বেনাপোলের উল্লাস লটারি বন্ধে এবার মসজিদের খুৎবায় আহবান

0
717

নিজস্ব প্রতিবেদক: স্থলবন্দর বেনাপোলে মাসব্যাপি চলমান গ্রামীন শিল্প ও বাণিজ্য মেলার বিশেষ আকর্ষণ উল্লাস র‌্যাফেলের (লটারি) ফাঁদে ফতুরের হাত থেকে রেহায় পেতে মসজিদে মসজিদে এর কুফল ও ধর্মীয় দিক তুলে ধরেছেন মসজিদের খতিব ও ঈমামগণ। বিশেষ করে গত শুক্রবার যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কয়েকটি মসজিদে জুম্মার নামাযের খুৎবায় র‌্যাফেল (লটারি) সম্পর্কে কোরআন ও হাদিসের আলোকে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। র‌্যাফেলের (লটারি) ফাঁদে ফতুরের ফাঁদ বন্ধ করতে সামাজিক গণমাধ্যম ফেসবুকেও বইছে ঝড়। অসংখ্যা ফেসবুক ব্যাবহারকারীগণ অবিলম্বে এই ফতুরের ফাঁদ বন্ধের আহবান জানিয়েছেন। এ নিয়ে গত শনিবার দৈনিক সত্যপাঠ পত্রিকায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পর মুঠোফোনে পত্রিকা দপ্তরে অনেকেই ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে এটি বন্ধের জন্য আরো খবর লেখার অনুরোধ জানান। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বন্দর নগরী বেনাপোলের স্থানীয় এক সাংবাদিক মুঠোফোনে আক্ষেপ করে বলেন লিখে কি হবে ‘রক্ষকই তো ভক্ষক’।

গত ৯ জুলাই বেনাপোল পৌরসভার আয়োজনে স্থানীয় বলফিল্ড মাঠে মাসব্যাপি এই গ্রামীন শিল্প ও বাণিজ্য মেলা শুরু হয়। মেলা শুরুর দিন থেকে দৈনিক র‌্যাফেলের (লটারি) আকর্ষণে স্থানীয়রা ফতুর হওয়া শুরু হলেও এখন তা জেলার দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের বিশেষ করে বেনাপোল, শার্শা ঝিকরগাছা, চৌগাছা, কেশবপুর ও মনিরামপুর এবং পার্শবর্তী জেলা সাতক্ষীরার করারোয়া উপজেলার মানুষ ফতুতের ফাঁদে পড়েছেন। র‌্যাফেলের আকর্ষণে মহাভাগ্যবান যাচাইয়ে ফতুর হওয়া মানুষের মধ্যে অধিকাংশরাই হত দরিদ্র দিন মজুর। গত শুক্রবার ঝিকরগাছা উপজেলার নির্বাসখোলা ইউনিয়নের আশিংড়ী পূর্বপাড়া জামে মসজিদে জুম্মার নামাযের খুৎবায় এই র‌্যাফেল (লটারি) সম্পর্কে কোরআন ও হাদিসের আলোকে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। মসজিদের খতিব মাওলানা আনারুল ইসলাম র‌্যাফেল (লটারি) সম্পর্কে শুধু ফতুরের বিষয় না কোরআন ও হাদিসের আলোকে সুনির্দিষ্ট উদ্ধৃতি দিয়ে এটা বন্ধের আহবান করেন। শুধু ওই মসজিদে নয় এলাকার অনেক মসজিদে এই র‌্যাফেলের (লটারি) কুফল আলোচনা করার খবর পাওয়া গেছে। রোববার দুপুরে ঝিকরগাছা বাজারে উল্লাস র‌্যাফেলের (লটারি) টিকিট বিক্রি করতে আসেন জয়পুরহাটের ইজাহার আলী। তিনি জানান, প্রতিদিন ২০০ টি প্রচার গাড়ি এক হাজার করে টিকিট বিক্রি করে থাকে। যার প্রতিটি টিকেটের দাম ২০ টাক। তার দাবি শুধু উল্লাস র‌্যাফেলের (লটারি) নয় মেলার জনবলের সকলেই অন্য জেলার লোক। এদিকে, র‌্যাফেলের (লটারি) ড্রয় বিজয়ীদের কাছ থেকে পুরস্কার প্রদানের সময় বেশ মোটা অংকের অর্থ নেওয়া হচ্ছে ‘বকশিস’ বাবদ একটি ছাত্র সংগঠনের নামে। অপরদিকে, র‌্যাফেলের (লটারি) নামে এই ফতুর ফাঁদ থেকে প্রতিদিন প্রশাসন ও স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধি নিচ্ছেন কাড়ি কাড়ি টাকা। যার পরিচালনায় রয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের এক স্থানীয় যুবলীগ নেতা।

