“ঘাঁটি শক্ত করতে চায় আওয়ামীলীগ, পুনরুদ্ধারের চ্যালেঞ্জ বিএনপির অস্তিত্ব রক্ষায় অনড় জামায়াত, মনোনয়ন দৌড়ে জাতীয় পার্টির দুই নেতা’

0
426

আরিফুজ্জামান আরিফ : যশোরের চৌগাছা ও ঝিকরগাছা উপজেলার ২২টি ইউনিয়ন এবং ২টি পৌরসভা নিয়ে যশোর-২ সংসদীয় আসন।

এলাকাটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। আগের দশটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পাঁচবার, জামায়াত তিনবার ও বিএনপি-জাতীয় পার্টির প্রার্থী একবার করে বিজয়ী হয়েছেন।

আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোয়ন প্রত্যাশী অন্তত ৭ জন। বর্তমান এমপি মনিরুল ইসলামের নৌকার টিকিট ছিনিয়ে নিতে দলের হাফ ডজন প্রার্থী মাঠে সক্রিয়।

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে ক্লিন ইমেজধারী, তৃণমূলের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক আছে, সৎ-যোগ্য প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়ে ঘাঁটি আরও শক্তিশালী করতে চায় আওয়ামী লীগ।

এদিকে আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে জোটের শরিক জামায়াতকে ছাড় দিতে নারাজ বিএনপি প্রার্থীরা। গত দুটি নির্বাচনে জোটের শরিক জামায়াতকে ছাড় দিলেও বর্তমান প্রেক্ষাপট ভিন্ন।

আগামী নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীরাই জোটের মনোনয়ন নিশ্চিত করতে চান। তবে জামায়াতের প্রার্থীরাও তাদের অস্তিত্ব রক্ষায় আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন নিশ্চিত করার দাবিতে অটল।

ফলে জোটের প্রার্থী চূড়ান্তে জট থাকছেই। মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টি ও ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীরাও মাঠে আছেন। স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে প্রথম সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে আওয়ামী লীগের আবুল ইসলাম এমপি নির্বাচিত হন। তিনি বর্তমান এমপি মনিরুল ইসলামের পিতা।

১৯৭৯ সালে বিএনপির বদরুল আলা, ১৯৮৬ সালে জামায়াতের মকবুল হোসেন, ১৯৮৮ সালে জাতীয় পার্টির মীর শাহাদাতুর রহমান, ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে জামায়াতের মকবুল হোসেন, ১৯৯৬ সালের ১২ জুন আওয়ামী লীগের অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, ২০০১ সালে জামায়াতের আবু সাঈদ মোহাম্মদ শাহাদাৎ হুসাইন, ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের মোস্তফা ফারুক মোহাম্মদ ও ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগের মনিরুল ইসলাম মনির নির্বাচিত হন। তবে ২০১৪ সালে বিদ্রোহী প্রার্থী হন অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম।

এবারও স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে কোন্দল বিদ্যমান। দলের মধ্যে শেষ পর্যন্ত বিদ্রোহের আশঙ্কাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অন্তত ৭ জন প্রার্থী মাঠে রয়েছেন।

এদের মধ্যে বর্তমান এমপি মনিরুল ইসলাম মনিরের নৌকার টিকিট ছিনিয়ে নিতে তৎপর আরও ৬ জন প্রার্থী। তিনিও নৌকার মনোনয়ন ধরে রাখতে নিজের মতো করে প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

মনিরুল ইসলামের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে এবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন সাবেক বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম।

নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী অপরজন আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা আনোয়ার হোসেনও মাঠে রয়েছেন।গনসংযোগ করে বেড়াচ্ছেন চৌগাছা ও ঝিকরগাছার প্রতিটি এলাকা।অংশ নিচ্ছেন প্রায় প্রতিটি দলীয় কর্মসূচীতে।

একান্ত আলাপচারিতায় তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের অন্য প্রার্থীদের তুলনায় তৃণমূলে আমার যোগাযোগ বেশি ভালো। প্রত্যেক গ্রামে আমার কর্মী সমর্থক আছে। দীর্ঘদিন ধরে তৃণমূলের সঙ্গে আছি। অন্য প্রার্থীদের অনেকের তৃণমূলে যোগাযোগ নেই, বিতর্কিত, এলাকার মানুষ চেনে না। সেই হিসেবে আমাকে মনোনয়ন দিলে নৌকা বিপুল ভোটে জয়ী হবে।’

এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আইনজীবী আহসানুল হক আহসান  নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসাবে মাঠে রয়েছেন।

অন্যদিকে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী মোহাম্মদ আলী রায়হানও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

এছাড়া গত দুই বছরে চৌগাছা-ঝিকরগাছায় বেশ কয়েকটি মহড়া দিয়েছেন নৌকার অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী মেজর জেনারেল (অব.) নাসির উদ্দিন।

অপরদিকে, সর্বশেষ দুটি নির্বাচনে চারদলীয় জোটের প্রার্থী ছিলেন জামায়াতের আবু সাঈদ মোহাম্মদ শাহাদাৎ হুসাইন।

জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলটির অংশগ্রহণের সুযোগ নেই। জামায়াত নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় কৌশলে নির্বাচনে অংশ নিতে পারে। তবে এবার বিএনপির প্রার্থীরা জামায়াতকে আসনটি ছাড় দিতে নারাজ। বিএনপির অন্তত চারজন প্রার্থী মাঠে রয়েছেন।

জোটের আসন ভাগাভাগির হিসাব-নিকাশে বিএনপির প্রার্থীরা মনোনয়ন নিয়ে অনেকে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারেন। তারপরও দলীয় মনোনয়ন পেতে মরিয়া জেলা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক মিজানুর রহমান খান, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঝিকরগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান সাবিরা নাজমুল মুন্নী, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোটে মোহাম্মদ ইসহাক ও চৌগাছা উপজেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল ইসলাম।

 এছাড়াও এই আসনে জাতীয় পার্টির নেতা মুফতি ফিরোজ ও চৌগাছা উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নুরুল কদর মাঠে সক্রিয় রয়েছে।

অধিকাংশ দলীয় নেতা কর্মীরা বলছে, জনমত ও দলীয় কর্মকান্ডের যাচাইয়ে আনোয়ার হোসেন ভাই সবার আগে রয়েছে।সেক্ষেত্রে দলীয় নমিনেশনটা তারই প্রাপ্য। সুতরাং আওয়ামী লীগের দলীয় নমিনেশন তাকে দিলে আওয়ামী লীগের দখলে থাকবে এ আসনটি।নচেৎ হাতছাড়া হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাই বেশী থাকবে আওয়ামী লীগের দখলে থাকা দীর্ঘ দিনের এ আসনটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here