চিকিৎসক-ব্যবসায়ী মিলেমিশে বাণিজ্য

0
295

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদেশ থেকে আমদানি করা ৩০ টাকা দামের একটি স্যালাইন ১১০ থেকে ১১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ৫ টাকা দামের একটি ইনসুলিন সিরিঞ্জ ১০ থেকে ১৫ টাকা, ১৫ টাকার ব্লাড ট্রান্সফিউশন সেট ৭৫ থেকে ৮৫ টাকা, ৮ টাকার আইভি ক্যানোলা ১৫ থেকে ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এভাবে দেশের বাজারে প্রায় সাড়ে চার হাজার চিকিৎসাসামগ্রী ও ডিভাইসের প্রায় সবই কয়েকগুণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি বছর প্রায় ১৮ হাজার কোটি টাকার বিভিন্ন ধরনের ডিভাইস বিক্রি হয়। জীবনরক্ষাকারী এসব ডিভাইস নিয়ে বছরের পর বছর ধরে সংঘবদ্ধ চক্র অপবাণিজ্যে অতিমুনাফা করে চলছে।

দেশীয় জেএমআই নামে একটি কোম্পানি ৩৩ ধরনের এবং অন্য কয়েকটি কোম্পানি কিছু মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করে। ৯৫ শতাংশের বেশি যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয়। আমদানি করা মেডিকেল ডিভাইসের মান নিয়ন্ত্রণ করার কোনো কর্তৃপক্ষ নেই। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর শুধু আমদানি করার অনুমোদন দিয়েই দায়িত্ব শেষ করে। ওইসব সামগ্রী বাজারে আসার পর আমদানিকারকদের ইচ্ছাতেই মূল্য নির্ধারণ করা হয়। তিন থেকে পাঁচ স্তরে কমিশন বাণিজ্যের পর ওইসব পণ্য রোগীর কাছে পেঁৗছায়। একেকটি পণ্য কেনা দামের ৪ থেকে ৫ গুণ বেশি দামে বিক্রি করা হয়। মেডিকেল ডিভাইসের বাজার সরকারের নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারিতে না থাকায় চিকিৎসা-সেবাপ্রার্থীরা গলাকাটা দাম দিতে বাধ্য হচ্ছেন। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, অসাধু ব্যবসায়ীদের সঙ্গে একশ্রেণির নৈতিকতাহীন চিকিৎসকের সিন্ডিকেট মিলেমিশে মেডিকেল ডিভাইসের বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে।

সম্প্রতি ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর হার্টের রিং ও চোখের কৃত্রিম লেন্সের দাম নির্ধারণ করলেও তা মানতে চাইছেন না ব্যবসায়ীরা। তবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ইচ্ছামতো কোনো কিছু চলতে দেওয়া হবে না। হার্টের রিং ও চোখের কৃত্রিম লেন্সের মতো অন্য সব মেডিকেল ডিভাইসের মূল্য সরকার নির্ধারণ করে দেবে। এ জন্য একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা মূল্য নির্ধারণের বিষয়ে কাজ করছে।

সার্জিক্যাল যন্ত্রপাতি ও মেডিকেল ডিভাইসের মধ্যে আছে হার্টের স্টেন্ট বা রিং, পেস মেকার, হার্টের ভাল্ব, আর্টিফিসিয়াল প্রসথেসিস, ডায়াবেটিস নির্ণায়ক যন্ত্র, আর্টিফিসিয়াল গ্রাফট, অক্সিজেন, অক্সিমিটার, নেবুলাইজার, মনিটরিং এয়ার, গ্যাস লিনিয়ার এক্সিলেরেটর ইত্যাদি। ভারত ও চীন থেকে এসব চিকিৎসাসামগ্রীর প্রায় ৯০ শতাংশ আমদানি করা হয়। এ ছাড়া সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, আমেরিকা, কানাডা, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, সুইজারল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশ থেকে চিকিৎসাসামগ্রী আমদানি করা হয়। বাজারটি প্রতিযোগিতামূলক নয়, বরং ব্যবসায়ীরা যে মূল্য নির্ধারণ করে দেন সে অনুযায়ী বাজারে এসব সামগ্রী বিক্রি হয়।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক মো. রুহুল আমিন বলেন, মেডিকেল ডিভাইসের ক্ষেত্রে দেশি পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। বিদেশি যেসব পণ্যের মূল্য এতদিন ঠিক করা ছিল না, সেগুলোর বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

