চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন আজ

0
257

জলসা ডেক্স : নির্বাচনকে ঘিরে এফডিসি প্রাঙ্গণে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। কারণ আজ বহুল প্রতীক্ষিত চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন। এই নির্বাচনকে উপলক্ষ করে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। চারদিকে বসেছে তারকাদের আসর। সব তারকাই তাদের অঙ্গনের পরিচিত মুখ দেখে কুশল বিনিময় আর খোসগল্পে মেতে উঠেছেন। বেশ জমে উঠেছে এফডিসি। বেশ কয়েকদিন আগেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নির্বাচন। সেই নির্বাচন ঘিরে প্রাণচাঞ্চল্য ছিল এফডিসিতে। এবার বসেছে বড় পর্দার তারকাদের নিয়ে সংগঠিত চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন। এই  নির্বাচনকে ঘিরে তারকাশিল্পীদের মধ্যে বহু আগেই শুরু হয়েছে এফডিসি শাসনের প্রতিযোগিতা। এ নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরেই সরগরম চলচ্চিত্র অঙ্গন। আজ নির্বাচনের মাধ্যমে সেই উত্তেজনার ইতি ঘটতে চলেছে।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে লড়ছে তিনটি প্যানেল। নির্বাচনে মোট ২১টি পদে লড়বেন ৫৯ প্রার্থী। ভোটার সংখ্যা ৬২৪ জন। প্যালেন তিনটি হচ্ছে— ওমর সানী-অমিত হাসান, মিশা সওদাগর-জায়েদ খান ও ড্যানি সিডাক-ইলিয়াস কোবরা প্যানেল। এই তিনটি প্যানেলের প্রার্থীরা নির্বাচনের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করেছেন কয়েকদিন ধরেই। এরই মাঝে ২ এপ্রিল মিশা-জায়েদ খান তাদের প্যানেল পরিচিতি সভা করেছে এফডিসি প্রাঙ্গণে। এরপরের দিন প্যানেল পরিচিতি সভা করে যথাক্রমে ওমর সানী-অমিত হাসান ও ড্যানি সিডাক-ইলিয়াস কোবরা প্যানেল। তবে এবার থাকছেন না গতবারের শিল্পী সমিতির সভাপতি শাকিব খান। তিন প্যানেলের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থীরা নির্বাচন নিয়ে তাদের অভিমত ব্যক্ত করেন। সভাপতি পদপ্রার্থী মিশা সওদাগর বলেন, ‘ব্যাংকে এক কোটি টাকার স্থায়ী আমানত থেকে পাওয়া অর্থ দিয়ে শিল্পীদের নামে জীবন বীমা করা হবে। এমন একটি উপদেষ্টামণ্ডলী গঠন করা হবে, যারা নজির সৃষ্টি করার মতো কাজ করবেন। শিল্পীপল্লী তৈরি করব। ’ আর নীতিগতভাবে এক সাধারণ পদপ্রার্থী জায়েদ খান বলেন, ‘বিদেশি ছবির আগ্রাসন বন্ধে কাজ করব। চলচ্চিত্রকে একটি মানসম্মত স্থানে নিয়ে যেতে চাই। এই চলচ্চিত্র শিল্পীদের জন্য যা যা করা প্রয়োজন তা করতে বদ্ধপরিকর আমি। ’ অন্যদিকে সানী-অমিত হাসান প্যানেলের সভাপতি পদপ্রার্থী সানী এবং সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী অমিত হাসানের নির্বাচনী সুর একই। তারা বলেন,‘ বিদেশি ছবির আগ্রাসন বন্ধে কাজ করব। যৌথ প্রযোজনার ছবিগুলো সঠিক নিয়ম মেনে তৈরি করা হচ্ছে কি না, সেটি পর্যবেক্ষণ করতে চাই। ’

এ ছাড়াও ড্যানি সিডাক-ইলিয়াস কোবরা প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী এবং সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী শিল্পীদের জন্য সুস্বাস্থ্য, সুচিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করবেন বলে জানান।

শিল্পী সমিতির নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে রয়েছেন মনতাজুর রহমান আকবর। এবারের অধিকাংশ প্রার্থীই তরুণ ও নবীন। নির্বাচনে বিভিন্ন পদে প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন নিরব, ইমন, জায়েদ খান, সাইমন, অমৃতা খান প্রমুখ। অন্যদিকে রয়েছেন রিয়াজ, পূর্ণিমা, পপি, ফেরদৌস, বাপ্পারাজ, মৌসুমীসহ পরিচিত কিছু তারকা। এ ছাড়া নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন চিত্রনায়িকা রোজিনা, অঞ্জনা, সুব্রত, আলীরাজ, শহীদুল আলম সাচ্চু, নাদের খান, আরমান, রীনা খান, শহীদুজ্জামান সেলিম, অরুণা বিশ্বাস, ওমর সানী, অমিত হাসান, মিশা সওদাগর, রুবেলের মতো সিনিয়র তারকাশিল্পীরা। প্রতি দুই বছর পরপর শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে ২০১৫ সালের ৩০ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি নির্বাচিত হন শাকিব খান এবং সাধারণ সম্পাদক অমিত হাসান।   সেই বছর ৭ ফেব্রুয়ারি শপথ গ্রহণের মাধ্যমে দায়িত্ব বুঝে নিয়েছিলেন তারা। ২০১৫-১৬ কমিটির মেয়াদ চলতি বছর ৭ ফেব্রুয়ারি শেষ হয়েছে। দুই মাসের মাথায় আসন্ন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। নির্বাচনে অংশগ্রহণ না থাকলেও বাপ্পী, মাহি, আঁচল, পরীমনি, বুবলিরা আছেন তাদের তারকাদের পাশেই। চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সবার দাবি, সবার অংশগ্রহণে দুর্বার একটা দল আসুক নেতৃত্বে। যারা নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করবে। বর্তমান তিন প্যানেলেই দেখা যাচ্ছে নতুন প্রজন্মের তারকাদের চোখে পড়ার মতো উপস্থিতি। আর নির্বাচন না করেও অনেক তারকা নির্বাচনকে ঘিরে আড্ডা-আলোচনায় মেতে উঠছেন। সিনিয়রদের মুখেও নতুনদের হাতে নেতৃত্ব বুঝিয়ে দেওয়া ইতিবাচক দিন চোখে পড়ছে। সব মিলিয়ে চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে সকলেই একটা নবতর এবং আমূল পরিবর্তন চাইছে। তাই প্রতিটি প্যানেলই কয়েকজন সিনিয়র শিল্পীকে সামনে রেখে নতুনদের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়াতে চাইছে। এবার দেখার জয়ের রথে কারা এগিয়ে যায়; কাদের হাতে শোভা পায় ভবিষ্যৎ চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির শাসনদণ্ড!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here