গড়িতে হইবে নূতন পৃথিবী

0
264

সিরিয়ার ইদলিবে ভয়াবহ রাসায়নিক হামলার জবাবে এবার সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাইয়াছে একটি শক্তিশালী দেশ। গতকাল পূর্ব-ভূমধ্যসাগরের একটি নৌ ঘাঁটি হইতে দেশটির সরকারি নিয়ন্ত্রিত শায়ারাত বিমান ঘাঁটি লক্ষ্য করিয়া প্রায় ৫৯টি টমাহ্যক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী ইহাতে ক্ষয়-ক্ষতি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য না পাওয়া গেলেও ইহাতে হতাহতের সংখ্যা ব্যাপক হওয়ার আশঙ্কাই বেশি। গত মঙ্গলবার ঠিক যেখান হইতে রাসায়নিক হামলা পরিচালনা করা হয়, সেই স্থানটি লক্ষ্য করিয়া এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ছোড়া হইয়াছে বলিয়া দাবি করা হইয়াছে। ইহার আগে রাসায়নিক হামলায় সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল শহর ইদলিবে ২০ শিশুসহ অন্তত ৭২ জন নিহত হয়। ইহার জন্য সিরিয়ার বাশার আল আসাদ সরকারকে দায়ী করা হয়। তবে এই ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর বিশ্বের প্রধান দুইটি শক্তিশালী দেশের মধ্যে করা বিমান নিরাপত্তা চুক্তি স্থগিত করিয়া দিয়াছে একটি পক্ষ।

উপরোক্ত পরিস্থিতি হইতে বোঝা যাইতেছে, বিশ্ব আকাশে ক্রমেই দৃশ্যমান হইতেছে কালো মেঘের ঘনঘটা। সিরিয়ায় কয়েক বত্সর ধরিয়া চলা সংঘাত নিশ্চিতরূপে নিয়াছে নূতন মোড়। বিশ্বের দুই বৃহত্ শক্তির তুমুল লড়াইয়ের ক্ষেত্রে পরিণত হইয়াছে দেশটি। ইহাতে অনেকে আবার স্নায়ুযুদ্ধের পদধ্বনি শুনিতে পাইতেছেন। কেহ কেহ শুনিতে পাইতেছেন আরেকটি বিশ্বযুদ্ধের আগমনী বার্তা। যে কোনো বিচারে রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার মানবতার এক চরম অবমাননা নিঃসন্দেহে। যেই পক্ষই ইহার ব্যবহার করিয়া থাকুক না কেন, তাহাতে নিন্দা জানাইবার মতো ভাষা আমাদের জানা নাই। অনুরূপভাবে ভিয়েতনাম যুদ্ধে (১৯৫৯-১৯৭৩) মানবতার কী পরিস্থিতি তৈরি হইয়াছিল, তখনকার টাইম ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদই তাহার সাক্ষী। সেই দৃশ্য যদি আজিকার নূতন প্রজন্মের সম্মুখে তুলিয়া ধরা হয়, তাহা হইলে তাহারা শিহরিত না হইয়া পারিবেন না। আফগানিস্তান (২০০১- চলমান) ও ইরাক যুদ্ধের (২০০৩-২০১১) ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হইবার পর হইতে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত দুই পরাশক্তির মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ চলাকালে বিশ্বে অন্তত ১১৩টি যুদ্ধ-বিগ্রহ বা সংঘাতের সৃষ্টি হয়। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য হইল- কোরিয়ান যুদ্ধ (১৯৫০-১৯৫৩), ফ্রান্স-আলজেরিয়া যুদ্ধ (১৯৫৪-১৯৬২), সুদানের প্রথম গৃহযুদ্ধ (১৯৫৫-১৯৭২), সুয়েজ সংকট (১৯৫৬), ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ ( ১৯৬৫ ও ১৯৭১), সোভিয়েত-আফগান যুদ্ধ (১৯৭৯-১৯৮৯), ইরাক-ইরান যুদ্ধ (১৯৮০-১৯৮৮), পারস্য উপসাগরীয় যুদ্ধ (১৯৯০-৯১) প্রভৃতি। ইহাছাড়া বিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে ও একবিংশ শতাব্দীতে আলজেরিয়ার গৃহযুদ্ধ, সোমালিয়ার গৃহযুদ্ধ, চাদ বিদ্রোহ, দারফুর যুদ্ধ, চেচেন যুদ্ধ, ইথিওপিয়া-সোমালিয়া যুদ্ধ, জর্জিয়া-রাশিয়া যুদ্ধ, গাজা যুদ্ধ ইত্যাদিও ভয়াবহতার অন্যতম নজির। বর্তমানে সিরিয়া যুদ্ধের পাশাপাশি কোরিয়া অঞ্চলেও উত্তাপ বাড়িতেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর হইতেই দক্ষিণ কোরিয়ায় একটি দেশের সেনাবাহিনী এখনও আছে। ফলে আছে উত্তেজনাও। দেখা যাইতেছে, যাহার পকেটেই অর্থ আছে, অস্ত্রাগারে আছে মারণাস্ত্র, তাহারাই এইসব উত্তেজনা ছড়াইতেছেন। অথচ তাহাদের মুখেই আবার শুনিতে পাওয়া যায় মানবাধিকারের গান। একের পর এক মানবাধিকার লংঘিত হইলেও এই গান এখনও বাজিতেছে। একজন শক্তিধর নেতা বলিয়াছিলেন যে, যেহেতু তাহার দেশ আক্রমণ করা হইয়াছে, তাই এমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে যাহাতে যুদ্ধ অন্য দেশে ছড়াইয়া পড়ে। আসলে বাস্তবে তাহাই ঘটিতেছে।

সমস্যা হইল, আজ বিশ্বপরিস্থিতি এমন এক পর্যায়ে পৌঁছাইয়া গিয়াছে যে, বিশ্বপুলিশের দায়িত্ব পালন করিবার মতো কাহাকেও দেখা যাইতেছে না। কিন্তু এইভাবে চলিতে পারে না। যদি পৃথিবীতে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করিতে হয়, তাহা হইলে আমাদের নূতন পৃথিবী গড়িয়া তুলিতে হইবে। যেখানে যুদ্ধ-বিগ্রহ প্রতিরোধের জন্য নেওয়া হইবে কার্যকর ব্যবস্থা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here