ঘুরে এলাম কলকাতার মনুম্যান্ট ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল- ভ্রমণ কাহিনী-১

0
1221

ডি এইচ দিলসান : সময় বা সুযোগের অভাবে বিদেশ ভ্রমন হয়ে ওঠেনা খুব একটা। তাই যে সমস্ত পাঠক ভারতে বেড়াতে যেতে চান কিন্তু সময়ের অভাবে যেতে পারছেন না তাদের জন্য আজ লিখবো কলকাতার সুন্দর এক মনুম্যান্ট ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালন নিয়ে। যে স্থাপনাটি এখন পর্যন্ত আমার দেখা সর্বশেষ্ঠ একঠি স্থান। মহিউদ্দীন মাহি এবং মোঃ হুসাইনকে সঙ্গে নিয়ে কলকাতা ভ্রমনের প্রথম পর্ব পাঠকদের সামনে তুলে ধরছি আজ। আগামী কাল থাকবে কলকাতা সাইন্স সিটির গল্প।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল
কলকাতার সবচেয়ে এক অন্যতম শ্রেষ্ঠ সুন্দর মনুম্যান্ট। কলকাতা (পূর্বে ক্যালকাটা নামে পরিচিত) ১৭৭২ খ্রীষ্টাব্দ থেকে ১৯১১ খ্রীষ্টাব্দ পর্যন্ত ব্রিটিশ শাসনের অধীনে ভারতের রাজধানী ছিল। এই ধরণের স্হাপত্য, আধুনিক ব্রিটিশের এক দীর্ঘায়িত উদ্ঘাটন স্বাভাবিকভাবেই এযাবৎ অদেখা, কলকাতায় এক নতুন বু্ধমিত্তা ও সাংস্কৃতিক জাগরণ নিয়ে এসেছিল। এটি আশ্চর্যজনক নয় যে, সেইসময় প্রয়াত রাণী ভিক্টোরিয়ার সম্মানে কলকাতায় নির্বাচিত, এক স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছিল। একটি স্বল্প পরিচিত সত্যতা হল যে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল, ব্রিটিশ সরকারের কাছ থেকে কোনও তহবিল গ্রহণ করেনি। সাদা মার্বেলের অট্টালিকা ও তার পরিবেষ্টিত ৬৫-একর বাগিচা নির্মাণ করতে এক কোটি পাঁচ লক্ষ টাকার এক হতবম্ভিত মূল্য প্রয়োজন হয়েছিল। মুদ্রাস্ফীতির হিসাবনিকাশে এই মূল্য আজকের দিনে মোটামুটি প্রায় ২ কোটি ২০ লক্ষ ৪৮ হাজার ডলারের সমান। এটি সম্পূর্ণরূপে ব্রিটিশ মালিকানাধীনে ভারতীয় রাজ্য ও ব্যাক্তিবিশেষের দ্বারা নিহিত ছিল যারা কলকাতায় ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে নিজেদের অনুগ্রহ ভাজন করতে চেয়েছিলেন।
শোভামন্ডিত শ্বেত শ্রদ্ধার্ঘে ব্রিটিশ বাস্তবায়নের সম্পূর্ণতায় মুঘল স্থাপত্যের তারতম্য একত্রিত রয়েছে। স্যার উইলিয়াম এমারসন মূখ্য স্থাপত্যবিদ ছিলেন যিনি তার অবিচ্ছেদ্যতায় ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের ধারণা তৈরি করেছিলেন। কার্যোদ্ধারের সক্রিয়তা, কলকাতার মেসার্স মার্টিন আ্যন্ড কোং-র উপর ন্যস্ত ছিল। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপণ থেকে সর্বসাধারণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, সামগ্রিকভাবে নির্মাণে ১৫ বছর সময় লেগেছিল।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের স্থাপত্য
ভারতের স্থাপত্য বিস্ময়ের তালিকায়, মহিমার দিক দিয়ে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল শুধুমাত্র তাজমহলের পরেই গণ্য হয়। তবে, স্থাপত্য শৈলীর একত্রীকরণের ভাষায় বলতে গেলে, ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল সম্ভবত মহান তাজমহলকেকেও ছাড়িয়ে যায়। মেমোরিয়ালের নকশা মুঘল, ভেনিসিয়, মিশরীয়, ডেকানি এবং ইসলামী শৈলী থেকে গৃহীত হয়েছে, তাদের সকলকে এক চতুরতার সঙ্গে একত্রিকরণের মাধ্যমে শুধুমাত্র তৎকালীন ব্রিটিশ আধুনিক স্থপতির নির্মাণে সক্ষম হয়েছিল।
