গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি কার স্বার্থে

0
221
মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম : সাধারণ মানুষের প্রবল আপত্তিকে অগ্রাহ্য করে পাইপলাইনে সরবরাহকৃত কমপ্রেসড ন্যাচারাল গ্যাসের (সিএনজি) দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ১ মার্চ থেকে কার্যকর করা হয়েছে। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) গ্যাসের দাম বাড়ানোর এই সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেছিল। এ ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের আইনগত এখতিয়ার কেবল বিইআরসি’রই রয়েছে। এটি হলো সরকার-নিরপেক্ষ ও আইন দ্বারা পরিচালিত একটি স্বাধীন সংস্থা। কিন্তু এ ক্ষেত্রে সে নিরপেক্ষভাবে কাজ করার বদলে পক্ষপাতিত্ব করেছে। একথা বুঝতে কারো কোনো বেগ পেতে হয়নি যে, বিইআরসি’র এ সিদ্ধান্তটি বস্তুত ছিল সরকারের ও তার ভেতরে থাকা মহাবিত্তবান ও প্রবল শক্তিধর চিহ্নিত একটি গোষ্ঠীর ফরমায়েশ ও চাপের প্রতিফলন। গ্যাসসহ জ্বালানি পণ্যের দাম পরিবর্তন সম্পর্কে আর্জি ও প্রস্তাবনা বিবেচনা করে সে সম্পর্কে গণশুনানির ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হলো এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের একটি প্রধান কর্তব্য। দেশের গ্যাস কোম্পানিগুলো বিইআরসি’র কাছে সিএনজির ‘দাম বাড়ানোর’ প্রস্তাব করেছিল। এদিকে ক্যাব, সিপিবি, বাসদ, গণসংহতি আন্দোলন প্রভৃতি সংগঠনও বিইআরসি বরাবর ‘গ্যাসের দাম কমানোর’ প্রস্তাবনা পেশ করেছিল। কিন্তু বিইআরসি ‘দাম বাড়ানোর’ আর্জিটি আমলে নিলেও, ‘দাম কমানোর’ আর্জিটিকে অগ্রাহ্য করেছে। অথচ আইনে একথা মোটেও বলা হয়নি যে, বিইআরসি কোম্পানিগুলোর লাভালাভের হিসাব খতিয়ে দেখে ‘দাম বাড়ানোর’ আর্জিগুলোই বিবেচনা করবে এবং ভোক্তা-সাধারণের ‘দাম কমানোর’ আর্জি আমলে নেবে না। এই একটি ঘটনার মধ্য দিয়েই বিইআরসি’র পক্ষপাতিত্বের প্রমাণ পাওয়া যায়।
বিইআরসি সরকার ও তার ভেতরকার প্রবল শক্তিধর লবিটির ফরমায়েশ পালনে এতোই মগ্ন ছিল যে, গ্যাসের ‘দাম বাড়ানোর’ সিদ্ধান্ত ঘোষণার ক্ষেত্রে নির্ধারিত বিধি-বিধান লঙ্ঘন করতে সে কুণ্ঠিত হয়নি। বিইআরসি’র আইন (অধ্যায়-৭, ধারা ৫ ও ৬) অনুসারে- “(৫) … ট্যারিফ কোনো অর্থ বত্সরে একবারের বেশি পরিবর্তন করা যাইবে না, …. ”, এবং “(৬) … আগ্রহী পক্ষগণের শুনানি দেওয়ার পর, ট্যারিফ পরিবর্তনের প্রস্তাবসহ সকল তথ্যাদি প্রাপ্তির ৯০ (নব্বই) দিনের মধ্যে উহার সিদ্ধান্ত সম্বলিত বিজ্ঞপ্তি জারি করিবে।” তাছাড়া বিইআরসি প্রণীত নিজস্ব প্রবিধানমালার ১১-(১)তেও অনুরূপ নিয়মের কথা রয়েছে।
