গলা কেটে সেফটি ট্যাংকের ভিতর ফেলে দেয় যশোর পলিটেকনিকের জেসমিনকে, প্রেমের সম্পর্কের অবনতির

0
131

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে নিখোঁজের ১০ দিন পর সেফটি ট্যাংকির ভিতর থেকে জেসমিন আক্তার পিংকি (১৮) নামে এক পলিটেকনিক শিক্ষার্থীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে র‍্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের সদস্যরা। পিংকি সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার কাজিরহাট কাওরিয়া গ্রামের জাকির হোসেনের মেয়ে। তিনি যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ২য় বর্ষের ছাত্রী।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোর র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৬ ) এর কোম্পানি লে কমান্ডার এম নাজিউর রহমান।

শুক্রবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেল তিনটার দিকে শার্শা উপজেলার বুরুজবাগান এলাকার আহসান হাবিবের বাড়ির পশ্চিম পাশে সেফটি ট্যাংকি থেকে জেসমিনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। একই সাথে জেসমিনের হত্যাকারী একই এলাকার আকবর আলীর ছেলে আহসান কবির অংকুরকে (১৮) গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। সে জেসমিনের এক সহপাঠী।

র‍্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার এম নাজিউর রহমান জানান, জেসমিন ও জেসমিনের হত্যাকারী অংকুর উভয়ই যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় জেসমিনকে আসামি অংকুর কৌশল করে তার বাড়িতে নিয়ে এসে গত অনুমান ৯-১০ দিন পূর্বে গলা কেটে হত্যা করে জনশূন্য বাড়ির পশ্চিম পাশে সেফটি ট্যাংকির মধ্যে ফেলে দেয়।

তিনি আরও জানান, জেসমিন নিখোঁজ হবার পর জেসমিনের পিতা যশোর কোতোয়ালি থানায় একটি নিখোঁজ জিডি করেন। পরবর্তীতে শুক্রবার লাশ উদ্ধার করাসহ আসামিকে র‍্যাব-৬ গ্রেফতার করে। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।