গুড়েও ভেজাল

0
237

খাদ্যে ভেজাল মিশানো যেন নৈমিত্তিক ব্যাপারে পরিণত হইয়াছে। ভেজাল মিশানো হয় না এমন খাদ্য বর্তমানে খুঁজিয়া পাওয়া দুষ্কর। ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ ও অতিরিক্ত মুনাফার লোভেই মূলত ব্যবসায়ীরা এই জঘন্য কাজটি করিতেছেন। সম্প্রতি খেজুরের গুড়ে ভেজাল মিশানো লইয়াও গণমাধ্যমে উদ্বেগজনক খবর প্রকাশিত হইয়াছে। জানা যায়, নাটোরের গুরুদাসপুরের গুড় উত্পাদনকারী বেশ কয়েকটি কারখানায় খেজুরের গুড়ে অবাধে মিশানো হইতেছে রং, হাইড্রোজ, সোডা, ফিটকিরি ও বিশেষ গাছের ছাল ছাড়াও বিপজ্জনক সব রাসায়নিক পদার্থ। রহিয়াছে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে গুড় তৈরি করিবার অভিযোগও।

গুরুদাসপুর একটি উদাহরণ মাত্র। প্রকৃতপক্ষে দেশের সর্বত্রই এই ধরনের ভূরি ভূরি দৃষ্টান্ত রহিয়াছে। জনগণের বড় অংশই এই অস্বাস্থ্যকর ও ঝুঁকিপূর্ণ খাদ্যের চক্রে আবদ্ধ। ফলমূল, শাক-সবজি ও মাছ-মাংসে ব্যবহার করা হইতেছে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কীটনাশকসহ ক্যালসিয়াম কার্বাইড, ইথোফেন ও ফরমালিনের মতো বিপজ্জনক রাসায়নিক। কৃত্রিম উপায়ে পাকানো হইতেছে মৌসুমি ফল। তেল, ঘি, ফলের জুস, জেলি, চিপস, চানাচুর ও সাধারণ খাবারগুলিতেও মিশানো হইতেছে ক্ষতিকারক রাসায়নিক ও কৃত্রিম রং। বিশেষজ্ঞদের মতে, এইসকল খাবার এতটাই বিপজ্জনক যে, এই ধরনের খাদ্য গ্রহণকারীদের কিডনি, লিভার, পাকস্থলী ও মস্তিষ্ক মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হইতে পারে। রহিয়াছে ক্যান্সারের ঝুঁকিও। শুধু খাবার নহে, জীবন রক্ষাকারী ওষুধ ও বোতলজাত পানির ক্ষেত্রেও রহিয়াছে প্রায় একই ধরনের অভিযোগ। সম্প্রতি ঢাকার বাসাবাড়ি ও অফিস-আদালতে সরবরাহ করা ৯৭ ভাগ জারের পানিতে ক্ষতিকর মাত্রায় মানুষ ও প্রাণীর মলের জীবাণু ‘কলিফর্ম’ শনাক্ত করিয়াছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) একদল গবেষক। এমনকি তাহাদের প্রতিবেদনে বোতলজাত পানির ক্ষেত্রেও যথাযথ মান নিয়ন্ত্রণ করা হয় না বলিয়া উল্লেখ করা হইয়াছে।

অনস্বীকার্য যে, বর্তমানে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসমপূর্ণতা অর্জন করিয়াছে। ব্যাপক অগ্রগতি হইয়াছে অন্যান্য বহু সূচকেরও। কিন্তু নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করার বিষয়টি আজও আমাদের চ্যালেঞ্জ হিসাবেই বিদ্যমান রহিয়াছে। আমরা জানি, অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি হইল দক্ষ জনবল। অতএব, উন্নয়নকে টেকসই করিতে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করার বিষয়ে বিশেষভাবে গুরুত্ব প্রদান করা প্রয়োজন। ইহা লইয়া পত্র-পত্রিকায় প্রায়শ লেখালিখি হয়। মাঝে-মধ্যে পরিচালিত হয় ভেজালবিরোধী নানা অভিযানও। কিন্তু অভিযানের ধারাবাহিকতা না থাকায় বাস্তবে ইহার কার্যকারিতা খুব কমই দেখা যায়। উপরন্তু এইসকল ক্ষেত্রে প্রশাসনের দায়সারা ভাবও উল্লেখ করিবার মতো। সুতরাং নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করিতে বর্তমানে সর্বাগ্রে প্রয়োজন দেশের প্রতিটি অঞ্চলে ভেজালকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ। পাশাপাশি নিয়মিত নজরদারি নিশ্চিত করিতে হইবে। সর্বোপরি, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের কাজের অগ্রগতির পর্যালোচনা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করাও সমানভাবে জরুরি বলিয়া আমরা মনে করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here