এরূপ স্পষ্ট বিধান থাকা সত্ত্বেও বিইআরসি তা লঙ্ঘন করে সিএনজি’র ‘দাম বাড়ানোর’ সিদ্ধান্তটি ঘোষণা করেছে। ২০১৬ সালের ৭-১৮ আগস্ট সিএনজি’র ‘দাম বাড়ানোর’ প্রস্তাবনা সম্পর্কে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সে সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় বেঁধে দেয়া সময় ছিল ৯০ দিন। অথচ বিইআরসি এ বিষয়ে তার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে সেই গণশুনানির ৬ মাসেরও বেশি সময় পর। এক্ষেত্রে বিইআরসি নিজেই নিজের বিধান লঙ্ঘন করেছে। আদালত এই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে, কেন বিইআরসি’র এই ‘দাম বাড়ানো’ সম্পর্কিত সম্পূর্ণ ঘোষণাটি আইন বহির্ভূতভাবে করা হয়েছে বলে গণ্য করা হবে না, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসমূহকে কারণ দর্শানোর জন্য চার সপ্তাহের নোটিস দিয়েছে।
যে আইন দ্বারা বিইআরসি পরিচালিত তাতে সুনির্দিষ্টভাবে একথা বলা আছে যে, প্রতি অর্থবছরে সে কেবল একবার ট্যারিফ (অর্থাত্ দাম) পরিবর্তন করতে পারবে। অথচ বিইআরসি’র ঘোষণায় প্রথমে ১ মার্চ একদফা এবং তিন মাস পর ১ জুন আরেক দফা গ্যাসের ‘দাম বাড়ানো’ হবে বলে ঘোষণা করা হয়েছিল। ‘দাম বাড়ানোর’ বিষয়টিকে তারা দু’দফায় ভাগ করে কার্যকর করার ফন্দি করেছিল এ হিসাব করে যে, জনগণ তাতে আঘাতের মাত্রা ততোটা অনুমান করতে পারবে না, এবং জনগণকে ধোঁকা দিয়ে তাদের ক্ষোভ স্তিমিত করে রাখা যাবে। এই চালাকি করতে গিয়ে বিইআরসি নিজেই নিজের আইন ভঙ্গ করেছে। আদালত ইতোমধ্যে আইনের এই বরখেলাপের বিষয়টিকে বিবেচনায় নিয়ে দ্বিতীয় দফার ‘দাম বাড়ানোর’ সিদ্ধান্তকে ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে দিয়েছে।
এসব তো গেল অনেকটা ‘টেকনিক্যাল ও আইনগত’ বিষয়। বিইআরসি’র সিদ্ধান্ত শুধু টেকনিক্যাল কারণে অগ্রহণযোগ্য নয়। তার দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তটি গণবিরোধী ও অযৌক্তিকও বটে। জনগণের কাছে একথাটি গোপন করে রাখা হয়েছে যে, গ্যাসের জন্য ভোক্তার কাছ থেকে যে দাম গ্রহণ করা হয় তার ৮১ শতাংশ সরাসরি চলে যায় সরকারের রাজস্ব ফাণ্ডসহ বিশেষ কতগুলো তহবিলে। সরকার ভ্যাট হিসেবে নেয় ৫৫ শতাংশ, লভ্যাংশ হিসেবে নেয় ২ শতাংশ, কোম্পানিগুলো থেকে আগাম কর্পোরেট ট্যাক্স বাবদ নেয় ৩ শতাংশ, সম্পদমূল্য মার্জিন হিসেবে নেয় প্রায় ১৬ শতাংশ, গ্যাস ডেভেলপমেন্ট ফাণ্ড হিসেবে নেয় ৫ শতাংশের কিছু বেশি। অর্থাত্ বিক্রি বাবদ সমুদয় আয়ের ৮১ শতাংশ নিয়ে নেয় সরকার। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বিক্রি বাবদ আয়ের পরিমাণ ছিল ১৬ হাজার ৬২৬ কোটি টাকা, যা থেকে ১৩ হাজার ৪৮৪ কোটি টাকা চলে গেছে সরকারের কাছে। গ্যাস উত্পাদন ও বিতরণ কোম্পানিগুলোর কাছে গিয়েছিল অবশিষ্ট প্রায় ১৯ শতাংশ, যার অর্থমূল্য হলো তিন হাজার ১৪২ কোটি টাকা। সিংহভাগ টাকা সরকারের কাছে চলে যাওয়া সত্ত্বেও কোম্পানিগুলো টাকার যে অংশটুকু পেয়েছিল তাতে খরচপত্র বাদ দিয়ে তাদের লাভ হয়েছিল ৫ শতাংশ, অর্থাত্ ৮৩১ কোটি টাকা। বছর-বছর এ অবস্থাই বিরাজমান রয়েছে। দুর্নীতি, অপচয়, অদক্ষতা সত্ত্বেও সরকার ও কোম্পানিগুলো উভয়ই যখন আয় ও মুনাফা করতে সক্ষম হচ্ছে, তখন কোন্ যুক্তিতে তাহলে গ্যাসের দাম না ‘কমিয়ে’ তা ‘বাড়ানো’ হচ্ছে ?
