ডি আই জির আদেশ উপেক্ষা করে সরকারী মোবাইল ফোন ব্যবহার কছেন স্ট্যান্ড রিলিজ ইমাউল হক

0
415

এম আর রকি, যশোর : অবশেষে জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হককে স্ট্যান্ড রিলিজ করে বাগেরহাট জেলায় বদলী করা হয়েছে। স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশকে উপেক্ষা করে বুধবার বিকেল পর্যন্ত তিনি সরকারী মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাছাড়া,ইমাউল হকের বিরুদ্ধে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর অজানা কাহিনী।
খুলনা রেঞ্জের উপ-মহা পুলিশ পরিদর্শকের কার্যালয়ের নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাগেছে,গত ২৫ জুন রোববার প্রজ্ঞাপন নং ৯৮৫ তারিখঃ২৫/০৬/১৭ স্মারক নং জিএ-০২/৭৫২৪/৮ তারিখঃ২৫/০৬/১৭ ইং অপরাহ্নে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হককে জনস্বার্থে স্ট্যান্ড রিলিজ করে বাগেরহাট জেলায় বদলীর আদেশ দেন খুলনা রেঞ্জের উপ-মহা পুলিশ পরিদর্শক দিদার আহমেদ।যশোর পুলিশ অফিসে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ যশোরে পৌছানের কিছুক্ষন পূর্বে তিনি ওই দিন যশোর পুলিশ সুপারের কাছ থেকে ৩ দিনের ছুটি নিয়ে যশোর ত্যাগ করেন। সূত্রটি দাবি করেছেন,ছুটিতে যাওয়ার সাথে সাথে তিনি সরকারী মোবাইল নাম্বারটি তিনি ব্যবহার করেছেন। তার কারণ ২৫ জুন সন্ধ্যায় জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অফিসার ইনচার্জের সরকারী নাম্বারে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেন। ছুটিতে যাওয়ার সময় চার্জ অফিসার হিসেবে পুলিশ পরিদর্শক সোমেন দাসের কাছে সরকারী নাম্বার দেওয়ার কথা থাকলেও তিনি নিজেই অনিয়মতান্ত্রিক পন্থায় সরকারী নাম্বার ব্যবহার করেছেন। শুধু তাই নয় সূত্রটি আরো দাবি করেছেন,২৭ জুন পুলিশ পরিদর্শক ইমাউল হকের ৩ দিনের ছুটি শেষ হলেও তিনি উপ মহা-পুলিশ পরিদর্শকের স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ অনুসরণ না করে ২৮ জুন বুধবার বিকেলে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) সরকারী নাম্বার ব্যবহার করেছেন। যশোরের একজন সাংবাদিক সরকারী নাম্বারে ফোন করলে তিনি রিসিভ করে ওসি ইমাউল হক বলে জানান। এ ব্যাপারে খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি দিদার আহমেদের সরকারী নাম্বারে ফোন করে স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান,আমি আদেশ দিয়েছি জেলার এসপি তার ব্যবস্থা করবেন। জেলার এসপি’র সাথে যোগাযোগের পরামর্শ দেন।স্ট্যান্ড রিলিজের ব্যাপারে জানতে চেয়ে যশোরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ আবু সরোয়ারের সরকারী নাম্বারে ফোন করা হলে তিনি বুধবার বিকেলে জানান, তিনি যশোরের বাইরে রয়েছেন ডিবি’র অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হকের স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ পাননি। খুলনা রেঞ্জ অফিসের নির্ভরযোগ্য সূত্রে আরো জানাগেছে, গত ২৫ জুন থেকে পুলিশ পরিদর্শক ইমাউল হক বাগের জেলার পুলিশ হিসেবে গন্য হবেন। রেঞ্জ অফিসের সূত্রগুলো আরো জানান,যশোর সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ টিএসআই রফিকুল ইসলামকে ২৭ জুন স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ দিয়ে ঢাকা রেঞ্জে পাঠানো হয়েছেন।
সূত্রগুলো দাবি করেছেন,যশোরের জেলা গোয়েন্দা শাখার মতো গুরুত্বপূর্ন পুলিশের দপ্তরে জামায়াত বিএনপি’র আগ্রাসন মুক্ত হতে চলেছে অতিদ্রুতই। তার কারণ পুলিশ পরিদর্শক ইমাউল হক তৎকালীন বিএনপি’র স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের নিদের্শে ৬ মাসের প্রশিক্ষনে গড়া পুলিশের এসআই পদে ২০০৫ সালের শেষ ব্যাচ। বাবরের ষ্পেশাল ব্যাচের অগ্রনী ভূমিকায় ছিলেন ইমাউল হক ওরফে ইমামুল হক নবীন। সূত্রগুলো আরো জানান, ইমাউল হক ২০০৩ সালে সিলেটের শাহ জালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কমিটির সহ-সভাপতি-৭ হিসেবে এবং ২০০৪ সালে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে সদস্য নং-৪৩ ছিলেন কমিটিতে। তিনি কমিটিতে দায়িত্ব পালন কালে ইমামুল হক ওরফে নবীন লিখিয়েছেন। ইমামুল হক ওরফে ইমাউল হক নবীনের কমিটিতে জাতীয়বাদী ছাত্রদলের ওই সময়কার কেন্দ্রীয় সভাপতি শাহাবুদ্দিন লাল্টুসহ সাধারণ সম্পাদক যিনি দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের স্বাক্ষর রয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটির অনুমোদনে কমিটিতে। নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো আরো জানান,২০০৩ সালে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয়বাদী ছাত্রদলের এক নেতা খুনের ঘটনায় বেকায়দায় পড়েন যান ইমামুক হক । যার কারনে তাকে সহ-সভাপতি-৭ থেকে নামিয়ে এক বছরের ব্যবধানে সদস্য-৪৩ স্থান দেওয়া হয়। পুলিশের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন,বর্তমান সরকার বিরোধী সংগঠনের তৎকালীন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে নেতার দায়িত্ব পালন করে কিভাবে বর্তমান সরকারের সন্ত্রাস জঙ্গী,মাদক বিরোধী অভিযানের ভূমিকা হিসেবে যশোরের পুলিশের গোয়েন্দা শাখায় দায়িত্ব পালন করেছেন? এটা খতিয়ে দেখার আহবান জানিয়েছেন খোদ পুলিশের বিভিন্ন সূত্রগুলো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here