মকরানা মার্বেলে নির্মিত, বিস্তৃত মঞ্চ থেকে শুরু করে গম্বুজের উপর লন্ঠন পর্যন্ত পরিমাপ হল ১৮৪ ফুট। এঞ্জেল অফ ভিক্টরি থেকে লন্ঠনের চূড়া পর্যন্ত দৈর্ঘ্য হল আরোও ১৬ ফুট। আশ্চর্যের কিছু নয় যে, স্মৃতিস্তম্ভটির উচ্চতা একজন পরিদর্শকের মনে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলতে প্রথম ছাপ তৈরি করেছিল।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হল্
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল গ্যালারী কলকাতার ঔপনিবেশিক অতীতের একটি মানানসই সম্মান জ্ঞাপণ করে। তারা কালানুক্রমিকভাবে রাণীর জীবনের তৈলচিত্রে বর্ণিত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানগুলিকে পেশ করে। সেখানে রাণীর রাজ্যাভিষেক, রাজকুমার আলবার্টের সঙ্গে তাঁর বিবাহ, তাঁর পুত্র এডওয়ার্ড ঠওও-এর বিবাহ ও আরোও অন্যান্য চিত্রও রয়েছে। রাণীর পিয়ানো এবং লেখার ডেস্কটিও এখানে সংরক্ষিত রয়েছে। সম্ভবত সবচেয়ে বিখ্যাত চিত্র, জয়পুরে, ওয়ালসের রাজকুমারের প্রবেশের তৈল চিত্রটি পেশ করা হয়েছে।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল গার্ডেন
যেহেতু এটি সাধারণভাবে এক ভালো সময় ও স্বাচ্ছন্দ্যময় সময় কাটাতে এক নিঁখুত মুক্ত আঙ্গনের প্রস্তাব দেয়, সেহেতু ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল তরুণ প্রেমীদের মধ্যে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। রীতি অনুযায়ী ভারতীয় সংস্কৃতি হল সংরক্ষণশীল এবং অবিবাহিত জুড়িদের মধ্যে সার্বজনীনভাবে স্নেহিত প্রীতিসাক্ষাতের প্রদর্শন অসমর্থন জানায়। এর ফলস্বরূপ, ভিক্টোরিয়া গার্ডেনের ন্যায় স্থানগুলি অনুরাগভিলাষী যুগলদের মধ্যে জনপ্রিয় রূপে পছন্দের জায়গা হয়ে উঠেছে।

রাত্রিবেলায় ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল
সন্ধ্যা নামার সময়, সাদা মার্বেলের ভবনটি গোধূলি আলোয় স্নানিত দ্যূতিময় দেখায়। ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল-এ একটি আলোক ও ধ্বনি প্রদর্শনী আয়োজিত হয়; যাতে কলকাতার ইতিহাস তুলে ধরা হয়, যা আজও পর্যন্ত সমস্ত বাঙালির মধ্যে মহান গর্বের বিষয় হয়ে রয়েছে।
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল সম্পর্কে তথ্যাবলী
স্মৃতিস্তম্ভটির প্রধান গম্বুজটির চূড়ায় এঞ্জেল অফ ভিক্টরি পিতলে মোড়া অধিরূঢ় রয়েছে, যা বায়ুপতাকার ন্যায় শক্তিশালী বাতাসের দিকে ঘুরতেও সক্ষম।
রাজকীয় পরিবারের পাশাপাশি, মূর্তির মুখপাত্রের স্মরণে হেস্টিংস, কর্নওয়ালিস, ক্লাইভ এবং ডালহৌসি এঁদেরও মূর্তি দেখা যায়।
সুন্দর সুন্দর ভাস্কর্য্যগুলি প্রকৃতিতে খুবই ঔদার্যসম্পন্ন এবং ভারতীয় অনুভূতিও চরম প্রাচুর্য্যময়। উদাহরণস্বরূপ, একটি ভাস্কর্য্য হল এক সিংহের মাথা থেকে চারটি দিকে জলের নির্গমন, যা মহান চারটি ভারতীয় নদীকে ইঙ্গিত করে – গঙ্গা, যমুনা, কৃষ্ণা ও সিন্ধু। অন্যান্য বেশ কিছু রয়েছে, তবে এগুলি ব্রিটিশ স্থাপত্যের পথ দেখায়, যা “ভারতে ব্রিটেনের জীবনদায়ী কাজ” হিসাবে বর্ণিত।
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল কোথায় অবস্থিত?
