চট্টগ্রামে পানির নিচে ৬৫০ শয্যার হাসপাতাল

0
324

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামে সেই পানির ক্ষত কাটিয়ে ওঠার এক সপ্তাহের মধ্যেই আবারও পানিবন্দী হয়ে পড়ে নগরীর আগ্রাবাদস্থ ৬৫০ শয্যার মা ও শিশু জেলারেল হাসপাতালটি। বিভিন্ন ওয়ার্ডের ভেতরে পানিতে ভাসছে ময়লা আবর্জনা, খাবার-দাবার, সিরিঞ্জ আর ওষুধপত্রের প্যাকেট। টানা বৃষ্টি ও জোয়ারের কারণে পানির নিচে পড়া হাসপাতালটির নিচ তলা প্রায় হাটুঁর উপরে পানি উঠে যাওয়ায় পরিচালক রুম, জরুরি বিভাগ, বর্হিবিভাগে চিকিৎসা সেবাসহ সকল প্রশাসনিক কাজ কর্মও বন্ধ হয়ে গেছে। বিকালের দিকে পানি নেমে যাওয়ায় বিভিন্ন ওয়ার্ডে চলে চিকিৎসা সেবা। এর আগে টানা পানি ছিল ৩ জুন পর্যন্ত।

গত সোমবার রাত থেকেই টানা বৃষ্টিতে নিচতলায় পানিতে থৈ থৈ করছে সেই ময়লাগুলো। পানির কারণে চিকিৎসক-রোগী ও তাদের স্বজনদের হাঁটার জন্য উঁচু বেঞ্চ বসানো হয়েছে। মঙ্গলবার সকালেই এসব চিত্র দেখা গেছে। এছাড়া চান্দগাঁও, ষোলশহর, হালিশহর, মুরাদপুর, ছোটপুল, বহদ্দারহাট, চকবাজার, খাতুনগঞ্জ, চাক্তাইসহ বিভিন্ন এলাকা বৃষ্টির কারণে তলিয়ে গেছে।

হাসপাতালের উপস্থিত রোগীর স্বজনরা বলেন, হাসপাতালে এসেছি বিভিন্ন ধরণের রোগের চিকিৎসা করতে। নিচে পানি উঠায় উপরে বন্দি হয়ে পড়েছি। কোথায়ও যেতে পারছি না। রোগীদের মতো আমাদেরকেও অসুস্থ হয়ে পড়তে হবে মনে হয়।
মা ও শিশু হাসপাতালের সহ-সভাপতি সৈয়দ মোরশেদ হোসেন বলেন, নিচ তলায় পানি উঠলেও রোগীদের কোন প্রকার অসুবিধা না হয় সে জন্য প্রতিনিয়ত মনিটরিং করছি। স্থানান্তর করা হয়েছে নিচের রোগীদেরও। তবে পানিরে কারণে রোগী ও স্বজনদের আশা-যাওয়ার বিষয়ে কিছুটা অসুবিধা হচ্ছে বলে জানান তিনি।
আগ্রাবাদ এলাকার বাসিন্দা চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, শুধু এই হাসপাতাল নয়, পানিতে ডুবে গেছে আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকা, এক্সেস রোডসহ আশপাশের পুরো এলাকা। কোন ধরণের গাড়ির চলাচল না থাকায় সকালে অফিসে যেতে হয়েছে নৌকায় করে। এসব পানি থেকে বিভিন্ন ধরণের রোগাক্রান্তও হয়ে যেতে পারে লোকজনের।

মা ও শিশু হাসপাতালের সুপারভাইজার বাবুল মোস্তফা বলেন, পানি ওঠার কারণে নিচতলার রোগীদের দ্বিতীয়তলার বিভিন্ন কেবিনে শিফট করা হয়েছে। পানির কারণে নিচতলায় চিকিৎসাসেবা ব্যবস্থা ব্য‍াহত থাকলেও অন্যান্য তলায় চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here