খুলে গেল যশোরে নির্মিত দেশের বৃহত্তম ভাসমান সেতু

0
938

উত্তম চক্তবর্তী : যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড়ে নির্মিত দেশের বৃহত্তম ভাসমান সেতুটি ফিতাকেটে উদ্ধোধনের মাধ্যমে খুলে দেওয়া হয়েছে ৷
মঙ্গলবার বিকালে যশোরের জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দীন ফিতাকেটে ব্রিজটি উদ্ধোধন করেন ৷ অনুষ্ঠানে ঝাঁপা ইউনিয়ন ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের নেতা সামছুল হক মন্টু’র সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন মণিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওবায়দুর রহমান,সাবেক ছাত্রলীগ নেতা কামরুল হাসান বারী,চালুয়াহাটি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হামিদ সরদার, রাজগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল লতিফ, রাজগঞ্জ বাজার কমিটির সভাপতি আবুল বাসার, ঝাঁপা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাষ্টার খোরশেদ আলম, সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা কওছার আহমেদ,স্থানীয় আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা সরদার আলাউদ্দিন, মশিউল আলম, রাজগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি, কৃষক লীগ নেতা গোলাম রসুল চন্টা,আওয়ামী লীগের নেতা আকরাম হোসেন খান, চালুয়াহাটী ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক এম.এম ইমরান খান পান্না,ঝাঁপা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক সোহেল রানা,আওয়ামী লীগ নেতা মাস্টার সাইদুজ্জানান লিটন, উপজেলা যুবলীগ নেতা শিপন সরদার, ঝাঁপা ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক রবিউল ইসলাম রবি, ছাত্রলীগ নেতা টিটু, জাহাঙ্গীর আলম বাপ্পিসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ, ছাত্রলীগসহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মিরা উপস্থিত ছিলেন৷ উল্লেখ্য, স্বাধীনতার ৪৬ বছর পার হলেও বৃহত্তম ঝাঁপা গ্রামের ২০ হাজারেরও বেশি বাসিন্দাদের কষ্টের কথা ভাবেনি কোন জনপ্রতিনিধি৷ কিন্তু ঝাঁপা গ্রামের স্কুল শিক্ষক আসাদুজ্জামান নিজ উদ্যোগে কয়েক বছর ধরে জল্পনা কল্পনা করে ২০১৭ সালের ১৯শে জানুয়ারী এলাকার কিছু যুবককে নিয়ে একটি মিটিং করে ভাসমান সেতু নির্মানের পরিকল্পনা করেন৷ ৫৬ জন যুবক একত্রিত হয়ে গ্রামবাসীর অর্থায়নে শুরু করে সেতু নির্মান কাজ৷
নির্মানের জন্য মেহেদী হাসান টুটুলকে সভাপতি মনোনিত করে গঠিত কয়েছে সেতু বাস্তবায়ন কমিটি। কমিটির সহ-সভাপতি আব্দুল কাদের, সাধারণ সম্পাদক লিটন, সহ-সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক শাহাদাৎ হোসেন, কোষাদক্ষ মোশাররফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুজ্জামান, সদস্য মাওলানা নুরুল হক, আবু মুছা, আক্তারুজ্জামান, শ্রী অসিম কুমার, আসাদুজ্জামান প্রমুখ ৷ ২০ হাজারেরও বেশি মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা ভেবেই সেচ্ছা শ্রমে এই ৫৬জন যুবকের ১০০০ ফুট ভাসমান সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করেন৷ সেতুটি ভাসমান রাখার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে তেলের প্লাষ্টিক ড্রাম।
১০০০ফুট সেতুতে ব্যবহার করা হয়েছে ৮৩৯টি ড্রাম৷ যাতে পানি প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য ড্রামের মুখে থ্রেট টেফ দিয়ে আটকানো হয়েছে৷ ফ্রেম তৈরি করা হয়েছে লোহার এঙ্গেল দিয়ে। ফ্রেমের দুই পাশে দু’সারি ড্রাম দিয়ে পানিতে ভাসান হয়েছে সেতু৷ সেতুতে এঙ্গেল ও পাত ব্যবহার হয়েছে ২০টন৷ পাটাতনের সিট ব্যবহার হয়েছে ১৩টন৷ এপর্যান্ত ব্যায়ের হিসাব জানতে চাইলে উদ্যোক্তা আসাদুজ্জামান বলেন, সব মিলে খরচ প্রায় ৬০ লক্ষ টাকা হয়েছে৷ পারাপারের বিষয়ে কোন টোল আদায় হবে কিনা জানতে তিনি বলেন, আগের নিয়মই থাকবে নৌকায় যেমন পারাপার হতো সেই ভাবেই পারাপার হবে৷ জানতে চাইলাম ঝাঁপা গ্রামের আসলাম শেখের কাছে সেতুটি নির্মাণের ফলে আপনারা কি উপকৃত হবেন, তিনি বলেন নৌকায় পারাপারে অনেক সময় ডুবে গিয়ে অনেক ছাত্রছাত্রী পরীক্ষাও দিতে না পেরে বছর লস হয়েছে, অনেক কৃষি পণ্য পার করতে গিয়ে ডুবে নষ্ট হয়েছে, কেউ অসুস্থ হলে পার করতে সময়ের কারণে মৃত্যু হয়েছে, এ সমস্ত পরিস্থিতির থেকে পরিত্রাণ হবে বলে মনে করেন তিনি৷
কোমলপুরের আতিয়ার রহমান বলেন, সব চেয়ে বড় কথা হল আসা যাওয়ার যোগাযোগ ব্যবস্থা হল৷ অনেক সময় দুরদুরান্ত থেকে ফিরতে রাত হলে পার হওয়া নিয়ে চিন্তা করতে হয়, ঘাটে নৌকা থাকে না, এছাড়া এলাকার উন্নয়ন হবে৷
এলাকার সচেতন মহলরা বলছেন, আজ পর্যন্ত কোন জনপ্রতিনিরা ঝাঁপা গ্রামের মানুষের কথা ভাবেনি, নেয়নি কোন উদ্যোগ৷ ঝাঁপাবাসী স্বাধীন দেশের নাগরিক হয়েও উন্নয়ন বঞ্চিত৷ তাই তারা নিজ উদ্যোগেই নির্মাণ করছে দেশের দীর্ঘতম তাদের স্বপ্নের ভাসমান সেতু ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here