খেলাপি ঋণের ঝুঁকিতে ব্যাংকিং খাত

0
214

নিজস্ব প্রতিবেদক: খেলাপি ঋণের ঝুঁকিতে পড়েছে বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত। সবচেয়ে বেশি খারাপ অবস্থা সরকারি ব্যাংকগুলোর। দেশের মোট খেলাপি ঋণের প্রায় অর্ধেকই সরকারি আট ব্যাংকে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, খেলাপি ঋণের পরিমাণ প্রায় এক লাখ ১৮ হাজার কোটি টাকা। যা জিডিপির (মোট দেশজ আয়) ১২ শতাংশ। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, খেলাপি ঋণের পরিমাণ জিডিপির ১২ শতাংশ হয়ে যাওয়া, রীতিমত ভয়ানক বিষয়। এ ধরনের প্রবণতা ব্যাংকিং খাতসহ গোটা অর্থনীতিকেই চরম সমস্যার মধ্যে ফেলে দিতে পারে। তাই খেলাপি ঋণের রাশ টেনে ধরতে শিগগির কার্যকরি পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। তা না করে খেলাপি ঋণের ভার সইতে না পারা সরকারি ব্যাংকগুলোকে পুনঃমূলধনের নামে বছর বছর করদাতাদের টাকা দিয়ে যাওয়া কোনোভাবেই ঠিক হবে না।

এসব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, খেলাপি ঋণ দিন দিন যেভাবে বাড়ছে, এটা উদ্বেগজনক বিষয়। খেলাপি ঋণ এতো পরিমাণে বেড়ে গেলে ব্যাংকের অনেক টাকা আটকে যায়। এতে ব্যাংকগুলোর ঋণ দেওয়ার ক্ষমতা কমে যেতে পারে। মূলধন ঘাটতি হতে পারে। তাছাড়া খেলাপি ঋণ বেশি হলে অনেক টাকা প্রভিশন রাখতে হয়। ফলে ব্যাংকগুলো এ খরচ সামাল দিতে ঋণের সুদ কমাতে পারে না। এতে নতুন উদ্যোক্তাদের উপর চাপ পড়ে। কারণ নতুন উদ্যোক্তারা উচ্চ সুদে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করতে গেলে সমস্যায় পড়ে। এছাড়াও খেলাপি ঋণের বহুমুখী নেতিবাচক প্রভাব পড়ে ব্যাংকিং খাতে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে বিভিন্ন সুযোগ দেওয়া হয়েছে। অল্প অর্থ জমা দিয়েই ঋণ পুনঃতফসিল করা যাচ্ছে। ঋণ পুনর্গঠনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এরপরও দিন দিন ঋণ খেলাপির পরিমাণ বাড়ছে। এর কারণ হিসেবে তারা বলছেন, রাজনৈতিক প্রভাবে দেওয়া ঋণগুলো বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই খেলাপি হয়ে যায়। তাছাড়া দেশে গ্যাস-বিদ্যুতের সংকটেও অনেক শিল্প উদ্যোক্তা ঠিকভাবে ঋণ পরিশোধ করতে পারছেন না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, মার্চশেষে দেশের ব্যাংকিং খাতে মোট ঋণের পরিমাণ প্রায় সাত লাখ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৭৩ হাজার ৪০৯ কোটি টাকা। অর্থাত্ মোট ঋণের প্রায় ১১ শতাংশই খেলাপি। এর সঙ্গে অবলোপনকৃত খেলাপি ঋণের প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকা যোগ করলে প্রকৃত খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় এক লাখ ১৮ হাজার কোটি টাকা। মোট ঋণের তুলনায় খেলাপি ঋণের পরিমাণের দিক থেকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম সারিতে। এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের পরই বাংলাদেশের অবস্থান। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অল্প কিছু ঋণ খেলাপি গোটা ব্যাংকিং খাতকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে। বর্তমানে মোট খেলাপি ঋণের ৩৫ শতাংশই নিয়েছে ১২০ জন।

এবারই প্রথম জাতীয় সংসদে শীর্ষ একশ ঋণ খেলাপির নাম প্রকাশ করা হয়েছে। এ ধরনের প্রবণতাকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন অর্থনীতিবিদরা। তবে তারা বলছেন, নাম প্রকাশ করা হলেও তাদের কাছ থেকে টাকা উদ্ধারের বিষয়ে কোনো পদক্ষেপের কথা বলা হয়নি, এটি হতাশার। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, একাধিক প্রভাবশালী ঋণ খেলাপির টাকা পরিশোধ না করেই সিআইবি (ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো) থেকে তাদের নাম প্রত্যাহারের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংককে চাপ দিচ্ছে। এ বিষয়ে সরকারের কঠোর হতে হবে। নইলে ব্যাংকিং খাতে খারাপ নজির সৃষ্টি হবে।