বাসা-বাড়িতে যে গ্যাস ব্যবহার করা হয় সেখানেও ভোক্তাদের ঠকিয়ে টাকা নেয়া হচ্ছে। বিতরণ কোম্পানিগুলো গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছে একথা ধরে নিয়ে যে দুই চুলার জন্য সে ব্যবহার করে ৯২ ইউনিট গ্যাস। এই পরিমাণ হিসাবে তার কাছ থেকে মাসে মাসে নির্দিষ্ট টাকা নেয়া হয়। অথচ প্রকৃতভাবে তারা ব্যবহার করে তার অর্ধেকেরও কম গ্যাস, তথা গড়ে ৪৫ ইউনিট। তাছাড়া হরহামেশাই গ্যাসের সরবরাহ বা চাপ কম থাকায় দিনের বড় একটা সময় রান্নার কাজ প্রায় বন্ধই থাকে। অথচ গ্যাস বিল পুরোটাই দিতে হয়। অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ‘সিস্টেম লসের’ ঘটনা থাকলেও এক্ষেত্রে বিরাজ করছে ‘সিস্টেম গেইনের’ উল্টো বাস্তবতা। ভুলনীতি, দুর্নীতি, অপচয়, অদক্ষতা দূর করলে গ্যাসের বর্তমান দাম অর্ধেকের কাছাকাছিতে নামিয়ে আনা তাই খুবই সম্ভব। অথচ দাম না ‘কমিয়ে’ তা ‘বাড়ানো’ হচ্ছে।
যুক্তি দেয়া হয়ে থাকে যে, গ্যাসের উত্পাদন-বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও বিস্তৃতি এবং জ্বালানি নিরাপত্তার উদ্দেশ্যে ‘বিশেষ ফাণ্ড’ মজুদ রাখার জন্য বাড়তি অর্থ মজুদ রাখা প্রয়োজন। সেজন্য খরচের চেয়ে কিছুটা বেশি দামে গ্যাস বিক্রি করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে খুবই প্রাসঙ্গিক একটি প্রশ্ন হলো, উল্লিখিত এসব ফাণ্ডের জন্য অর্থের সবটাই পরোক্ষ করের কায়দায় শুধু জনগণের পকেট থেকে আদায় করা হবে কেন? কেন ধনিক শ্রেণি ও বিত্তবানদের ওপর আরোপিত প্রত্যক্ষ করের মাধ্যমে তা আদায় করা হবে না? আরো লক্ষণীয় হলো, সরকারের কাছে বিক্রির টাকার যে ৮১ শতাংশ চলে যায় তার অর্ধেকের বেশি, অর্থাত্ ৫২.৫ শতাংশ চলে যায় ভ্যাট হিসেবে সরকারের রাজস্ব তহবিলে। ভ্যাটের এই হার যদি অর্ধেক কমিয়ে দিয়ে ধনবানদের ওপর প্রত্যক্ষ আয়করের হার বৃদ্ধি, অপ্রদর্শিত আয় (কালো টাকা) বাজেয়াপ্ত ইত্যাদি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়, তাহলে সরকারের রাজস্ব আয় কমতে না দিয়েও (বরঞ্চ তা আরো বাড়ানোর ক্ষেত্র প্রস্তুত করে) গ্যাসের দাম এখনকার চেয়ে অন্তত অর্ধেকে নামিয়ে আনা সম্ভব। জনকল্যাণে সে পথ গ্রহণের বদলে খরচের সমস্ত বোঝাটি সাধারণ ভোক্তাদের ওপর চাপিয়ে দেয়া গণবিরোধী এবং ন্যায়বিচার ও ইনসাফের পরিপন্থি।
