খোদাপ্রেমের অনন্য মাস রমজান (পর্ব-১)

0
318

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : মহান আল্লাহর কাছে অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি যে তিনি আমাদেরকে আরও একবার পবিত্র রমজান নামক তাঁর মহান রহমত, বরকত ও ক্ষমা তথা মাগফিরাতের এক অসীম মহাসাগরের তীরে উপস্থিত হওয়ার সৌভাগ্য দান করেছেন।

পবিত্র রমজানের প্রেমময় এই মহাসাগরে ভ্রমণ এবং এই মহাসাগরের মনি-মু্ক্তা ও অন্য সব দামী সম্পদ আহরণের জন্য যোগ্যতা অর্জন জরুরি। এ যোগ্যতা অর্জনের জন্য জরুরি জ্ঞান ও সচেতনতা অর্জনে মহান আল্লাহর কাছেই তৌফিক কামনা করছি।

রমজানের রমজ শব্দটির অর্থ হল দহন। মানব জীবনে কুপ্রবৃত্তির বিনাশ বা দহন জরুরি। সোনা যেমন আগুনে পুড়ে খাঁটি হয় তেমনি রোজাও কুপ্রবৃত্তিগুলোকে পুড়িয়ে মানুষকে করে খাঁটি মানুষ। ফলে সে হতে পারে আল্লাহর প্রতিনিধি এবং মহান আল্লাহর সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার যোগ্য বান্দা। আর আত্মিক উন্নতির মাধ্যমে সে পেতে পারে মহান আল্লাহর সাক্ষাত বা নৈকট্য।
রোজা বা সওম-এর অর্থ হল কোনো কিছু থেকে বিরত থাকা বা সংযম সাধনা। কুরআনের সুরা বাকারার ১৮৩ নম্বর আয়াতে সিয়াম (সওমের বহুবচন) সম্পর্কে বলা হয়েছে: ‘হে ঈমানদারগণ! তোমাদের উপর রোজা ফরয করা হয়েছে, যেরূপ ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী লোকদের উপর, যেন তোমরা খোদাভীতি বা তাকওয়া অর্জন করতে পার।’ (২:১৮৩)

রমজান মাসে ইরানি শিশুরা
রমজান খোদাপ্রেমে বিভোর হওয়ার প্রশিক্ষণের মাস। কারণ এই মাসে খোদার প্রেমিক হওয়া অন্য যে কোনো মাসের চেয়ে বেশি সহজ। অবশ্য যারা খোদা-প্রেমের পথে বেশি অভিজ্ঞ ও সচেতন তারা রমজান শুরু হওয়ার আগেই খোদা-প্রেমের এই বিশেষ অভিসারের জন্য প্রস্তুত হতে থাকেন। এ জন্যই বিশ্বনবী (সা) রজবের চাঁদ উঠলে দোয়া করতেন হে আল্লাহ আমাদের রজব ও শাবান মাসের বরকত দান করুন এবং আমাদেরকে রমজান পর্যন্ত পৌঁছে দিন। ‘