বাংলাদেশের মোট দেশজ উত্পাদন (জিডিপি) স্থির মূল্যে ৯ লাখ ৪৭ হাজার ৫৪২ কোটি টাকা। এ হিসাবে প্রকৃত খেলাপি ঋণের পরিমাণ জিডিপির ১২ দশমিক ৪৫ শতাংশ। অথচ পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে এ হার অনেক কম। ভারতের জিডিপির পরিমাণ দুই দশমিক ০৭৪ ট্রিলিয়ন ডলার (প্রায় ২ লাখ ৭ হাজার ৪০০ কোটি ডলার)। আর তাদের খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১৫৪ বিলিয়ন ডলার (১৫ হাজার ৪০০ কোটি ডলার)। অর্থাত্ ভারতের জিডিপির ৭ দশমিক ৪৩ শতাংশ খেলাপি ঋণ। যা বাংলাদেশ থেকে অনেক কম। এরপরও ভারত সরকার খেলাপি ঋণ নিয়ে বেশ চিন্তিত। তারা খেলাপি ঋণ আদায়ে কঠোর নীতি গ্রহণ করেছে। এমনকি ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঋণ খেলাপিকে বিদেশ থেকে কূটনৈতিক প্রক্রিয়ায় তুলে আনার নজিরও স্থাপন করেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ২০১১ সাল শেষেও দেশের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ২২ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা, যা ওই সময় পর্যন্ত বিতরণকৃত ঋণের ৬ দশমিক ১২ শতাংশ। এরপর থেকেই বেশি হারে বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ। খেলাপি ঋণ বাড়তে থাকায় সরকারি ব্যাংকগুলো মূলধন ঘাটতিতে পড়ছে। তাই পুনঃ মূলধনের নামে এ ব্যাংকগুলোকে টাকার যোগান দিতে হচ্ছে।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) গবেষণা বলছে, ২০০৮-০৯ থেকে ২০১৫-১৬ পর্যন্ত এই আট বছরের মধ্যে সাত বছরই পুনঃ মূলধনের নামে ব্যাংকগুলোকে দেওয়া হয়েছে ১১ হাজার ৭০৫ কোটি টাকা। আর ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে দিয়েছে দুই হাজার কোটি টাকা। অর্থাত্ ৯ অর্থ বছরে সরকার প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা যোগান দিয়েছে সরকারি ব্যাংকগুলোকে। করের টাকায় খেলাপি ঋণের এ অর্থের যোগান দেওয়াকে নৈতিকভাবে সমর্থন করেন না অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, এভাবে সরকারি ব্যাংকগুলোকে টাকা দেওয়া হলে করদাতারা নিরুত্সাহিত হবেন। তা ছাড়া সরকারি ব্যাংকগুলোও খেলাপি ঋণ বন্ধে কঠোর হবে না। আর এখানে টাকা দিতে না হলে এই টাকা সরকার শিক্ষা, স্বাস্থ্য তথা সামাজিক খাতে ব্যয় করতে পারতো।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, এক সময় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতেই খেলাপি ঋণের সংস্কৃতি সীমাবদ্ধ ছিল। এখন বেসরকারি ও বিদেশি খাতের ব্যাংকগুলোর মধ্যেও তা ছড়িয়ে যাচ্ছে। ফলে ব্যাংকগুলো দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়নে যেতে ভয় পাচ্ছে। এতে দেশের ব্যাংকিং খাতে লক্ষ কোটি টাকার অতিরিক্ত তারল্য সৃষ্টি হয়েছে।

খেলাপি ঋণ কমানোর উপায় হিসেবে ড. সালেহউদ্দিন বলেন, এ ব্যাপারে সরকারের সমন্বিত এবং কঠোর উদ্যোগ নিতে হবে। দায়সারা পদক্ষেপ নিলে হবে না। প্রয়োজনে ঋণ খেলাপিদের জামানত নিয়ে নিতে হবে। এ ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থায় যাওয়া যেতে পারে। আইনের দ্বারস্থ হলে ব্যাংককে সেখানেও মনোযোগী হতে হবে। যেনতেনভাবে আইনজীবী নিয়োগ করলে টাকা আদায় হবে না।

SHARE
Previous articleআরও দুইদিন বৃষ্টি থাকবে
Next articleমুম্বাইয়ে ভবনধস, নিহত ১৭
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here