অত্যন্ত ভ্রান্ত একটি কুযুক্তি প্রচার করে বলা হচ্ছে যে, শুধুমাত্র ঢাকাসহ মাত্র কয়েকটি শহরে রান্নার চুলায় গ্যাস ব্যবহার করা হয়। রান্নার কাজে গ্যাস ব্যবহারকারীরা সবাই হলো গুলশান-বনানীতে থাকা শহুরে বড়লোক। সাবসিডি দিয়ে তাদেরকে ‘সস্তায়’ গ্যাস সরবরাহ করাটি হলো ‘ন্যায়বিচারের’ পরিপন্থি। দেশের বাকি মানুষের জন্য লিকুইফাইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) অথবা লিকুইফাইড ন্যাচারাল গ্যাস (এলএনজি) সিলিন্ডারের ব্যবহার নিশ্চিত করার দিকে নজর দেয়াটি হলো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ প্রচারণা সম্পর্কে প্রথমেই যা বলা দরকার তা হলো, শহরে যারা গ্যাস দিয়ে রান্না করেন তাদের মধ্যে বিপুল সংখ্যাধিক্য হলো মধ্যবিত্ত ও নিম্ন-মধ্যবিত্ত এবং এমনকি শ্রমজীবী মানুষ। ‘বড়লোকের’ সংখ্যা ক্ষুদ্রাংশ মাত্র। তাছাড়া ‘বড়লোকদের’ সস্তায় গ্যাস না দেয়ার নীতিই যদি অনুসরণ করতে হয় তাহলে বিইআরসি ও সরকার ‘আয় অনুপাতে’ গ্যাসের দাম নির্ধারণের নীতি অনুসরণ করে না কেন? অর্থাত্ যদি ঠিক করা হয় যে, পরিবারের আয়ের এক শতাংশ গ্যাসের দাম হিসেবে দিতে হবে তাহলে যার আয় মাসে এক কোটি টাকা ডবল বার্নারের জন্য সে দিবে এক লাখ টাকা এবং যার আয় ১০ হাজার টাকা সে দিবে ১০০ টাকা। ন্যায়বিচারের জন্য প্রকৃতই দরদ থাকলে এ প্রস্তাব মানতে আপত্তি থাকা তো উচিত নয়। কিন্তু তারা এই প্রস্তাবে সম্মত হবে কি?
ধূম্রজাল সৃষ্টির জন্য একথাটিও বলা হয়ে থাকে যে, ‘দাম বাড়ানো’ হচ্ছে না, ‘দাম সমন্বয়করণ’ করা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে যে সঙ্গত প্রশ্নের জবাবটি তারা কখনোই দেন না তা হলো, ‘দাম বাড়িয়ে’ সমন্বয় করার বদলে ‘দাম কমিয়েও’ তো সমন্বয় সাধনের সে কাজটি করা যেতে পারে। কিন্তু কোনো সময়ই তা কেন করা হয় না? সবসময় কেন বিদ্যুতের বা জ্বালানি তেলের দামের সঙ্গে সমন্বয় করার যুক্তি দেখিয়ে গ্যাসের ‘দাম বাড়ানোর’ কিছুদিন পর, গ্যাসের দামের সঙ্গে সমন্বয় করার যুক্তিতে তেল বা বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয়া হয়? দেখা যাচ্ছে যে, এভাবে একটির দাম বাড়িয়ে সেই অজুহাতে তখন অন্যটির দাম বাড়ানো হয়। এটিই চলছে চক্রাকারে। আর জনগণের ওপর ক্রমাগত বাড়তে থাকে মূল্যবৃদ্ধির চাপ।
বলা হয় যে, আন্তর্জাতিক দামের সঙ্গে সমন্বয় না করলে ‘বিশ্বায়নে’ অংশীদার হওয়া যাবে না। এই কথা যে কতোটা ভাঁওতাবাজি তা বোঝা যায় যখন পাল্টা প্রশ্ন করা হয় যে, জ্বালানির দাম সমন্বয় করা যদি বিশ্বায়নের কারণে অপরিহার্য হয় তাহলে শ্রমিকের মজুরির হার তথা তার শ্রমশক্তির দাম কেন বিশ্ব স্তরের সঙ্গে সমন্বয় করে বাড়ানো হবে না? পশ্চিমা দেশে