গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পুলিশের ভূমিকা

0
283

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী : কাঁঠালের আমসত্ত্ব এবং সোনার পাথর বাটি নামে দুটি কথা বাজারে প্রচলিত আছে। কিন্তু “গণতান্ত্রিক পুলিশি রাষ্ট্র” প্রথাটির প্রচলন আগে ছিল না। ইন্দোনেশিয়ায় প্রেসিডেন্ট সুকর্নর আমলে কথাটি প্রচলিত হয়। সুকর্ন তার দেশ পরিচালনার জন্য পশ্চিমা গণতন্ত্রের বদলে এক নতুন গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রচলন করতে চেয়েছিলেন। তার নাম দিয়েছিলেন ‘Limited Democracy’ বা সীমাবদ্ধ গণতন্ত্র। তিনি বলেছিলেন, উন্নয়নশীল দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য পশ্চিমা গণতন্ত্র কার্যকর নয়। রাষ্ট্রকে স্থিতিশীল রাখার জন্য সরকারের হাতে ক্ষমতা কিছুটা বেশি রাখা দরকার।

সুকর্নের এই থিয়োরিতে হয়তো যৌক্তিকতা আছে, কিন্তু তা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়নি। তিনি রাজনীতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের হাতে একটু বেশি ক্ষমতা দিয়ে এবং দলীয় রাজনীতিতে পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করতে দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনায় ধীরে ধীরে নিজের নিয়ন্ত্রণ হারাতে থাকেন। তার সমালোচকেরা তার “সীমাবদ্ধ গণতন্ত্রকে” গণতান্ত্রিক পুলিশি রাষ্ট্র আখ্যা দেন। গণতান্ত্রিক বিরোধিতার ক্ষেত্রে শূন্যাবস্থা সৃষ্টি করতে গিয়ে তিনি সামরিক বাহিনীকে সেই শূন্যাবস্থা পূরণের সুযোগ করে দেন। পেছনে মার্কিন সিআইএ’ তো থাবা পেতে ছিলই। শেষ পর্যন্ত সেনাপ্রধান জেনারেল সুহার্তো রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে নেন। বিএনপি জামায়াতের সরকারের আমলে বাংলাদেশও ছিল আধা পুলিশি রাষ্ট্র। র্যাবের হাতে এই সময়েই বিনা বিচারে, ক্রসফায়ারিংয়ের নামে “সন্ত্রাসী” হত্যার অধিকার দেওয়া হয়। বিএনপি সরকারের পেছনে ছিল ক্যান্টনমেন্টের নিয়ন্ত্রণ। অন্যদিকে পুলিশ-বাহিনীকে করে তোলা হয়েছিল বিএনপি’র রাজনীতি পাহারা দেওয়ার লাঠিয়াল। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর এই অবস্থার অনেকটাই পরিবর্তন ঘটানো হয়েছে। পুলিশ বাহিনীতে বিএনপি-জামায়াতের ক্যাডারদের রাজত্বের অবসান ঘটিয়ে পুনর্গঠিত করা হয়েছে। পুলিশ বাহিনীতে আগের মতো দুর্নীতির রাজত্ব নেই। দেশে ভয়াবহ জঙ্গি অভ্যুত্থান দমনে পুলিশ ও র্যাবের সাফল্য এখন সর্বজন প্রশংসিত। কিন্তু বাংলাদেশের পুলিশ তার অতীতের লেগাসি থেকে এখনো সম্পূর্ণ মুক্ত হতে পারেনি। এই লেগাসি হলো ক্ষমতাসীন সরকারের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দমনে বাড়াবাড়ি করা। তাতে একটি গণতান্ত্রিক সরকারকে সাহায্য করা হয় না বরং তার অপকার করা হয়। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে পুলিশকে ক্ষমতার এই বাড়াবাড়ি দেখানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তা আমার বিশ্বাস হয় না। অতীতে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের স্বার্থে দীর্ঘকাল ব্যবহূত হওয়ার ফলে একশ্রেণির পুলিশ কর্মকর্তার মনে এই ধারণা স্থায়ী হতে পারে যে, সরকারকে শুধু প্রশাসনিক সহায়তা দান নয়, রাজনৈতিক সহায়তা দানও তাদের কর্তব্য। দেশে আইন-শৃংখলা রক্ষায় এবং দেশের শত্রু জঙ্গিবাদ দমনে তাদের কঠোরতা অবশ্যই প্রশংসনীয়। কিন্তু রাজনৈতিক সরকারের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের কার্যকলাপ জননিরাপত্তার জন্য বিপজ্জনক না হলে পুলিশকে অবশ্যই সংযত ও পক্ষপাতশূন্য হতে হবে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে পুলিশ বাহিনী অবশ্যই অনেকটা সুগঠিত ও সংহত হয়েছে। কিন্তু অতীতের কলোনিয়াল ও স্বৈরাচারী শাসনামলের বাড়াবাড়ি করার অভ্যাস ও প্রবণতা থেকে পুলিশ বাহিনীকে মুক্ত করার ও মুক্ত রাখার দায়িত্ব অবশ্যই আওয়ামী লীগ সরকারকে পালন করতে হবে। নইলে এই দেশটিরও ‘গণতান্ত্রিক পুলিশি রাষ্ট্রে’ পরিণত হওয়ার আশঙ্কা আছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সবিনয় অনুরোধ তিনি এ সম্পর্কে অবহিত হোন।

