খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে অবৈধ যানবাহনের রামরাজত্ব: একসপ্তাহে প্রাণ গেছে শিশুসহ ৫ ব্যক্তির

0
337

ডিএম কামরুল ইসলাম সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়ক অবৈধ যানবাহন, থ্রি-হুইলার, নছিমন, করিমন, ভটভটি, ট্রলি, ইজিবাইক, বিদ্যুৎচালিত ভ্যানের রামরাজত্ব। প্রতিদিনই ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা এমনকি প্রাণহানী। গত এক সপ্তাহে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কে মদনপুর, চুকনগর ও সাতক্ষীরা-যশোর সড়কে কলারোয়া এলাকায় এ অবৈধ যানবাহনের ৪ যাত্রীসহ এক শিশু সড়ক দূর্ঘটনার শিকার হয়ে নিহত হয়েছে। প্রতিদিনই এমন সংবাদ সংবাদপত্রে ফলাওভাবে প্রকাশিত হলেও এর থেকে পরিত্রাণের জন্য কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। সরেজমিন এ প্রতিবেদন তৈরীর পূর্বে জানা গেছে, ঘাটে ঘাটে চাঁদাবাজি, অবৈধ শ্রমিক সংগঠন, পুলিশ বিআরটিএর কর্মকর্তারা এর সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। প্রতিদিনই সাতক্ষীরার বিনেরপোতা এলাকায় ট্রাফিক পুলিশের একটি দল অবৈধ যানবাহন নিয়ন্ত্রণে টহল দিলেও তাদের সামনে হাজার হাজার অবৈধ গাড়ি হরহামেশাই চলাচল করছে। এর জন্য নছিমন, করিমন, ভটভটি, ইজিবাইক, থ্রিহুইলার মালিকগণকে নিয়মিত মাশোয়ারা দিয়ে স্লিপও নিতে হয়। এসমস্ত কারণে মহাসড়ক অনেকটাই মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সড়কের বেশিরভাগ জায়গা জুড়ে বিদ্যুৎচালিত ভ্যানের পরিমাণ এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে, যানজট তো লেগেই আছে তারউপর নানা দূর্ঘটনায় পঙ্গুত্ব বরণ করছে শত শত মানুষ। অনুসন্ধানে আরো জানা গেছে, বৈধ লাইসেন্স, রুট পারমিট সবকিছু থাকতেও ট্রাফিক পুলিশকে মাশোয়ারা বা চাঁদা না দিয়ে সড়কে চলতে পারে না বৈধ যানবাহনও। সাতক্ষীরার খুলনা রোড, নারিকেলতলা মোড়, আমতলা মোড়, বিনেরপোতা, ত্রিশমাইল, পাটকেলঘাটা বলফিল্ড, ওভারব্রীজ, কুমিরা বাসস্ট্যান্ড, কুমিরা মহিলা কলেজ মোড়, মির্জাপুর বাজার, নওয়াপাড়া বাজার, শুভাষিনী বাজার ও মদনপুর বাজার সহ অন্তত ৫০টি বাসস্ট্যান্ডে জায়গা দখল করে মহাসড়কের উপরেই বীরদর্পে দানবযন্ত্রগুলি নির্ভিঘেœ যাত্রী ওঠানামা করছে। ফলে সবজায়গায় যানজট সারাক্ষণ লেগেই থাকে। বিশেষকরে পাটকেলঘাটা ওভারব্রীজের উপর মহাসড়কে প্রায় কোয়ার্টার কিলোমিটার দখল করে কয়েকজন দালাল নিয়মিত মাশোয়ারা ও দৈনিক চাঁদা নিয়ে তাদের বৈধতা দিচ্ছে। এ বিষয়ে নোয়াকাটি গ্রামের পথযাত্রী জানিয়েছেন, গত ৯ মার্চ দুপুর ৩ টায় বাড়ি যাওয়ার পথে লোকনাথ ক্লিনিকের সামনে হতে পাটকেলঘাটা কপোতাক্ষ ব্রীজ পার হতে প্রায় ৪৫ মিনিট সময় লেগেছে যানজটের কারণে। আর অবৈধ যানবাহনের মহাসড়কে চলার কাজে সহযোগীতা করছে সংশ্লিষ্ট এলাকার পুলিশ। অনুসন্ধানে অবাক হওয়ার মতো তথ্য বেরিয়ে এসেছে একটি বেসরকারী এনজিও সংস্থার জরীপ মতে সাতক্ষীরা জেলার সড়ক মহাসড়ক সহ ছোটবড় সব সড়কে একক আধিপত্য বিস্তার করেছে ১০ হাজারেরও বেশি বিদ্যুৎচালিত ভ্যান। এর থেকে দারিদ্র্যতা কিছুটা দূরীভূত হলেও প্রতিবছর শতাধিক ব্যক্তির প্রাণহানি সহ পঙ্গুত্ব বরণ করছে ৫ শতাধিক। অপরদিকে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৮ সালের মধ্যে বাংলার প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার যে ভিশন তুলে ধরেছে তা অনেকটাই ভেস্তে যেতে পারে বিদ্যুৎ চালিত টেম্পু ও ভ্যানের কারণে। এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সদরের সুলতানপুর গ্রামের বাসচালক আবুল হোসেন (৫০), পাটকেলঘাটা এলাকার বিল্লাল হোসেন (৪০) সহ একাধিক বৈধ গাড়ি চালক এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, প্রতিদিনই বিদ্যুৎচালিত ভ্যানের কারণে নানা বিড়ম্বনার শিকার হতে হয় মহাসড়কে। এছাড়া অনেকটাই কৌতুহল বশত বলেন, গোপালগঞ্জে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিদ্যুৎচালিত ভ্যানের চালক বিমানবাহিনীতে যোগদান করেছে। আর বিদ্যুৎচালিত ভ্যান সংরক্ষিত হয়েছে যাদুঘরে। একারণেই কি অবৈধ যানবাহনগুলি মহাসড়কের বৈধতা পেয়েছে এমনটি প্রশ্ন জনসাধারণের মনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here