চলছে যশোরের ২২টি ইউপির ভোট গ্রহন

0
67

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের চৌগাছা ও ঝিকরগাছা উপজেলার ২২ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শুরু করেছে।

বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকাল আটটায় ভোট শুরু হয়। এই নির্বাচনে প্রথমবারের মতো সকালে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ব্যালট পাঠানো হয়।

দুই উপজেলার ২২৫টি কেন্দ্রে এক হাজার ৮৫টি বুথে তিন লাখ ৯৯ হাজার ৯৬৩ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

টানটান উত্তেজনাকর এই নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত ও পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি ও র‌্যাব সদস্যরাও দায়িত্ব পালন করছেন।

শার্শা সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ কয়েরপাড়া ঈদগাঁ মাঠ কেন্দ্রে সকাল থেকে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট হচ্ছে বলে জানিয়েছেন এই কেন্দ্রে দায়িত্বরত এএসআই শিবপদ।

এখানকার প্রিজাইডিং অফিসার মেহেদী হাসান জানান, এই কেন্দ্রে নারী-পুরুষ মিলে ৬৯৩ জন ভোটার আছেন। সকাল থেকে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট হচ্ছে।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, চৌগাছার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ করা হবে। তবে এরমধ্যে দুইটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান বিজয়ী হয়ে গেছেন। বাকি ৯টি ইউপিতে ৩৯জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া ৩৬৫ সাধারণ সদস্য ও ১১২ জন নারী সংরক্ষিত সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর ঝিকরগাছার ১১টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪৭ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৩১ ও সংরক্ষিত সদস্য পদে ৪৩১ প্রার্থী আছেন।

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান জানান, দুই উপজেলায় ছয়টি ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করছে। মোতায়েন থাকবে বিজিবির চার প্লাটুন সদস্য। এছাড়া দুই হাজার পুলিশ সদস্য ও মাঠে সাদা পোশাকে ডিবি, ডিএসবির সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।

দ্বিতীয় ধাপের এই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই ঝিকরগাছা ও চৌগাছার বিভিন্ন ইউনিয়নে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের খবর আসে। এক পর্যায়ে এসব বিদ্রোহী প্রার্থীদের দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার করে আওয়ামী লীগ। তবে বহিষ্কার করেও বিদ্রোহীদের দমন করা যায়নি। তারা যেমন নির্বাচনী মাঠে আছেন, তেমনি অব্যাহত রয়েছে নির্বাচনী সহিংসতা।