নির্বাচন নিয়ে নাগরিক সমাজের সঙ্গে বৈঠকে ইসি
নিজস্ব প্রতিবেদক্র
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নাগরিক সমাজের সঙ্গে বৈঠকে বসেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সোমবার সকাল ১১টায় ঢাকার আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে এই সংলাপ শুরু হয়েছে। বেলা সোয়া একটার দিকে বৈঠক শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। তবে বিকাল চারটায় ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে বৈঠকের বিস্তারিত জানানো হবে বলে ইসি সূত্রে জানানো হয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে সংলাপে অংশ নিয়েছেন অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। বৈঠকে ইসি ঘোষিত সাত কর্মপরিকল্পনাসহ প্রাসঙ্গিক বিষয়ে মতামত তুলে ধরবেন আমন্ত্রিত অতিথিরা। সংলাপে আমন্ত্রিত অতিথিরা সবাই এসেছেন কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ইসি কার্যপত্রে অনুযায়ী সকাল ১১টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সভাপতিত্বে সংলাপ শুরু হবে। সকাল ১১টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত সিইসির স্বাগত ভাষণ দেবেন। বেলা সোয়া ১১টা থেকে দুপুর ১টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত দুই ঘণ্টা সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে ইসি মতবিনিময় করবে। ১টা ১৫ মিনিট থেকে ১টা ২৫ মিনিট পর্যন্ত মতবিনিময় শেষে সচিব সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করবেন। এরপর ৫ মিনিট নির্বাচন কমিশনারদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন শেষে দেড়টায় আলোচনার সমাপ্তি এবং মধ্যাহ্নভোজ অনুষ্ঠিত হবে। বিকাল চারটায় গণমাধ্যমের সংলাপ নিয়ে ব্রিফিং করবে কমিশন।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, সংলাপে কমিশন প্রণীত নির্বাচনী কর্মপরিকল্পনা বা রোডম্যাপ উপস্থাপন করে এ বিষয়ে নির্বাচন বিশেষজ্ঞ, রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, পর্যবেক্ষক, নারী নেত্রীসহ প্রধান অংশীজনদের মতামত নেয়া হবে। তাদের পরামর্শ ও মতামতের উপর ভিত্তি করে কমিশন তার কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে।

সংলাপে নির্বাচনী আইন ও বিধিমালা সংশোধন, সংসদীয় আসনের সীমানা পুনঃনির্ধারণ আইন যুগোপযোগী করা, নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়নে পরামর্শ, ভোটকেন্দ্র স্থাপন সংক্রান্ত কার্যক্রম যুগোপযোগী করার বিষয়ে পরামর্শ, নতুন রাজনৈতিক দল নিবন্ধন এবং নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল নিরীক্ষা সংক্রান্ত প্রস্তাবনাসহ সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে সক্ষমতা বৃদ্ধির বিষয়ে মতামত গ্রহণ সংলাপের এজেন্ডায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।

সংলাপে অংশগ্রহণের জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা, সাবেক সচিব, সাবেক রাষ্ট্রদূত, বিচারপতি, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, আইনজীবী, অর্থনীতিবিদ, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার প্রতিনিধি, নির্বাচন পর্যবেক্ষক, মিডিয়া ব্যক্তিত্বসহ নাগরিক সমাজের ৫৯ জন প্রতিনিধিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। তাদের সঙ্গে সংলাপের পর ধারাবাহিকভাবে রাজনৈতিক দলসহ অন্যদের সঙ্গে সংলাপ চালিয়ে যাবে ইসি।

সংলাপের প্রথম ধাপে যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে তারা হলেন- সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাস উদ্দিন, অধ্যাপক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল, অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান, অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী, সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সুলতানা কামাল, আকবর আলী খান, রাশেদা কে চৌধুরী, রোকেয়া এ রহমান, আব্দুল মুয়ীদ চৌধুরী, হোসেন জিল্লুর রহমান, ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ, এম. হাফিজ উদ্দিন খান, মির্জা আজিজুল ইসলাম, সিপিডির সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক, বিচারপতি গোলাম রাব্বানী, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ, অধ্যাপক আবুল বারাকাত, টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, কলামনিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট কমিউনিকেশন্সের নির্বাহী পরিচালক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, বিএলআইএ পরিচালক ওয়ালিউর রহমান, এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির ভিসি ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী, অধ্যাপক অজয় রায়, অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, অধ্যাপক এম এম আকাশ, অধ্যাপক তারেক শামসুর রেহমান, অধ্যাপক তাসনিম আরিফা সিদ্দিকী, নিজেরা করি’র নির্বাহী পরিচালক খুশি কবির, অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, ইউজিসির সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক আসিফ নজরুল, আলী ইমাম মজুমদার, সঞ্জীব দ্রং, অধ্যাপক মাহবুবা নাসরীন, সাবেক রাষ্ট্রদূত এএফএম গোলাম হোসেন, আবুল কাশেম, ড. কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ, সাবেক সচিব আব্দুল লতিফ মন্ডল, মো. হুমায়ুন কবির, ড. সা’দত হোসেন, দৈনিক ইত্তেফাকের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক তাসমিমা হোসেন, ড. জহুরুল আলম, মুভ ফাউন্ডেশনের সভাপতি সাইফুল হক, অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল হাফিজ, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মহিউদ্দীন আহমদ, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম, সেড’র নির্বাহী পরিচালক ফিলিপ গায়েন, অবসরপ্রাপ্ত মেজর এসএম শামসুল আরেফিন, ব্রতি’র সিইও শারমিন মুরশীদ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, আবুল হাসান চৌধুরী, প্রথম আলোর মিজানুর রহমান খান, চ্যানেল আই’র শাইখ সিরাজ, বিএসএস’ চেয়ারম্যান রাহাত খান, দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার তোয়াব খান। তবে সংলাপে কতজন উপস্থিত হয়েছেন তা জানা যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here