খুলনা ৬, কে পাচ্ছেন আগামির নৌকার টিকিট : নবিন নাকি প্রবিন?

0
363

খুলনা ব্যুরো : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খুলনা-৬ আসনে (পাইকগাছা-কয়রা) ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগেরর মনোনয়ন দৌড়ে প্রবিন-নবীনদের ব্যপক গনসংযোগ অব্যহত। কে পাবেন সেই সোনার টিকিট? কে হবেন আগামি সংসদ নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী? নবিন প্রবিন মিলে ৬ জন প্রার্থী ব্যপক গনসংযোগ করে চলেছেন। নেতা-কর্মিরা তাদের পরবর্তী অবিভাবক নির্বাচনে চেয়ে আছে কেন্দ্রের দিকে।
নবীন প্রবিন মনোনয়ন প্রত্যাশিদের তালিকায় শির্ষে আছেন বর্তমান সংসদ আলহাজ্ব এ্যাডঃ শেখ মোঃ নুরুল হক। তিনি ৯৬ সালে প্রথম এমপি নির্বাচিত হয়ে পাইকগাছা-কয়রায় ব্যপক উন্নয়ন করেন। ১৪ সালে বিনাভোটে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে নানা অনিয়ম, দূর্নিতি,দখল বানিজ্য সহ এহনো কাজ নেই তিনি করেননি। তিনি বার বার দেশি ও আন্তজাতিক মিডিয়ার শিরোনাম হয়েছেন। উপায়ন্ত নাপেয়ে দলের হাইকর্মান্ড তাকে ডেকে ভর্ষনা পর্যন্ত করছেন। ফলে তার গ্রহনযোগ্যতা এলাকায় ব্যপক হ্রাস পেয়েছে। তারপরো তিনি হাল ছাড়েননি জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন মনোনয়ন পেতে।

মনোনয়ন দৌড়ে আরো আছেন প্রবিন আ’লীগ নেতা সাবেক সংসদ এ্যাডঃ সোহরাব আলী সানা। তিনি ২০০৮ সালে নির্বাচিত হওয়ার এলাকায় তিনি বেশ উন্নয়ন করেন। তার নাম ভাঙ্গিয়ে অনেক নেতা বিভিন্ন ধরনের কাজ করলেও তিনি সেটা শক্ত হাতে দমন করতে না পারলোও তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। কেন্দ্র এবং দু’উপজেলায় তার বেশ জনপ্রিয়তা আছে। এলাকায় তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে গনসংযোগ করছেন প্রতিনিয়ত।
মনোনয়ন দৌড়ে বসেনেই সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যন মোঃ রশীদুজ্জামান মোড়ল। তিনি উপজেলা আ’লীগের সদস্য সচিব, কর্মি বান্দব নেতা হিসেবে তার ব্যপক সুনাম রয়েছে। দলীয় নেতা-কর্মীদের বিপদ আপদে তিনি সবার আগে যান। দলীয় বিভিন্ন প্রগামে তিনি উপজেলার একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত চষে বেড়ান। তিনিও ব্যপক গনসংযোগ করে চলেছেন। প্রবিন প্রার্থীদের সঙ্গে পাল্লাদিয়ে গনসংযোগ করে চলেছেন তরুন ও নতুন প্রর্থীরা। নিজেদের অবস্থান যানানদিতে প্রানপন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। নতুন প্রার্থীরা জোর লবিং গ্রুপিং চালাচ্ছে কেন্দ্র থেকে মাঠ পর্যায়ের দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে। প্রবিনদের থেকে খুব বেশি দুরেনেই নতুন প্রার্থীরা।
নতুনপ্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এ্যাডঃ শেখ মোঃ নূরুল হকের বড় ছেলে আলহাজ্ব শেখ মনিরুল ইসলাম, দলীয় ভাবে তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য। এরআগে তিনি ১৯৯৬, ২০০১, ২০০৮ ও ২০১৪ সালের নির্বাচনে আ’লীগের দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে তার পিতার সাথে মনোনয়ন সংগ্রহ করেন। তিনিও তার পিতার ন্যায় বার বার বিতর্কত এবং মিডিয়ার শিরোনাম হয়েছেন বার বার এমনকি কয়েকটি মামলা প্রধান আসামি হয়েছেন। তারপরও আগামী নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছেন।
আরেক তরুণ প্রার্থী হলেন, খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আকতারুজ্জামান বাবু, তিনি জেলা ছাত্রলীগ ও জেলা যুবলীগের সাধারন সম্পদক হিসেবে দীর্ঘদিন পদে থাকলেও তার বিরুদ্ধে কোন ক্লেম নেই বল্লেই চলে। তিনিও দীর্ঘদিন প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে আসছেন দু’উপজেলায়।
আ’লীগের সম্ভাব্য অপার প্রার্থী হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার প্রেম কুমার মন্ডল, এর আগে তিনি মনোনয়ন না চাইলেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনি দু’উপজেলার সর্বত্রই নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি অল্প দিনে দলীয় নেতা-কর্মীদের মন জয় করতে পেরেছেন।এবং এলাকার সাধানর মানুষের সাথে তার বেশ ভাব গড়ে উঠেছে।তিনি কেন্দ্র থেকে শুরুকরে জনসাধারনের সাথে মিশে চলতে পারছেন ভালই।
আগামি সংসদ নির্বাচনে কে হাসবে শেষ হাসি? কে পাবেন আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন? সেই চুলচেরা বিশ্লেষন চলছে এলাকার সর্বত্র। তবে দলীয় মনোনয়ন বোর্ড যাকেই মনোনয়ন দিবে সকলে মিলে সকল ভেদাভেদ ভূলে দলীয় প্রার্থির পক্ষে কাঁধে কাঁধ মিলিলিয়ে কাজ করে নৌকা প্রতিকের বিজয়ে কাজ করবে এমনটা প্রত্যাশা দলীয় সাধারন নেতা-কর্মীদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here