কৃত্রিম সংকটে অতিমুনাফা: সংশ্লিষ্টরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে বাজারে ইউরিন ব্যাগ, স্ক্যান ভেইন সেট, ইনসুলিন সিরিঞ্জ, স্যালাইন ইনফিউশন সেট, ব্লাড ট্রান্সফিউশন সেট, আইভি ক্যানোলাসহ প্রয়োজনীয় অন্তত একশ’ সামগ্রীর সংকট চলছে। ঘাটতির কারণে তিন থেকে পাঁচগুণ বেশি দামে রোগীকে এসব কিনতে হচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, একটি সিন্ডিকেট বাজারে ডিভাইসের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে অতিরিক্ত মুনাফা হাতিয়ে নিচ্ছে। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অগ্রিম টাকা নিয়েও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জেএমআই মেডিকেল ডিভাইস সরবরাহ করছে না।

এ বিষয়ে জেএমআই কোম্পানির সচিব তারেক হোসেন বলেন, আইভি ক্যানোলা উৎপাদনে তাদের কোনো ঘাটতি নেই। তাই সংকটেরও প্রশ্ন আসে না।

এদিকে দাম বাড়ার কারণ সম্পর্কে বাংলাদেশ মেডিকেল ইনস্ট্রুমেন্টস অ্যান্ড হসপিটাল ইকুইপমেন্ট ডিলার্স অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের ঢাকা শাখার সভাপতি জাভেদ আহমেদ জানান, রেজিস্ট্রেশন থাকা সত্ত্বেও ডিভাইস আমদানির অনুমতি মিলছে না। ফলে বাজারে পণ্যগুলোর অস্বাভাবিক দাম বাড়ছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সাধারণত মেডিকেল ডিভাইস হচ্ছে চিকিৎসা যন্ত্রপাতি। অস্ত্রোপচারে ছুরি-চাকু, ব্লেড, গজ-ব্যান্ডেজ ছাড়াও রোগীর জন্য মেডিকেল ডিভাইস প্রয়োজন হয়। হার্টের ব্লক থাকলে রিং পরানো হয়, হার্টের বাইপাসে অক্সিজেনেটর ও শান্ট ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া হার্টের ভাল্ব লাগানো, ছিদ্রের চিকিৎসায় প্যাচ নামের মেডিকেল ডিভাইস বসানো, মেরুদণ্ডের হাড় ক্ষয় হলে স্টূ্ক্র বসানো, পেট ও অন্যান্য স্থানে মেশিন ব্যবহার করে ক্যান্সারের অস্ত্রোপচার, হাত-পা ভাঙায় রড-প্লেট লাগিয়ে দেওয়া হয়।

অনুসন্ধানে পাওয়া গেছে, প্রতিটি ডিভাইস লাগানোর বিনিময়ে অনেক চিকিৎসক যে কমিশন নেন, তা এক ওপেনসিক্রেট। যে কোম্পানি বেশি কমিশন দেয় তাদের ডিভাইস বেশি চালানো হয়। ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীর অস্ত্রোপচারে ব্যবহৃত ২৫ হাজার টাকার ডিভাইস থেকে চিকিৎসকরা ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত কমিশন পেয়ে থাকেন। হাঁটুর অস্ত্রোপচারে লাগানো ৩০ হাজার টাকার ডিভাইস থেকে ১০ হাজার এবং মেরুদণ্ডে লাগানো ২৫ থেকে ৬০ হাজার টাকার ডিভাইস থেকে ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা কমিশন পেয়ে থাকেন। এভাবেই এক শ্রেণির চিকিৎসক প্রতিটি ডিভাইস থেকে ৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত কমিশন পাচ্ছেন। এ টাকাও অংশত ব্যবসায়ীরা রোগীর কাছ থেকেই তুলে নেন। এ জন্যই অগি্নমূল্য। সরকার নাগরিকদের স্বার্থ রক্ষায় উপযুক্ত ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

চাই মূল্য নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ: ডিভাইসের বাজার নিয়ন্ত্রণে মূল্য নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ গঠনের দাবি জানিয়েছেন হেলথ কনজিউমার রাইটস ফোরামের আহ্বায়ক ইবনুল সাঈদ। তিনি বলেন, ভারতসহ অনেক দেশে ফার্মাসিউটিক্যালস অ্যান্ড মেডিকেল ডিভাইস প্রাইসিং অথরিটি সব ধরনের ওষুধ, মেডিকেল ডিভাইস, এক্সেসরিজের আদর্শ মূল্য নির্ধারণ করে থাকেন। তবে বাংলাদেশে বছরের পর বছর ধরে কোনো নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই মেডিকেল ডিভাইস আমদানি ও বিক্রি চলছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. রশিদ-ই মাহবুব বলেন, দেশে মেডিকেল ডিভাইসের বাজার দিন দিন বাড়ছে। এ বিষয়ে সরকারকে অবশ্যই নজরদারি বাড়াতে হবে।