যে ন্যূনতম মজুরি বর্তমানে বিদ্যমান, এদেশে তা বাস্তবায়নে কি তারা সম্মত হবে? গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি কেবলমাত্র গ্যাস ব্যবহারকারীদেরকেই আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করবে না, তা ক্ষতিগ্রস্ত করবে সব ধরনের মানুষকে। সিএনজি-র দাম বাড়ার প্রভাব পড়বে পরিবহন খরচে, যা আবার দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণ হয়ে উঠবে। উত্পাদন খরচও বেড়ে যাবে। এসব ক্ষেত্রে মূল্যবৃদ্ধির পরিমাণ যতোটা যুক্তিসঙ্গত, অন্য সবকিছুর দাম বাড়ানো হবে তার চেয়ে বেশি মাত্রায়। গ্যাসের দাম বেড়েছে বলে যুক্তি দেখিয়ে মুনাফালোভীরা সুযোগমতো লাভের পরিমাণ অযৌক্তিকভাবে বাড়িয়ে দিবে। সব চাপ শেষ পর্যন্ত এসে পড়বে আম-জনতার ওপর।
গুলশান-বনানীর সুবিধাভোগীদের স্বার্থরক্ষার জন্য আন্দোলন করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলে মন্ত্রী-এমপিরা সুবিধাভোগীদের সেবা না করার জন্য বামপন্থি আন্দোলনকারীদের সবক দিচ্ছেন। এ যেন ‘ভূতের মুখে রাম নাম’। তাদের মুখে এসব কথা শুনলে হাসি পায়। তাদের এ পরামর্শের বিশ্বাসযোগ্যতা থাকতো যদি তাদের ট্যাক্স-ফ্রি গাড়ি, বেতন-ভাতা দ্বিগুণের বেশি বৃদ্ধি করাসহ তাদের ‘বিশেষ সুবিধাগুলো’ তারা বাতিল করে দিত। অথবা গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন-ভাতা তাদের বর্ধিত বেতন-ভাতার সম-আনুপাতিকের কিছুটা কাছাকাছি হারে বৃদ্ধি করে অন্তত ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণ করার ঘোষণা দিত। আসলে তারা জনগণের সঙ্গে নিছক পরিহাস করছে। জনগণকে ভাঁওতা দেয়ার জন্য তারা এসব কথা বলছে। এর পেছনে আসল উদ্দেশ্যটি অন্যত্র। সেই লুকিয়ে রাখা উদ্দেশ্যটি এখন আর লুকিয়ে রাখা সম্ভব হচ্ছে না।
দেশের কিছু মহাশক্তিধর ধনবান ব্যক্তি এলপিজি ও এলএনজি সিলিণ্ডারের বড় কারবার খুলে বসেছে। এই ব্যবসার বিস্তৃতি এবং তা থেকে একচেটিয়া বিপুল মুনাফা করতে তারা মরিয়া। একসময় মোবাইল ফোনের একচেটিয়া ব্যবসা করে যে কল্পনাতীত মুনাফা করা হয়েছিল, এলপিজি ও এলএনজি সিলিণ্ডারের কারবারে তারা সেরূপ করতে চায়। অযৌক্তিকভাবে হলেও সিএনজির দাম আগেভাগে বাড়িয়ে না রাখলে তারা তা করতে পারবে না। সেজন্য গ্যাসের দাম বাড়ানো হচ্ছে। এটিই হলো এই গণবিরোধী তত্পরতার অন্তরালে থাকা প্রকৃত কারণ। লুটপাটের এই নতুন পাঁয়তারা রুখতে হবে। সাধারণ মানুষকে বাঁচাতে হবে।
 লেখক : সভাপতি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here