সম্প্রতি বাংলাদেশে কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে, যা আমার কাছে দুর্ভাগ্যজনক মনে হয়েছে। প্রথমত, বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অফিসে অকস্মাত্ পুলিশের হানা এবং তল্লাশী চালানো। দ্বিতীয়, আ স ম আবদুর রবের উত্তরার বাসভবনে যখন কয়েকজন বিরোধী দলীয় নেতা রাজনৈতিক আলোচনার জন্য বৈঠক করছিলেন, সেখানে পুলিশের হানা দেওয়া এবং বৈঠকে বাধাপ্রদান। কোনো স্বৈরাচারী সরকারের আমলে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে, কোনো গণতান্ত্রিক সরকারের আমলে নয়।

পুলিশের এই বাড়াবাড়ির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে আওয়ামী লীগের একশ্রেণির কর্মী ও সমর্থকের উচ্ছৃঙ্খলতা। পার্বত্য অঞ্চলে পাহাড় ধসে সম্প্রতি যে ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটে, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের কাছে যাওয়ার পথে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের কর্মী ও সমর্থক বলে পরিচিত এক দল লোকের বিএনপি’র মহাসচিবকে বাধাদান ও তার উপরে হামলা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার জন্য সুখকর নয়। তার উপর গণজাগরণ মঞ্চের নেতা ইমরান সরকার ও তার স্ত্রীর উপর ঢাকায় আদালত পাড়ায় যে হামলা হয়েছে, তা অবশ্যই নিন্দনীয় ঘটনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তি করে মিছিলে শ্লোগান দেওয়ার অভিযোগে দায়ের করা মানহানির মামলায় আদালত থেকে জামিন নিয়ে বের হওয়ার সময় আদালত পাড়াতেই হামলার শিকার হয়েছেন সস্ত্রীক ইমরান সরকার।

অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার আগেই এবং অভিযোগটির বিচার যখন চলছে, তখন আদালত প্রাঙ্গণেই একজন বিশিষ্ট নেতার উপর এই হামলা শুধু গণতন্ত্রের কলঙ্ক নয়, আদালত ও বিচার ব্যবস্থারও অবমাননা। এই দুষ্কৃতকারীরা যদি আওয়ামী লীগের ও ছাত্রলীগের সমর্থক ও কর্মী হয়ে থাকে, তাহলে এই দুই সংগঠনেরই কি উচিত নয়, এই দুষ্কৃতকারীদের চিহ্নিত করা ও সতর্ক করে দেওয়া? শেখ হাসিনা একজন রাজনৈতিক নেত্রী। তার বিরুদ্ধে বিরোধীরা শ্লোগান দিতেই পারে। ব্রিটেনে রাজপথে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র বিরুদ্ধে কি শ্লোগান দেওয়া হয় না? ভারতে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে শুধু শ্লোগান দেওয়া নয়, তার কুশপুত্তলিকাও দাহ করা হয়। ভারতে যখন রাজীব গান্ধী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, তখন তার বিরোধীরা দিল্লিতে মিছিল করে শ্লোগান দিয়েছিল, “গলি গলিমে শোর হায়/রাজীব গান্ধী চোর হায়।” এই মিছিলের লোকজনদের ধরে কি মামলায় ঝোলানো হয়েছিল?