সরকার বনাম ব্যবসায়ী: মেডিকেল ডিভাইস নিয়ে চলমান অস্থিরতা দূর করতে সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে ব্যবসায়ীরা তা মানতে রাজি নন। ২০১৫ সালের শেষদিকে প্রায় ৪ হাজার ২০০ মেডিকেল ডিভাইসের নাম অন্তর্ভুক্ত করে রেজিস্ট্রেশন গাইডলাইন চালু করে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। ওই গাইডলাইন অনুযায়ী, নিবন্ধন ছাড়া কোনো ডিভাইস বাজারে বিক্রি করা যাবে না। এরপর গত বছরের ১৩ নভেম্বর শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে ওষুধ, মেডিকেল ডিভাইস ও ডায়াগনস্টিক রি-এজেন্ট ছাড়করণের বিষয়ে একটি চিঠি দেন ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান। এতে বলা হয়, ১৯৪০ সালের ড্রাগ অ্যাক্ট অনুযায়ী যে কোনো ওষুধ বা মেডিকেল ডিভাইস আমদানিতে ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদন নেওয়া আবশ্যক। কিন্তু ঔষধ প্রশাসনের অনুমোদন ছাড়াই ভিন্ন এইচএস কোড ব্যবহার করে বিদেশ থেকে পণ্য আনছেন আমদানিকারকরা। এভাবে দেশে মানবহির্ভূত ওষুধ ও মেডিকেল ডিভাইস ছড়িয়ে পড়ছে। অন্যদিকে সরকারের উদ্যোগের প্রতিবাদে ৬ ডিসেম্বর থেকে টানা তিন দিন বাংলাদেশ মেডিকেল ইনস্ট্রুমেন্টস অ্যান্ড হসপিটাল ইকুইপমেন্টস ডিলার্স অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমআইএইচইডিএমএ) আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে। আমদানিনীতির অজুহাত তুলে মেডিকেল সামগ্রীগুলোর কোনো রকম নিবন্ধন ছাড়াই ব্যবসা করতে চাইছেন ব্যবসায়ীরা।

বাংলাদেশ মেডিকেল ইন্সট্রুমেন্ট অ্যান্ড হসপিটাল ইকুইপমেন্ট ডিলার্স অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শরীফ উদ্দিন আহমেদ বলেন, দেশে ব্যবহৃত মেডিকেল ডিভাইসের প্রায় ৯০ শতাংশই বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। আগে ৯ ধরনের ডিভাইস ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর দেখভাল করত। গত বছর প্রায় সাড়ে চার হাজার পণ্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করে এবং সেগুলোকে চার ভাগে বিভক্ত করে প্রতিষ্ঠানটি একটি গাইডলাইন তৈরি করে। এসবের মধ্যে ইউরিন পট, হিপবেল্ট, টুথব্রাশ, হুইল চেয়ারসহ অনেক পণ্য মেডিকেল ডিভাইসের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এই গাইডলাইন তৈরির সময় ব্যবসায়ীদের কোনো প্রতিনিধি রাখা হয়নি। এমনকি এ বিষয়ে যারা বিশেষজ্ঞ তাদেরও রাখা হয়নি। এতে জটিলতা তৈরি হয়েছে।

সংগঠনের ঢাকা শাখার সভাপতি জাভেদ আহমেদ জানান, সরকারের এ সিদ্ধান্তের পর ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ, আইভি ক্যানোলা, ইনফিউশন সেট, ব্লাড ট্রান্সফিউশন সেট, সাকসেশন ক্যাথেটার ও ডিসপোজেবল ফিডিং টিউব আমদানি বন্ধ রয়েছে। এতে এসব পণ্যের দাম কয়েকগুণ বেড়েছে। অন্যদিকে বন্দরে শতকোটি টাকার পণ্য ছাড় করা হচ্ছে না। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সেগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ৩০ টাকার ফিডিং টিউব বর্তমানে ৮০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরকার একদিকে মুক্তবাজার অর্থনীতির স্লোগান দেবে, অন্যদিকে আমদানিযোগ্য পণ্য দেশে আনতে বাধার সৃষ্টি করবে- এমনটি হতে পারে না।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান  বলেন, আমদানি করা ডিভাইসের মান নিশ্চিত করার কোনো কর্তৃপক্ষ ছিল না। মানসম্মত মেডিকেল ডিভাইস ব্যবহার ও সাধারণ মানুষকে নির্দেশনা প্রদানের লক্ষ্যে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে। হার্টের রিংয়ের মতো অন্যান্য ডিভাইসেরও যুক্তিসঙ্গত দাম নির্ধারণ করা হবে। এ জন্য তালিকা প্রণয়নের কাজ চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here