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল, জওহরলাল নেহরু রোডের পরে, হগলী নদীর তীরের নিকটে স্থানীয়ভাবে অভিহিত ময়দানের উপর স্থিত রয়েছে।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে পৌঁছানোর উপায়
বিমান মাধ্যমে: নিকটবর্তী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি হল নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। ভায়া ভি.আই.পি. রোড, বিমানবন্দর থেকে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে পৌঁছাতে আপনার প্রায় ৩০ মিনিট সময় লাগবে।
রেল মাধ্যমে: নিকটবর্তী রেলওয়ে স্টেশন হল হাওড়া রেলওয়ে স্টেশন। রেলওয়ে স্টেশন থেকে গাড়ির মাধ্যমে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে পৌঁছাতে আপনার প্রায় ১৫ মিনিট সময় লাগবে।
মেট্রো রেলের মাধ্যমে: নিকটবর্তী মেট্রো রেলওয়ে স্টেশন হল ময়দান, যেখান থেকে আপনি কোনও ট্যাক্সি বা স্থানীয় বাসের মাধ্যমে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে পৌঁছাতে পারেন।
বাস/গাড়ির মাধ্যমে: করুণাময়ী স্টপেজ থেকে এক্সাইড স্টপেজ পর্যন্ত একটি মারুতী ওমনি ভাড়া নিন। সেখানে থেকে প্রচুর স্থানীয় বাস রয়েছে যেগুলি আপনাকে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে পৌঁছে দেবে।
কখন ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল পরিদর্শনে যাবেন?
শীতকালে, নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারী মাসগুলি সবসময়ই কলকাতা পরিভ্রমণের সেরা সময়।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল টিকিট ও সময়
বাগান ও ভবনটিতে প্রবেশের জন্য আলাদা আলাদা ভাবে টিকিট বিক্রীত হয়।
বাগানের প্রবেশমূল্য: মাথা পিছু ৪/- টাকা।
মাসিক টিকিট: মাথা পিছু ১০০/- টাকা।
বার্ষিক টিকিট: মাথা পিছু ১০০০/- টাকা।
ভবনের প্রবেশমূল্য: ভারতীয় দেশবাসীর জন্য মাথা পিছু ২০/- টাকা।
বিদেশীদের জন্য মাথা পিছু ২০০/- টাকা

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল দর্শনের সময়
মিউজিয়ামটি সোমবার ব্যতীত, সপ্তাহের প্রতিদিনই দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত থাকে। সময়সীমা হল সকাল ১০:০০-টা. থেকে সন্ধ্যা ৫:০০-টা. পর্যন্ত। এছাড়াও ভবনটি বিশেষ বিশেষ ছুটির দিনগুলিতেও বন্ধ থাকেঃ প্রজাতন্ত্র দিবস (২৬-শে জানুয়ারী), হোলি, স্বাধীনতা দিবস (১৫-ই আগস্ট), ঈদ-ঊল-ফিতর, গান্ধী জয়ন্তী (২-রা অক্টোবর), দশেরা, ঈদ-ঊল-জোহা, খ্রীষ্টমাস (২৫-শে ডিসেম্বর)।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here