চাই সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা

0
315

উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফল প্রকাশিত হইয়াছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য তুলনামূলকভাবে মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য আবার শুরু হইবে দেশ-সফর। ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে দেশ-সফর। দারুণ বটে। তবে এই সফর ‘নিদারুণ’ হইয়াই দেখা দেয় শিক্ষার্থীদের নিকট। ভর্তি পরীক্ষার শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতির দুশ্চিন্তা, অচেনা-অজানা শহরে রাত্রিযাপন কিংবা নির্ঘুম রাতে বাস-ট্রেনে চড়িয়া বসা, ছুটিয়া চলা এক জেলা হইতে অন্য কোনো জেলায়। বন্যা বা নিম্নচাপের অঝোর বারিধারা—সকল কিছু ছাপাইয়া তাহাদের ছুটিতেই হইবে ভবিষ্যত্ উচ্চশিক্ষার বাতি জ্বালাইয়া রাখিবার মানসে। এই অন্তহীন ছোটাছুটির মধ্যে রহিয়াছে টিকিট ম্যানেজ করিবার যন্ত্রণা। অগণিত মেধাবী শিক্ষার্থীর সেই আর্থিক সঙ্গতিও আছে কি নাই—অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, তাহা লইয়া কর্তৃপক্ষের ভাবিবার সময় কোথায়? এই ভর্তি-সফরের দুর্যোগে সবচাইতে বেশি বিপন্ন বোধ করেন নারী শিক্ষার্থীরা। তাহাতেই-বা কী আসে যায়?

অথচ একটি সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকিলে এই নাভিশ্বাস দশা হইতে মুক্তি মিলিত খুব সহজেই। সমন্বিত বা গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে আলোচনা শুরু হয় ২০০৮ সালে। ইহারই ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালের ৭ জুলাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে উপাচার্যদের সভায় বেশিরভাগ উপাচার্য সমন্বিত বা গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে নীতিগতভাবে একমত পোষণ করেন। দুর্ভোগ লাঘবে পাবলিক মেডিক্যাল কলেজের আদলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহকে সাধারণ, প্রকৌশল ও কৃষি—এই তিনটি গুচ্ছে বিভক্ত করিয়া সমন্বিতভাবে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠানের সুপারিশও করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে অনেক ক্ষেত্রেই একটি আসনের জন্য শতাধিক শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিয়া থাকেন। প্রতিযোগিতায় টিকিয়া থাকিতে শিক্ষার্থীরা কোচিংয়ে ভর্তি হন। অথচ সমন্বিত তথা কেন্দ্রীয়ভাবে পরীক্ষার আয়োজন করা হইলে একটি আসনের জন্য প্রতিযোগীর সংখ্যা পাঁচ-ছয় জনের বেশি হইত না। একটি সূত্রানুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষাকে পুঁজি করিয়া প্রতি বত্সর ৩২ কোটি টাকারও বেশি কোচিং-বাণিজ্য চলে। পত্রিকান্তরে প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ফরম বিক্রি বাবদ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য করিয়া থাকে। পরীক্ষা গ্রহণের আয়ের যে অংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফান্ডে জমা দেওয়ার কথা তাহাও নাকি অনেক ক্ষেত্রে জমা দেওয়া হয় না। এমন অভিযোগও উঠিয়াছে যে, এই মোটা অঙ্কের টাকা হাতছাড়া না করিতেই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা কেন্দ্রীয়ভাবে তথা সমন্বিত পরীক্ষা পদ্ধতির পক্ষে নহেন। অভিযোগটি গুরুতর। যতদূর জানা যায়, সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা লইয়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি নীতিগত সম্মতি রহিয়াছে মাননীয় রাষ্টপতি এবং প্রধানমন্ত্রীরও। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী এবং সরকার—উভয় পক্ষই যখন চাহিতেছে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা, তখন কাহাদের স্বার্থে চালু হইতেছে না এই পদ্ধতি?

নিশ্চয়ই এমন একটি দিন আসিবে যখন সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী নিজ জেলাতে বসিয়াই ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিতে পারিবে। অবসান ঘটিবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য জেলায় জেলায় অমানবিক ও অপ্রয়োজনীয় এই ছোটাছুটির। আজ হউক অথবা আগামীতে— ইহা ঘটিবেই। তবে কেন বর্তমানে একটি গোষ্ঠীর অন্যায্য স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়া চালু করিতে বিলম্বিত করা হইতেছে এই সুবিধাজনক বিজ্ঞানভিত্তিক পদ্ধতি? এই দায় কেন বহন করিবে একটি জনস্বার্থবান্ধব ডিজিটাল সরকার?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here