‘গগনে গরজে মেঘ, ঘন বরষা’

0
331

‘গগনে গরজে মেঘ, ঘন বরষা’র ধারে-কাছেও না; চৈত্রের শেষে যখন কাঠফাটা রোদ্দুরে মাঠঘাট চৌচির থাকার কথা, তখনই নেমে এলো ঘোর বর্ষণ। পাহাড়ে অকস্মাৎ অতিবৃষ্টিতে নদীগুলো অসময়ে খরস্রোতা হয়ে ঢল নামিয়ে দিল। হাওরের কৃষকদের ধান কাটার অবকাশই দিল না। সবুজ পাতার ধানগাছ পাকার আগেই চোখের সামনে ভাসিয়ে নিয়ে গেল। রবীন্দ্রনাথ তার বিখ্যাত ও বহুল আলোচিত কবিতাগুলোর অন্যতম ‘সোনার তরী’তে বর্ণনা করেছেন- কাটিতে কাটিতে ধান এল বরষা। আমাদের পদ্মাপারে নিজের দেখা বর্ষার রূপকে রূপক হিসেবে নিয়ে অতি উঁচু মানে দার্শনিক ভাবসমৃদ্ধ কবিতায় বলেছেন, মহাকাল মানুষের কীর্তিকর্ম সবই গ্রহণ করে, কাল থেকে কালে প্রবাহিত করে কিন্তু মানুষটিকে নেয় না; মানুষের কাজেরই মূল্য, তার অহংয়ের কোনো মূল্য নেই। কিন্তু হাওরের অকাল বন্যা কৃষকের ফলানো ফসল ধ্বংস করল, কৃষককে সর্বস্বান্ত করল। প্রকৃতির খেয়ালের সঙ্গে মানুষের বেখেয়ালের সম্পর্ক আছে এই বিপর্যয়ের পেছনে। প্রকৃতি একা দায়ী নয়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের যে কর্মকর্তাদের বাঁধ তৈরি, বাঁধ রক্ষণাবেক্ষণ, প্রয়োজনে মেরামতের দায়িত্ব; তারা সময়ের কাজ সময়ে করেননি। তাদের সংবৎসরের কাজে দুর্নীতির ঘোরতর অভিযোগ থাকে। সরকার দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে। ব্যবস্থাটা শক্ত করে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি আমরা। তাদের শাস্তি প্রাপ্য। কী ব্যবস্থা নেওয়া হলো, তা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকসহ জনগণকে জানাতে হবে। নেপথ্যের কারসাজিতে তদন্তের পর তদন্তের গোলকধাঁধায় যেন ব্যবস্থা গ্রহণ হারিয়ে না যায়।
দেশের উত্তর-পূর্বাংশের হাওর বিস্তৃত সাতটি জেলায়, যেগুলো সবই কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে- সুনামগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া। হাওরে ছয় লাখ টন বোরো ধান নষ্ট হয়েছে বলে প্রাথমিক হিসাব। এর পর মাছ, হাঁস ও গবাদিপশুর ক্ষতি তো রয়েছেই। হাওরের উজানে তো পাহাড় ও পাহাড়ি নদী আছে। ঢল প্রতি বছরই কমবেশি হয়। এবার বিপর্যয়কর হয়েছে। হাওরের পরেই দুঃসংবাদ এলো সমতল এলাকা নাটোর, পাবনা ও সিরাজগঞ্জ জেলায় বিস্তৃত দেশের বিখ্যাত জলাভূমি চলনবিল থেকে। করতোয়া-আত্রাই অববাহিকার এই বিল বর্ষাকালে আদিগন্ত ডুবে থাকা দেখায়; কিন্তু শুষ্ক মৌসুমে ধান, আলু, বাদাম ফসলে মানুষের প্রাণ ভরিয়ে দেয়। অতিবর্ষণের ফলে নদীতে চাপ বাড়লে গত সোমবার এখানেও বাঁধ ভেঙে পড়ে বখতিয়ারপুরে বিল দহরে। জেলা প্রশাসনের হিসাবে, দেড় হাজার হেক্টর জমির ধান ও কিছু অংশে চাষ করা বাদাম তলিয়ে গেছে। আরও দুঃখজনক যে, আগাম বর্ষা বলে পুরোপুরি পাকার আগেই অনেক কৃষক ধান কেটে তুলতে চাইলেও দ্রুত মজুর পাওয়া যাচ্ছে না। বাংলাদেশের প্রধান দুটি শস্যভাণ্ডার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হাওর ও পশ্চিমাঞ্চলের চলনবিলে হাজার হাজার হেক্টরের বোরো ধান বিনষ্ট হওয়া দেশের খাদ্য-অর্থনীতির জন্য বড় আঘাত বলে বিবেচিত হচ্ছে। হাওর ও চলনবিল উভয় স্থানে খাদ ভরাট হচ্ছে। শুধু বাঁধের প্রশ্ন নয়, নদী খনন করে নাব্য রাখতে হবে বন্যার পানি সরে যাওয়ার জন্য।
অতীতে বৃষ্টিপাতের ওপর নির্ভরশীল কৃষির যুগে আউশ, আমন ও বোরো_ তিন জাতের ধান ঋতু অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ে চাষ হতো। সেচের ওপর নির্ভরশীল উচ্চ ফলনশীল ধান চাষের ক্ষেত্রে তার হেরফের হয়েছে। উচ্চ ফলনশীল ধান ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার এ দেশকে বাঁচিয়েছে। আর হাওর-বিলকে বেঁধেছে বাঁধ দিয়ে। এ জন্য প্রকৃতিও মাঝে মধ্যে আমাদের সঙ্গে অভিমান, রাগারাগি করবে। এই নিয়ে জীবন। প্রকৃতির প্রতি সংবেদনশীল থাকার কথা আমরা ভুলে গেলে প্রকৃতিও আঘাত করে আমাদের স্মরণ করিয়ে দেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here