী নিয়োগে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর অজানা কাহিনী। ২৬ এপ্রিল থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পর গতকাল ২ এপ্রিল ৭ দিনেও চুড়ান্ত করতে পারেনি কারারক্ষী নির্বাচনী পরীক্ষা কমিটি। কারাগার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন,রক্ষী নিয়োগে যশোর কারগারের স্কুলের শিক্ষক হাবিলদার আশরাফ,যশোর কারাগারে কর্মরত খাদ্য গোডাউনে রক্ষী সাহাবুল, জহুরুল, খুলনা জেলা কারাগারে কর্মরত নুরুজ্জামান লিংক হিসেবে কাজ করেছেন। তারা মাথা পিছুু নূন্যতম ১৩ থেকে ১৫ লাখ টাকা দর তুলে সংগ্রহ করেছেন বেশ কয়েকজন প্রার্থীদের। সূত্রগুলো আরো জানায়,গত ২৬ এপ্রিল সকালে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের মাঠে প্রথম দফায় মাপঝোকের কাজ সম্পন্নর পর লিখিত পরীক্ষা তার পর মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। মৌখিক পরীক্ষা সম্পন্নর পর এক পর্যায় রক্ষী নিয়োগের বিষয়টি মেধাবী ও নিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় চুড়ান্তর এক পর্যায় হঠাৎ যশোর কারাগারের রক্ষী মতিন,আজাদ,সাতক্ষীরা জেলা কারাগারে কর্মরত রক্ষী কিবরিয়া মল্লিক,যশোর কারাগারের স্কুলের শিক্ষক হাবিলদার আশরাফ,কারাগারের খাদ্য গোডাউনে কর্মরত সাহাবুল,রক্ষী জহুরুল,খুলনা কারাগারের নুরুজ্জামানের সংগ্রহ করা সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা প্রার্থী পেয়ে দিশেহারা হয়েছে পড়েছেন নিয়োগ কমিটির সভাপতি,সদস্যসহ অন্যান্যরা। তাই দেশের অন্যান্য বিভাগের কারারক্ষী নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেও খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় পুরুষ কারারক্ষী নিয়োগে দূর্নীতির কারনে গতকাল মঙ্গলবার ৭ দিনের সম্পন্ন হয়নি। খুলনা বিভাগে রক্ষী নিয়োগে সভাপতি হিসেবে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার জাহানারা খাতুন, সদস্য হিসেবে গোপালগঞ্জ জেলা কারাগারের সুপার ইকবাল হোসেন,বাগের হাট জেলা কারাগারের সুপার গোলাম দস্তগীর ও যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলা আবু তালেব সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কারাগারে কর্মরত কয়েকজন কর্মচারী জানান,ইকবাল হোসেন,গোলাম দস্তগীর খুলনা বিভাগের কারাগার গুলিতে দায়িত্ব পালনের সুযোগে এই অঞ্চলে তাদের একটি বড় লিংক রয়েছে। যার কারনে তাদের দৃষ্টিভঙ্গী নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। অপর সূত্রগুলো বলেছে,এবারের খুলনা বিভাগে কারারক্ষী নিয়োগ কমিটি প্রথম থেকে হোঁচট খেতে শুরু করেন। তার কারণ রক্ষী নিয়োগে যাতে দূর্নীতি কোন ভাবে ফাঁস না হয় তার জন্য তারা যশোরের প্রতিমন্ত্রী থেকে শুরু করে বেশ কয়েকজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের তদ্বীরে তারা বড় চাপের মধ্যে পড়ার অপপ্রচার চালায়। এই কমিটি এতিম,মুক্তিযোদ্ধা থেকে চাকুরী নিয়োগ বিধিতে যে সব কোটা রয়েছে সব ক্ষেত্রে টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে। সূত্রগুলো জানিয়েছেন,যাদেরকে এবার রক্ষী নিয়োগে চুড়ান্ত করা হচ্ছে তাদের ব্যাপারে অতিগোপনে খোঁজ নেওয়া হলে জানাযাবে রক্ষী নিয়োগপত্র নিশ্চিত করতে তাদের কত টাকা গুনতে হয়েছে। দূর্নীতি খবর পাওয়া পর নিয়োগ কমিটির সভাপতিসহ অন্যান্যদের সাথে যোগাযোগের জন্য তাদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাদের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এই দূর্নীতির অভিযোগের পক্ষে তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তাই অবিলম্বে খুলনা বিভাগে রক্ষী নিয়োগে দূর্নীতির আশ্রয় নেওয়া হয়েছে তাই এই নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল করে পুনরায় নিয়োগ প্রক্রিয়া চালু করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রার্থীরা কারা মহা পরিদর্শকের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here