গণতন্ত্রের সৌন্দর্য

0
318

মুশতাক আহমেদ হেলাল : গণতন্ত্রের মূলমন্ত্র হচ্ছে বাক স্বাধীনতা। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা, সংগঠিত হবার স্বাধীনতা, রাজনৈতিক দল গড়ার স্বাধীনতা সবই বাক স্বাধীনতার আওতাভুক্ত।

গণতন্ত্র বলতে শুধু পাঁচ বছর পর পর নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তনকেই বোঝায় না। গণতন্ত্রের সংজ্ঞা ও পরিধি অনেক ব্যাপক ও বিস্তৃত। আমাদের দেশে নির্বাচনের পর পরই সূক্ষ্ম কারচুপি, স্থূল কারচুপি ইত্যাদি নানা অভিযোগ ওঠে। ক্ষমতাসীন সরকারগুলোর অধীনে কেউ নির্বাচন করতে চায় না। অভিযোগ, সরকারগুলো নির্বাচনকে প্রভাবিত করে। তাই নির্বাচনের পূর্বে, কেউ চায় তত্ত্বাবধায়ক সরকার, কেউ চায় দল-নিরপেক্ষ সরকার, কেউ-বা চায় সহায়ক সরকার ইত্যাদি। অথচ গণতান্ত্রিক দেশগুলোতে নির্বাচিত সরকারসমূহের অধীনেই সুষ্ঠু নির্বাচন হয়। প্রশ্ন উঠতে পারে, ওইসব দেশ, যেমন ইউরোপ, আমেরিকা এমনকি ভারতেও নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ ওঠে না কেন? কারণ ওইসব দেশে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলো অত্যন্ত শক্তিশালীরূপে দাঁড়িয়ে গেছে। সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে, নির্বাচন কমিশন, বিচার বিভাগ, দুর্নীতি দমন কমিশন ইত্যাদি। এর বাইরেও ওইসব দেশে শক্তিশালী প্রশাসন যন্ত্রের উপর রাজনৈতিক দলগুলোর প্রভাব খুবই কম। এই যে গতবার ভারতে নির্বাচন হয়ে গেল, কংগ্রেস হেরে গেল— বিজেপি জিতল, কিন্তু কেউ প্রশ্ন তোলেনি সূক্ষ্ম কিংবা স্থূল কারচুপি হয়েছে। কংগ্রেসের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং অবলীলায় বিজেপির নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে দিলেন। অথচ আমাদের দেশ হলে তুলকালাম কাণ্ড বেধে যেত। সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে পূর্ণাঙ্গ স্বাধীন করা ছাড়া সবার কাছে গ্রহণযোগ্য কারচুপিবিহীন নির্বাচনের অন্য কোনো পন্থা নেই।

ফরাসি বিপ্লবের প্রধান পুরুষ ভলতেয়ার গণতন্ত্র সম্পর্কে বলেছিলেন, তোমার মতের সাথে আমি ভিন্ন মত পোষণ করতে পারি, কিন্তু তোমার মত প্রকাশের স্বাধীনতার জন্য আমি আমার জীবন দিতে প্রস্তুত। রুশো, ভলতেয়ার, মন্টেস্কু এসব দার্শনিকই ফরাসি বিপ্লবের দিক নির্দেশনা দেন এবং ফ্রান্সে ফরাসি বিপ্লবের সূচনা হয়। যদিও ব্রিটেনে প্রথম গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, তবুও ফরাসি বিপ্লবের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত ‘প্যারি কমিউন’ ছিল সত্যিকারের গণতন্ত্রের উদাহরণ। ফরাসি বিপ্লবে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি ঐক্যবদ্ধ হয়ে ষোড়শ লুই তথা রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়েছিল। কিন্তু বিপ্লবের অল্প কিছুদিন পর মধ্যবিত্ত শ্রেণি শ্রমিক শ্রেণি কর্তৃক গঠিত ‘প্যারি কমিউন’ ভেঙে দেয়। এরপরও নেপোলিয়নের উত্থান পর্যন্ত ফ্রান্সে গণতন্ত্র টিকে থাকে।

সাধারণত কোনো আদর্শগত বিপ্লব বা যুদ্ধের পর পরাজিত পক্ষের জন্য গণতন্ত্রের পথটি উন্মুক্ত থাকে না। যেমন থাকেনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর হিটলারের নাত্সী পার্টির জন্য। আজও নাত্সী পার্টির জীবিত দু-একজনকে যদি পৃথিবীর কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়—তাদের জন্য দণ্ড অবধারিত। জার্মানিতে যদিও অত্যন্ত সুন্দর ও আধুনিক গণতন্ত্র বিরাজ করছে কিন্তু নািস পার্টির জন্য তা নিষিদ্ধ।