মুসলমানদেরকে পবিত্র রমজান মাসের অশেষ বরকত সম্পর্কে সচেতন করার জন্য রমজানের প্রাক্কালে কোনো এক শাবান মাসের শেষ শুক্রবারে রাসুলে পাক (সা) তাঁর এক বিখ্যাত ভাষণে বলেছিলেন: “হে মানুষ! নিঃসন্দেহে তোমাদের সামনে রয়েছে আল্লাহর বরকতপূর্ণ মাস। এ মাস বরকত, রহমত বা অনুগ্রহ ও ক্ষমার মাস। এ মাস মহান আল্লাহর কাছে শ্রেষ্ঠ মাস। এ মাসের দিনগুলো সবচেয়ে সেরা দিন, এর রাতগুলো শ্রেষ্ঠ রাত এবং এর ঘন্টাগুলো শ্রেষ্ঠ ঘন্টা। এ মাস এমন এক মাস যে মাসে তোমরা আমন্ত্রিত হয়েছ আল্লাহর মেহমান হতে তথা রোজা রাখতে ও প্রার্থনা করতে। তিনি তোমাদেরকে এ মাসের ভেতরে সম্মানিত করেছেন। এ মাসে তোমাদের প্রতিটি নিঃশ্বাস মহান আল্লাহর গুণগান বা প্রশংসা বা জিকরের সওয়াবের সমতুল্য; এ মাসে তোমাদের ঘুম প্রার্থনার সমতুল্য, এ মাসে তোমাদের সৎকাজ এবং প্রার্থনা বা দোয়াগুলো কবুল করা হবে। তাই মহান আল্লাহর কাছে আন্তরিক ও পাপ আর কলুষতা হতে মুক্ত পবিত্র চিত্তে প্রার্থনা করো যে তিনি যেন তোমাদেরকে রোজা রাখার এবং কোরআন তিলাওয়াতের তৌফিক দান করেন। নিঃসন্দেহে সে ব্যক্তি প্রকৃতই দূর্ভাগা বা হতভাগ্য যে রমজান মাস পেয়েও মহান আল্লাহর ক্ষমা হতে বঞ্চিত হয়। এ মাসে ক্ষুধা ও তৃষ্ণার মাধ্যমে কিয়ামত বা শেষ বিচার দিবসের ক্ষুধা ও তৃষ্ণার কথা স্মরণ কর। অভাবগ্রস্ত ও দরিদ্রদেরকে সাহায্য কর ও সদকা দাও।’
ইফতার সামগ্রী
একই ভাষণে মহানবী (সা) আরও বলেছেন, ‘রমজান মাসে বয়স্ক ও বৃদ্ধদেরকে সম্মান কর এবং শিশু ও ছোটদেরকে আদর কর। রক্তের সম্পর্কের আত্মীয় স্বজনের সাথে সম্পর্ক ও যোগাযোগ রক্ষা কর। তোমাদের জিহ্বাকে অন্যায্য বা অনুপযোগী কথা বলা থেকে সংযত রাখ, নিষিদ্ধ বা হারাম দৃশ্য দেখা থেকে চোখকে আবৃত রাখ, যেসব কথা শোনা ঠিক নয় সেসব শোনা থেকে কানকে নিবৃত রাখ। এতীমদেরকে দয়া কর যাতে তোমার সন্তানরা যদি এতীম হয় তাহলে তারাও যেন দয়া পায়। গোনাহর জন্যে অনুতপ্ত হও ও তওবা কর এবং নামাজের সময় মোনাজাতের জন্যে হাত উপরে তোলো, কারণ নামাজের সময় দোয়া কবুলের শ্রেষ্ঠ সময়, এ সময় মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদের দিকে রহমতের দৃষ্টিতে তাকান, এ সময় কেউ তাঁর কাছে কিছু চাইলে তিনি তা দান করেন, কেউ তাঁকে ডাকলে তিনি জবাব দেন, কেউ কাকতি-মিনতি করলে তার কাকতি মিনতি তিনি গ্রহণ করেন।’

খুতবায়ে শাবানিয়্যা নামে খ্যাত ভাষণে মহানবী (সা) আরও বলেছেন, ‘হে মানুষ! তোমরা তোমাদের বিবেককে নিজ কামনা-বাসনার দাসে পরিণত করেছো, আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে একে মুক্ত করো। তোমাদের পিঠ গোনাহর ভারে ভারাক্রান্ত হয়ে আছে, তাই সিজদাগুলোকে দীর্ঘায়িত করে পিঠকে হালকা করো। জেনে রাখ মহান আল্লাহ নিজ সম্মানের শপথ করে বলেছেন, রমজান মাসে নামাজ আদায়কারী ও সিজদাকারীদেরকে শাস্তি বা আজাব দিবেন না এবং কিয়ামতের দিন তাদেরকে দোযখের আগুন থেকে রক্ষা করবেন।’

মহান আল্লাহ আমাদেরকে বিশ্বনবী (সা)’র এইসব উপদেশ মেনে চলার তৌফিক দান করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here