শেখ হাসিনা রাজনীতিতে নেমে অনেক অপবাদ ও মিথ্যাপ্রচার সহ্য করেছেন। তার জীবনের উপর বার বার আঘাতে তিনি বিচলিত হননি। আর তিনি যাবেন, কোন মিছিলে কারা তার বিরুদ্ধে শ্লোগান দিয়েছে, তাদের শাস্তি দিতে? এটা এক শ্রেণির চরিত্রভ্রষ্ট ও সুবিধাবাদী আওয়ামী লীগ কর্মী ও সমর্থকের অতি বাড়াবাড়ি। তারাই নানা সুযোগ-সুবিধার লোভে “নেত্রীর অতিদরদী” সেজে নিজেরা আগ বাড়িয়ে এই ধরনের মামলা-মোকদ্দমা করেন, আদালতপাড়ায় হামলা চালান এবং প্রধানমন্ত্রী ও তার সরকারের সুনাম নষ্ট করেন।

শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে যদি সত্যই কোনো অভব্য ও অবমাননাকর শ্লোগান দেওয়া হয়ে থাকে, তাহলে অবশ্যই তার প্রতিকার হওয়া উচিত। এই প্রতিকারের জন্য অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে এবং অভিযুক্ত আদালতে এসে হাজিরাও দিয়েছেন। এই সময় অভিযুক্তের উপর হামলা কি ন্যায়বিচারের পথে বাধা সৃষ্টি নয়? গণজাগরণ মঞ্চের নেতা বলেছেন, তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কোনো শ্লোগান দেননি। তার মিছিলে কেউ দিয়ে থাকলে সেটা সবসময় নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। এরপরও তাকে একই অভিযোগে একস্থানের আদালতে নয়, দেশের বিভিন্ন স্থানে মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। এটা প্রতিহিংসার রাজনীতি, গণতান্ত্রিক রাজনীতি নয়। আওয়ামী লীগ সরকারের উচিত সময় থাকতে এই সম্পর্কে সতর্ক হওয়া।

সবচাইতে দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটেছে বরিশালে। শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় এক শিশু বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি এঁকে পুরস্কার বিজয়ী হয়। জেলার একজন ইউএনও (উপজেলা নির্বাহী অফিসার) শিশুটিকে উত্সাহিত করার জন্য ছবিটি দিয়ে একটি আমন্ত্রণপত্র ছেপে প্রচার করে। এই নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত কারণে রোষ আছে এমন এক স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা এই বলে মামলা করেন যে, তিনি বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি ছেপে জাতির পিতার অবমাননা করেছেন। এটা শিশুর আঁকা ছবি তা জেনেও তিনি এই মামলা করেন। আর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেফতার করে জেলে ঢোকান। দেশের শিশুদের মধ্যেও যে জাতির পিতার ছবি আঁকার প্রেরণা ও প্রবণতা দেখা দিয়েছে তাকে উত্সাহিত করতে গিয়ে এই নির্বাহী অফিসারের পুলিশের হাতে এই নিগ্রহ! কেন, জেলার ডিসি ও এসপি কি জানতেন না, এক শিশু বঙ্গবন্ধুর এই ছবি এঁকেছে এবং তা চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় পুরস্কৃত হয়েছে? এটা কোনো বিকৃত করে আঁকা ছবি নয়।

এই ভ্রম ধরা পড়ার পর অবশ্য নির্দোষ নির্বাহী অফিসার কারামুক্ত হয়েছেন। কিন্তু ভালো কাজ করতে গিয়ে তাকে দেড় ঘণ্টা জেলে কাটাতে হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই খবর জেনে অত্যন্ত অসন্তুষ্ট হয়েছেন এবং সম্ভবত সংশ্লিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা ও জেলা প্রশাসকদেরও জবাবদিহিতার মুখে পড়তে হবে। পুলিশ ও একশ্রেণির আওয়ামী লীগ কর্মী ও নেতার এই ধরনের বাড়াবাড়ির সব খবর প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে সব সময় জানা সম্ভব নয়। এসব খবর তার গোচরে আনতেই হবে এবং এই ধরনের ক্ষমতার বাড়াবাড়ি ও উপদ্রব আওয়ামী লীগ সরকারকে অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। উন্নয়নের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ সরকারকে প্রমাণ করতে হবে, তারা সুশাসন প্রতিষ্ঠাতেও সক্ষম। নইলে একটি সাধারণ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ ঘর সামলাতে পারবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here