সাতচল্লিশে ভারতবর্ষের স্বাধীনতার সময়ে সারাদেশই স্বাধীনতার স্বপক্ষে ছিল। স্বাধীনতার বিপক্ষ শক্তি বলে কারো অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। ভারতে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ছাড়া কমিউনিস্ট পার্টি বা অন্য আরও দুই-একটি রাজনৈতিক দল বা গ্রুপের অস্তিত্ব ছিল। কিন্তু সত্যিকারের বিরোধী দল বলতে যা বোঝায়, তা ছিল না। কিন্তু স্বাধীনতার পর প্রথম নির্বাচনের সময় জওহরলাল নেহরু একটি সত্যিকারের বিরোধী দলের প্রয়োজনীয়তা গভীরভাবে অনুভব করেন। এবং তা অনুভব করেন দেশে সত্যিকারের সংসদীয় গণতন্ত্র বিকাশের জন্য। কেরালায় কমিউনিস্ট পার্টির কিছুটা অস্তিত্ব ছিল। কিন্তু স্বাধীনতার পর পর নির্বাচনে জনমতের তোড়ে কমিউনিস্ট পার্টির অস্তিত্ব বিলুপ্ত হবার অবস্থা তৈরি হয়। জওহরলাল নেহরু তাঁর কর্মীদের নির্দেশ দেন, কেরালায় যেন কমিউনিস্ট পার্টি জয় লাভ করে। তিনি বলেছিলেন, তোমরা কমিউনিস্ট পার্টিকে ঠেকাবে না—ওদের জিততে দাও—নইলে ভারতে গণতন্ত্র তার অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলবে। সেদিন জওহরলালের উদ্যোগে কেরালায় কমিউনিস্ট পার্টি টিকে গিয়েছিল। আজ কেরালায় কমিউনিস্ট পার্টি যথেষ্ট শক্তিশালী রাজনৈতিক দল। এটাই ভারতের গণতন্ত্রের সৌন্দর্য।

আমাদেরকেও সশস্ত্র লড়াইয়ের মাধ্যমে দেশ স্বাধীন করতে হয়েছে। স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ছাড়াও ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল বা গ্রুপ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। যত ক্ষুদ্রই হোক এদের অবদান ও দেশপ্রেমকে খাটো করে দেখার কোনো অবকাশ নেই।

কিন্তু আমাদের স্বাধীনতার পর, স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগের উচিত ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণকারী ছোট-খাটো রাজনৈতিক দলগুলোকে জওহরলাল নেহরুর মতো সহায়তা দিয়ে টিকিয়ে রাখা এবং বিকশিত হবার সুযোগ দেওয়া। যাতে করে স্বাধীনতার বিকল্প শক্তি হিসেবে এরা দাঁড়াতে পারে। এ কথা অনস্বীকার্য যে, সে সময়ের ক্ষমতাসীন দল স্বাধীনতা সংগ্রামের ক্ষুদ্র দলগুলোর প্রতি অবহেলা প্রদর্শন করে। এ ছাড়াও কমিউনিস্ট পার্টি, ন্যাপ বা জাসদের মতো মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের দলগুলোর ক্রমাগত ভুল-ভ্রান্তি এবং এসব দলে সত্যিকারের কোনো ক্যারিশম্যাটিক নেতৃত্বের অভাবও তাদেরকে মাথা তুলে দাঁড়াতে সহায়তা করেনি।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে পরাজয়ের গ্লানি থেকে জার্মানরা নািস নেতা হিটলারকে নিজেদের নেতা হিসেবে মেনে নেয়। এ যে কতবড় ভুল ছিল, তা শুধু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পরাজয়ের পরই জার্মানরা উপলব্ধি করতে পারে। শুনতে পাই, এখন আবার জার্মানির অলিতে-গলিতে নিও-নািসরা উঁকি-ঝুঁকি মারছে। কে জানে, জার্মানরা যদি আবার ভুল করে নিও-নািসদেরকে ভোট দিয়ে দেয়, তা হলে বিশ্বের কী যে বিপর্যয় ঘটবে তা ভাবতেও ভয় হয়। তেমনি করে বাংলাদেশের জনগণও যদি অ্যান্টি-এস্টাব্লিশমেন্ট সেন্টিমেন্টের কারণে এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের কোনো বিরোধী দল খুঁজে না পেয়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির মতো ভুল করে তা হলে তা বাংলাদেশের হাঁটি-হাঁটি পা-পা গণতন্ত্রের জন্য হবে এক মহাবিপর্যয় এবং দেশ নিপতিত হবে এক নিশ্ছিদ্র অন্ধকারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here