খেলাধুলার কারণে অনেক খেলোয়াড় বিভিন্ন বাহিনীতে সরকারি চাকরিসহ ভবিষ্যত গড়ে নিচ্ছেন – এমপি মাশরাফি

0
100

নড়াইল প্রতিনিধি : বাংলাদেশ আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের সফল অধিনায়ক মাশরাফী বিন মর্তুজা বলেছেন, শুধুমাত্র খেলাধুলার কারণে অনেক খেলোয়াড় বিভিন্ন বাহিনীতে সরকারি চাকরি পেয়েছেন। খেলার মাধ্যমে তাদের ভবিষ্যত গড়ে নিচ্ছেন। পাশাপাশি তারা পরিবারকে সচল রাখছেন। নড়াইলে খেলাধুলার প্রতি আগ্রহী খেলোয়াড়দের জন্য নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ৬৫লক্ষ টাকা ব্যয়ে বেসরকারি পর্যায়ে নির্মিত জেলার একমাত্র অত্যাধুনিক ফিটনেস সেন্টার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় তিনি এসব কথা বলেন।
নড়াইল সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের ৬ষ্ঠ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ওই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশফাকুল হক চৌধুরী, ফিটনেস সেন্টারের পৃষ্ঠপোষক আইপিডিসি ফাইন্যান্সের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও মমিনুল ইসলাম, জেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, নড়াইল পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা, নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম অনিক, জেলা আ’লীগের উপদেষ্টা ও এমপি মাশরাফির বাবা গোলাম মোর্ত্তুজা স্বপন প্রমুখ।
নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সভাপতি এমপি মাশরাফী বলেন, ‘আইপিডিসি ফাইন্যান্সের পৃষ্ঠপোষকতায় আমার হাতেগড়া বাংলাদেশের একমাত্র সম্পূর্ণ অলাভজনক স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান হচ্ছে “নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন”। এই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে আমরা যে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পেরেছি; এটাই আমাদের স্বার্থকতা। আমাদের ছেলেরা নিয়মিত ২য় বিভাগ ক্রিকেট খেলছে। তবে, জাতীয় পর্যায়ে খেলোয়াড় তৈরি সময়ের ব্যাপার।’
তিনি আরো বলেন, ‘এই ফাউন্ডেশন শুধু খেলা-ধূলায় অবদান রাখছে না। মহামারী করোনাকালীন সময়ে অনেক স্বেচ্ছাসেবী জীবন বাজি রেখে রোগীদের সেবা করেছেন। এভাবে সকলের পরিশ্রমে ফাউন্ডেশনটি এগিয়ে চলছে। এ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নড়াইল হবে প্রজন্মের শ্রেষ্ঠ বাসস্থান।’
প্রসঙ্গত, নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ও আইপিডিসির সহায়তায় ২০১৮ সাল থেকে নড়াইল জেলার তৃণমূল পর্যায় থেকে মেধাবী ফুটবল, ক্রিকেট এবং ভলিবল খেলোয়াড় অন্বেষণ ও বাছাই করে সারা বছর প্রশিক্ষণের কাজ চলছে। অত্যন্ত সফলভাবে তিনজন প্রশিক্ষক এ কাজটি করে যাচ্ছেন। প্রত্যেক ইভেন্টে ২৫ জনকে নিয়ে সারা বছর এ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলছে।